আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে যুক্তরাষ্ট্রে বহুজাতিক সমাবেশ

প্রকাশিত:রবিবার, ২৪ ফেব্রু ২০১৯ ০৩:০২

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে যুক্তরাষ্ট্রে বহুজাতিক সমাবেশ

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে যুক্তরাষ্ট্রে বহুজাতিক সমাবেশ করেছে জাতিসংঘে বাংলাদেশ মিশন ও নিউ ইয়র্কে বাংলাদেশ কনসুলেট জেনারেল।

 

স্থানীয় সময় শুক্রবার বিকেলে নিউ ইয়র্কের ফ্লাশিংয়ে অবস্থিত কুইন্স লাইব্রেরিতে এ অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ছাড়াও অংশ নেন চীন, ভারত, পাকিস্তান, নেপাল, মালয়েশিয়া, মেক্সিকো, কলম্বিয়া ও কসভোর নাগরিকরা।

 

লাইব্রেরির নিউ আমেরিকান প্রোগ্রামের কর্মকর্তা সেলিনা শারমিনের সঞ্চালনায় এতে স্বাগত বক্তব্য দেন বাংলাদেশের কনসাল জেনারেল সাদিয়া ফয়জুননেসা।

 

তিনি বলেন, “দিবসটি সারা বিশ্বে ভাষার বৈচিত্র উদযাপনের একটি প্রেক্ষাপট তৈরি করেছে যার নেতৃত্ব দিচ্ছে বাংলাদেশ।”

 

 

এসময় তিনি নিউ ইয়র্কে একটি স্থায়ী শহীদ মিনার নির্মাণের প্রয়োজনীয়তার কথা বলেন এবং কুইন্স বোরো প্রেসিডেন্টের কাছে অনুরোধ জানান।

জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন বলেন, “বাঙালির একুশ আজ সারাবিশ্বে ঝুঁকিতে থাকা অসংখ্য ভাষাকে রক্ষাকল্পে সম্মিলিতভাবে সংকল্প গ্রহণের দিন হিসেবে উদযাপিত হচ্ছে। আর এভাবেই মায়ের ভাষার জন্য বাঙালিদের রক্তদানের অবিস্মরণীয় ঘটনাবলি সর্বমহলে প্রশংসার সাথে উচ্চারিত হচ্ছে। এটি সম্ভব হয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শি পদক্ষেপে।”

 

 

এ অনুষ্ঠান আয়োজন করায় কুইন্স লাইব্রেরির সহকারি পরিচালক ফ্রেড জে গিটনার বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত ও কনসাল জেনারেলকে ধন্যবাদ জানান। লাইব্রেরির সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট নিক বুরনও সন্তোষ প্রকাশ করেন এমন আয়োজনের ভেন্যু হিসেবে এ লাইব্রেরিকে বেছে নেওয়ায়।

 

কুইন্সের বরো প্রেসিডেন্ট মেলিন্ডা কাটজ বলেন, “১৯০ দেশের ২ শতাধিক ভাষার মানুষ বাস করছে এই কুইন্সে। এটি বিশ্বের যে কোন স্থানের চেয়ে বেশি ভাষা-ভাষী মানুষের এলাকা। সেখানে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসকে আরো মহিমান্বিত করতে ১.৫ মিলিয়ন ডলার বরাদ্দ করা হয়েছে শহীদ মিনার স্টাইলে একটি মনুমেন্ট নির্মাণের জন্য।”

 

সভায় আরো বক্তব্য দেন বাংলাদেশ জাতীয় সংসদে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান এ এফ এম রুহুল হক, ভারতীয় কনসাল জেনারেল সন্দ্বীপ চক্রবর্তী, কসভোর কনসাল জেনারেল টিউটা সাহাতকিজা, কলম্বিয়ার স্থায়ী মিশনের উপ-স্থায়ী প্রতিনিধি ফ্রান্সিসকো আলবার্টো গঞ্জালেজ, থাইল্যান্ডের কনসাল জেনারেল নিপুন পেচপর্নরাপাস, নিউ ইয়র্ক সিটি কাউন্সিলম্যান কোস্টা কন্সট্যান্টিনাইডস ও যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান।

 

সভার পর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশ নেয় বাংলাদেশি সংগঠন ‘বিপা’, চীনা সংগঠন ‘জিং হাই আর্টস সেন্টার’, কসোভা, ভারত, থাইল্যান্ড, মেক্সিকো, বুলগেরিয়া ও বাংলাদেশের শিল্পীরা।

 

এই সংবাদটি 1,227 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •