আমরা কি এখনো আঙ্গুল চুষব - BANGLANEWSUS.COM
  • নিউইয়র্ক, বিকাল ৪:৪৭, ২৪শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ


 

আমরা কি এখনো আঙ্গুল চুষব

banglanewsus.com
প্রকাশিত ফেব্রুয়ারি ১১, ২০২৪
আমরা কি এখনো আঙ্গুল চুষব

গোলাম মাওলা রনি :: ভারতের রাজনীতিতে তার প্রভাব নরেন্দ্র মোদির চেয়ে কম নয়, কিন্তু জনপ্রিয়তা ও আকর্ষণের বিচারে তিনি যে পর্যায়ে পৌঁছেছেন তেমনটি খুব কম ভারতীয়র কপালে জোটে। তার ব্যাপারে আমার তেমন কোনো আগ্রহ ছিল না। কিন্তু একবার একটি সাক্ষাৎকারে ভারতের প্রধানতম জনপ্রিয় অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাউতকে যখন জিজ্ঞাসা করা হলো, তিনি যদি সুযোগ পেতেন তবে আগ বাড়িয়ে গিয়ে কার সাথে ছবি তুলে গর্বানুভব করতেন। উত্তরে কঙ্গনা এক মুহূর্ত দেরি না করে ঝটপট উত্তর দিলেন, আমি অজিত দোভাল স্যারের সাথে ছবি তুলতে চাই।

কঙ্গনার মুখে অজিত দোভালের নাম শুনে আমি প্রথম দফায় নড়েচড়ে বসলাম। তখন পর্যন্ত জানতাম যে, তিনি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির একজন উপদেষ্টা, যিনি কিনা নিরাপত্তা-বিষয়ক পরামর্শ দিয়ে থাকেন। ভারত কিংবা আমেরিকাতে অথবা পশ্চিমা দেশগুলোতে সরকারপ্রধানের অনেকগুলো উপদেষ্টা পরিষদ থাকে, যাদের ভূমিকা আমাদের দেশে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী অথবা বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টামণ্ডলীদের মতো। নাম-যশ-গুরুত্ব যেমন আমাদের দেশের শীর্ষ দুই রাজনৈতিক নেতার উপদেষ্টামণ্ডলীর কপালে জোটে না, তদ্রƒপ পশ্চিমা দুনিয়ার সরকারপ্রধানদের উপদেষ্টামণ্ডলীর কপালেও মন্ত্রী-এমপিদের মতো কদর জোটে না। আমাদের দেশে বাইডেনের এক ভুয়া উপদেষ্টার ধরা খাওয়া ও জেলে যাওয়ার পর জানলাম, মার্কিন প্রেসিডেন্টের বহু সংখ্যক উপদেষ্টা প্যানেল রয়েছে। কিন্তু ওসবের কোনো গুরুত্ব মার্কিন সমাজে নেই।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট অথবা ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টাদের গুরুত্ব না থাকলেও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টাদের দাপট বাঘা বাঘা মন্ত্রীর চেয়েও বেশি। সুতরাং অজিত দোভালের গুরুত্ব আমি বড়জোর বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর সামরিক উপদেষ্টা তারেক সিদ্দিকীর সমপর্যায়ে রেখে তার চিন্তা মস্তিষ্ক থেকে বাদ দিলাম। কিন্তু কয়েক মাস পর যখন দেখলাম কঙ্গনা রানাউত একটি বিমানযাত্রায় অজিত দোভালের পাশে দাঁড়িয়ে একটি সেলফি তুলে সামাজিক মাধ্যমে পোস্ট করেছেন, তখন আমার টনক নড়ল। ছবিতে অজিত দোভাল কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ অথবা মহাত্মা গান্ধী কিংবা নেলসন ম্যান্ডেলার মতো গাম্ভীর্য নিয়ে বসে আছেন এবং তার সামনে দাঁড়িয়ে কঙ্গনা খুশিতে হতবিহ্বল হয়ে কিশোরীর চপলতা-শ্রদ্ধা-ভক্তি ও খুশির সর্বোচ্চ ঝিলিক চোখে-মুখে ফুটিয়ে তুলে ছবিতে পোজ দিয়েছেন।

আপনারা যারা ভারতীয় চলচ্চিত্র সম্পর্কে খোঁজখবর রাখেন তারা খুব ভালো করেই জানেন, কঙ্গনা কতটা স্পষ্টবাদী, বেয়াড়া ও মেধাবী। ক্ষেত্রবিশেষে তার অহমিকা এমন পর্যায়ে পৌঁছে যায়, যখন তিনি দেশ-রাষ্ট্র-সমাজ-সংসার সব কিছুর বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করে বসেন। তার যে স্বভাব, কেউ যদি ১০০ কোটি টাকা দিয়ে কঙ্গনাকে বলতেন, অমিত শাহ অথবা নরেন্দ্র মোদির সাথে ছবি তোলার জন্য, সে ক্ষেত্রে কঙ্গনা হয়তো রাজি হতেন না। তো সেই কঙ্গনা যার সামনে ছবি তোলার জন্য নতজানু হন কিংবা যার সাথে আগ বাড়িয়ে ছবি তোলার স্বপ্ন দেখেন তার সম্পর্কে জানার আগ্রহ আমাকে চেপে ধরল। বিভিন্ন মাধ্যম ঘেঁটে যা জানলাম তার সংক্ষিপ্ত রূপ হলো:

সার্বিক বিচারে অজিত দোভাল ভারতের ইতিহাসের জনপ্রিয় ও প্রভাবশালীদের মধ্যে প্রধানতম ব্যক্তিত্ব। তিনি ভারত রাষ্ট্রের একজন সাবেক আমলা। তিনি প্রথমে কেরালা রাজ্যের গোয়েন্দা ব্যুরোতে কাজ করতেন এবং পরে ইন্ডিয়ান পুলিশ সার্ভিস বা আইপিএসের সদস্য হন। জীবনের বিরাট অংশ তিনি একজন অত্যন্ত সফল গুপ্তচর রূপে ভারত সরকারের পক্ষে দেশ-বিদেশে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেন। তার শ্বাসরুদ্ধকর কর্মকাণ্ড এবং কর্মক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ঝুঁকি নিয়ে রাষ্ট্রের স্বার্থরক্ষার বহু ঘটনা সিনেমার কাহিনীকে হার মানায়। এ জন্য তাকে বলা হয় ভারতের জীবন্ত জেমস বন্ড। ২০১৪ সাল থেকে তিনি জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা হিসেবে দায়িত্বরত।

ভারতের প্রাক্তন প্রধান নির্বাচন কমিশনার টিএন সেসন অথবা সাবেক আইপিএস কিরণ বেদির জনপ্রিয়তার কিংবদন্তি রয়েছে। কিন্তু অজিত দোভালের সাথে কোনো রাজনৈতিক নেতা-আমলা কিংবা সিনেমার নায়কের তুলনা চলে না। মিসরে একসময় জামাল আবদেল নাসেরের যে অবস্থা হয়েছিল ঠিক একই অবস্থা হয়েছে অজিত দোভালের। ভারতের ১৪২ কোটি মানুষের মধ্যে তিনি যে অভূতপূর্ব সাড়া জাগিয়েছেন অমনটি ওই দেশের শত বছরের ইতিহাসে দ্বিতীয়বার ঘটেনি। ১৯৮৮ সালের অপারেশন ব্ল্যাক থান্ডার, ইরাক থেকে ৪৬ জন ভারতীয় নাগরিককে উদ্ধার, ২০১৫ সালের নাগাল্যান্ড অপারেশন, ২০১৬ সালে পাকিস্তানের ওপর সফল আক্রমণ, ২০১৯ সালে পাকিস্তানের বালাকোটে সফল আক্রমণসহ পাকিস্তান ও চীনের সাথে গত ১০ বছর ধরে যত সব শ্বাসরুদ্ধকর সামরিক অভিযান চলেছে তার সব কিছুর কৃতিত্ব ভারতবাসী অজিত দোভালকে দিয়ে থাকেন। কাজেই অজিত দোভালকে কেন্দ্র করে ভারতবর্ষে কী ধরনের আকর্ষণ ঘূর্ণিপাক খাচ্ছে তা অনুধাবন করতে আমার বেশিক্ষণ লাগেনি।

অজিত দোভাল সম্পর্কে এত কিছু বলার কারণ হলো, তিনি সম্প্রতি বাংলাদেশ সফর করে গেছেন। তার সাথে অতি উচ্চপর্যায়ের তিনজন নিরাপত্তাবিশেষজ্ঞ এসেছিলেন। তার সফরসূচি নিয়ে দিল্লি অথবা ঢাকার পক্ষ থেকে বিস্তারিত কিছু বলা হয়নি। তবে তিনি এমন এক সময় ঢাকা সফর করেন যখন ইতিহাসের ভয়াবহতম আর্থিক ঝুঁকির কবলে পড়েছে বাংলাদেশ এবং এই ঝুঁকি মোকাবেলায় একমাত্র অবলম্বন চীন। অন্যদিকে, রোহিঙ্গা সমস্যার সাথে পাল্লা দিয়ে মিয়ানমার সীমান্তে সৃষ্টি হচ্ছে যুদ্ধাবস্থা। বাংলাদেশ যদি মিয়ানমার সীমান্তে নীরব থাকে তাহলে সেখানকার বিদ্রোহী গোষ্ঠী আমাদের পার্বত্যাঞ্চলে ঢুকে পড়বে। বিদ্রোহীরা বিজয়ী হলে আমাদের পার্বত্যাঞ্চলে তাদের কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠিত হবে। আর পরাজিত হলে তারা মিয়ানমার থেকে পালিয়ে এসে পুরো পার্বত্য এলাকা অশান্ত করে তুলবে। এমনিতেই গত সাত-আট বছর ধরে মিয়ানমারের প্রায় ১০ হাজার অস্ত্রধারী গেরিলা বান্দরবানের সীমান্তবর্তী অঞ্চলের গহিন অরণ্যে নিজেদের ক্যাম্প তৈরি করেছে এবং স্থানীয় উপজাতীয়দেরকে নিজেদের বেতনভুক সদস্য বানিয়ে নানান অপতৎপরতা চালাচ্ছে। এদের সাথে যদি অনাগত দিনে রোহিঙ্গা সশস্ত্রগোষ্ঠী যোগ দেয় এবং আরাকান আর্মি যারা কিনা রাখাইনের বিরাট অংশের ওপর ইতোমধ্যেই আধিপত্য প্রতিষ্ঠা করে কেন্দ্রীয় সেনাবাহিনীকে তাড়িয়ে দিয়েছে, তারা যদি পেছন থেকে কলকাঠি নাড়ে তবে পুরো পরিস্থিতি বাংলাদেশের নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাবে।

মিয়ানমারের রাখাইন ও চিন প্রদেশে জান্তাবাহিনীর পরাজয় এবং বিদ্রোহীদের বিজয় ইতোমধ্যেই ভারত সীমান্তে মারাত্মক বিপর্যয় সৃষ্টি করেছে। ভারতের পক্ষ থেকে সামরিক অভিযান পরিচালনা ও সীমান্ত সিলগালা করার বিকল্প নেই। অন্যদিকে, বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্তে যদি ভারত তাদের সীমান্তের মতো একই রণকৌশল প্রয়োগ করতে না পারে তবে চীন-রাখাইনের সমস্যা ভারতের সর্বনাশ ঘটাবে। এই সঙ্কটাপন্ন পরিস্থিতিতে চীন দুই হাতে খেলছে। তারা মিয়ানমারের জান্তাসরকারকে যেভাবে সহযোগিতা করছে, ঠিক একইভাবে বিদ্রোহী গোষ্ঠীকেও সহযোগিতা করছে। মিয়ানমারের অভ্যন্তরীণ পরিস্থিতি যাই হোক না কেন, তা শেষ পর্যন্ত চীনের পক্ষে যাবে। অন্যদিকে, ভারত বাংলাদেশ যদি বিপদে পড়ে তাও চীনের জন্য স্বস্তির কারণ।

উল্লিখিত অবস্থায় বাংলাদেশ মিয়ানমার সীমান্তে যখন যুদ্ধের দামামা বাজছে, মিয়ানমারের শত শত সশস্ত্র সীমান্তরক্ষী যখন প্রাণভয়ে বাংলাদেশ সীমান্তরক্ষী বাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করছে তখন আমরা ধৈর্য ধরে আঙ্গুল চোষার নীতি অবলম্বন করে বসে আছি। যখন চীন ভারতের বিরুদ্ধে মিয়ানমার রোহিঙ্গা ও বাংলাদেশকে ব্যবহার করে চলছে তখন আমরা একবার চীনের সহযোগিতা আশা করছি এবং একটু পর ভারত কী মনে করবে, তা ভেবে পিছিয়ে যাচ্ছি। দেশের সামরিক বিশেষজ্ঞরা যখন সীমান্তে সর্বোচ্চ শক্তি প্রদর্শন ও পাল্টা আঘাতের পরামর্শ দিচ্ছেন, আমরা তখন বিএনপি-জামায়াতের জামিন এবং ড. ইউনূসের সাজা নিয়ে ব্যস্ত রয়েছি।

আঞ্চলিক রাজনীতির নজিরবিহীন সঙ্কটকালে অজিত দোভালের বাংলাদেশ ভ্রমণ যেকোনো বিবেচনায় আমাদের জন্য অতি গুরুত্বপূর্ণ। গত ১০ বছরে জনাব দোভালের কর্মকাণ্ড বিশ্লেষণ করলে বোঝা যায়, ভারত যেখানে সামরিক অভিযান চালায় কেবল সেখানেই দোভালের আগমন ঘটে। তিনি ইতঃপূর্বে ভারতীয় বিমানবাহিনীর বোমারু ইউনিট, প্যারাট্রুপার ইউনিট, সেনাবাহিনীর কমান্ডো ইউনিট অথবা ব্ল্যাক ক্যাট ইউনিট পরিচালনা করে যেসব অভিযান চালিয়েছেন তা মাথায় রেখে যদি একটু চিন্তাভাবনা করা যায় তবে অনাগত দিনে ভারত মিয়ানমার সীমান্ত ও বাংলাদেশ মিয়ানমার সীমান্তে কী ঘটতে যাচ্ছে তা বুঝতে খুব বেশি কষ্ট করতে হবে না।

আমরা আজকের আলোচনার একদম শেষ পর্যায়ে চলে এসেছি। ১৯৭১ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে বাংলাদেশ নিয়ে ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী যে বিপত্তিতে পড়েছিলেন তা সমাধানের জন্য তিনি কারো সাথে পরামর্শ করেননি। কোনো কূটনৈতিক তৎপরতা চালাননি। তিনি বিদ্যুৎ গতিতে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন এবং ঝড়ের গতিতে একের পর এক সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করেছিলেন। ভারতীয় সেনাবাহিনীকে মাঠে নামিয়ে তারপর বিশ্বস্ত বন্ধু রাশিয়ার সাহায্য প্রার্থনা করেছিলেন। ইন্দিরা গান্ধী যদি সেদিন আমেরিকা-চীন-ইউরোপের মুখের দিকে তাকিয়ে থাকতেন তাহলে পাকিস্তানের নেতৃত্বে পূর্ববঙ্গ, পশ্চিমবঙ্গ, আসাম, মিজোরাম, ত্রিপুরা প্রভৃতি রাজ্য একটি আলাদা ফেডারেশন তৈরি করে পুরো ভারতকে খণ্ড-বিখণ্ড করে ফেলত। পরবর্তীকালে একটি অংশে পাকিস্তানের আধিপত্য থাকত এবং অপর অংশে রাজত্ব করত চীন। ১৯৭০ থেকে ১৯৮০ সালের মধ্যে যে ঘটনা ঘটত তা ইন্দিরা গান্ধীর প্রত্যুৎপন্নমতিত্বে মাত্র ৯ মাসের মধ্যে সম্পূর্ণ উল্টোভাবে ঘটে সারা দুনিয়াকে তাক লাগিয়ে দেয়। সুতরাং ইন্দিরা গান্ধীর মতো অজিত দোভালও এগিয়ে এসেছেন ২০২৪ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে। মাঝখানে পেরিয়ে গেছে ৫৩ বছর। এই দীর্ঘ সময়ে ভারত মহাকাশে চন্দ্রযান পাঠিয়েছে। আর আমরা আঙ্গুল চোষার জন্য ভারত চীনের পূর্বানুমতির জন্য বসে আছি।

লেখক : সাবেক সংসদ সদস্য

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।