কমলা চাষে পঞ্চগড়ের শেফালির সাফল্য

প্রকাশিত:শনিবার, ০৯ অক্টো ২০২১ ১০:১০

কমলা চাষে পঞ্চগড়ের শেফালির সাফল্য
গত সপ্তাহে গিয়েছিলাম দেশের সর্ব উত্তরের জেলা পঞ্চগড়ে। পঞ্চগড়ে গেলে চেষ্টা করি শেফালি বেগমের কমলা বাগান ঘুরে আসার। কৃষিক্ষেত্রে হাড়িভাসা ইউনিয়নের শেফালি বেগমের সফলতার কথা কম বেশি অনেকেই জানেন। এমন প্রত্যন্ত গ্রামের এক শিক্ষিত নারী কৃষি কাজকে বেছে নিয়ে দেশের অর্থনীতিতে অবদান রাখছেন দেখে সত্যিই অবাক লাগে।

গত দশ বছরে শেফালি গড়ে তুলেছেন বিশাল এক কমলার বাগান। আগেও তার সফলতার বিষয়ে লিখেছিলাম। এবারও তিনি নানান বিষয় নিয়ে কথা বলেন। তার কাছে জানতে চেয়েছিলাম শিক্ষিত হয়েও আপনি কৃষি কাজকে বেছে নিলেন এই বিষয়ে কিছু বলুন। তিনি বলেন, আমি যখন দেখলাম গ্রামের মহিলারা বিনা কারণে সময় নষ্ট করছে, এভাবে সময় নষ্ট করাটা আমার মোটেও পছন্দ ছিল না।

তাই আমি ভাবলাম অযথা সময় নষ্ট না করে কিছু একটা শুরু করি। অনেক ভেবে ঠিক করলাম কমলা চাষ করবো, যেহেতু আমার পুরোনো একটি কমলা গাছে বেশ ভালো কমলা ধরছে এবং খেতেও মিষ্টি সুস্বাদু। তাহলে বাগান আকারে করলে মনে হয় সফলতা আসবে। এই ভেবে পঞ্চগড় জেলার কমলা উন্নয়ন প্রকল্পের সাথে যোগাযোগ করি। তারা আমাকে কমলা চাষের উপর প্রশিক্ষণ দেয়। অন্যদিকে চারা ও বিভিন্ন উপকরণ দিয়ে সহযোগিতা করে এবং উৎসাহ দেয়।

Shefali-Orenge

এখন আমার খুবই ভালো লাগে কমলা গাছের যত্ন করতে। আমি সংসারের কাজ-কর্ম এবং সন্তানদের পড়া-লেখা দেখিয়ে বাকি সময়টা কমলা বাগানে কাজ করি। এতে আমার সময়ও ভালো কাটছে আর মনটাও প্রফুল্ল থাকছে। আমার দেখা-দেখি এখন অনেক মহিলারাই অযথা সময় নষ্ট না করে বাড়ির আঙ্গিনাতেই কিছু না কিছু একটা করছে। গত বছর মহামারি করোনার কারণে যেহেতু স্কুল-কলেজ বন্ধ ছিল তাই আমার দুই ছেলে এই দিনগুলোতে অনেক সাহায্য করেছে।

আজ থেকে ১১ বছর পূর্বে আমরা প্রথমে ০.২৫ হেক্টর জমিতে কমলার চাষ শুরু করি। বর্তমান জমির পরিমাণ আরো বৃদ্ধি করেছি। চারা রোপণের মাত্র এক বছরের মাথায় কমলা চারাগুলো অনেক বৃদ্ধি পায় এবং দ্বিতীয় বছর থেকেই বেশ কয়েকটি গাছে বড় বড় কমলা ধরতে শুরু করে। আর এখন তো বাগানের অধিকাংশ গাছেই ফল ধরছে।

গত বছর যে টাকা আয় করেছিলাম এবছর এর দ্বিগুণ আয় হবে বলে আমরা আশা করছি। তাপমাত্রা বেশি থাকার কারণে অনেক ফল ঝরে যাচ্ছে তারপরও আমরা আশা করছি এবছর প্রকৃতিক কোন সমস্যা না হলে অনেক ভালো আয় করতে পারব। বর্তমানে এই কমলা বাগানের আয় থেকে আমাদের সংসার খুব ভালোভাবেই চলছে।

তিনি বলেন, নভেম্বর মাস থেকে কমলা পাকতে শুরু করবে। আমাদের কমলা বাজারে নিতে হয় না, বাগান থেকেই পাইকারি দরে বিক্রি হয়ে যায়। এ বছর আমরা কয়েক হাজার কমলার চারা তৈরি করেছি। কেউ কমলার বাগান করতে চাইলে আমাদের কাছ থেকে চারা সংগ্রহ করতে পারেন।

Shefali-Orenge

শেফালি বেগমের একটি দুঃখ আছে বলে তিনি জানিয়েছেন। আলাপকালে তিনি বলেন, নারী দিবসে নারীদের নিয়ে অনেক আলোচনা হয় ঠিকই কিন্তু কৃষি ক্ষেত্রে নারীদের অপরিসীম অবদান থাকা সত্ত্বেও এ ক্ষেত্রে আমরা অবহেলিত। কৃষাণি হিসেবে এখনো তেমনভাবে আমাদের স্বীকৃতি মেলেনি। অথচ কৃষিতে নারীর অংশগ্রহণের ফলে একদিকে যেমন দেশের খাদ্য নিরাপত্তা বাড়ছে অন্যদিকে মাথাপিছু আয়ও বৃদ্ধি পাচ্ছে। আমাদেরকে যদি সরকারিভাবে সহযোগিতা করা হয় তাহলেই কেবল সামনের দিনে নারীরা কৃষিতে নতুন সবুজ বিপ্লব ঘটাতে আগ্রহী হয়ে উঠবেন।

এছাড়া তিনি অনেক আন্তরিক এবং আপ্যায়নপ্রিয়। এখনও যেহেতু কমলা পাকা শুরু হয়নি তাই কাঁচা কমলা দিয়েই শরবত বানিয়ে খাইয়েছেন।

এ অঞ্চলের জলবায়ু ও মাটি কমলা চাষের উপযোগী হওয়ায় কমলা চাষকে বাস্ততায় রূপ দিয়েছে এ জেলার মানুষ। বর্তমানে পঞ্চগড়ে কমলা এবং মাল্টা চাষের ফলে পাল্টে যাচ্ছে এ জেলার আর্থ সামাজিক উন্নয়নের ধারা। পঞ্চগড়ের চা চাষের সমৃদ্ধি যেমন আমাদের অর্থনীতিতে অনূকুল প্রভাব ফেলেছে তেমনি এই প্রভাবের সাথে যুক্ত হয়েছে আরেকটি মাত্রা তা হলো রসালো ফল কমলা চাষ।

পঞ্চগড় জেলায় কমলা চাষের বাস্তবতাকে কাজে লাগিয়ে কমলা আমদানি হ্রাস ও এর আমদানি বৃদ্ধি, পুষ্টি চাহিদা মেটানো ও কৃষকের আয় বৃদ্ধির জন্য উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এজন্য ২০০৬-২০০৭ অর্থ বছরে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অধীনে কমলা উন্নয়ন প্রকল্প হাতে নেয়।

Shefali-Orenge

এ প্রকল্পের অধীনে জেলার চারটি উপজেলায় গ্রামভিত্তিক কমলা গ্রাম হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে বসত বাড়ির আঙ্গিনায় ও এর আশ পাশে ব্যক্তি পর্যায়ে কমলা চাষের জন্য প্রায় ৫ হাজার পরিবারের মধ্যে ৮৮ হাজার কমলা চারা বিতরণ করা হয়। এর মধ্যে ১৯৫টি দুই বিঘা বাগান গড়ে তোলা হয়, প্রতিটি বাগানে ১৫৬টি করে চারা রোপণ করা হয়।

কমলা গাছ পাঁচ বছরেই ফল ধারণ করে। আট বছর বয়সী একটি কমলা গাছে প্রতি বছর গড়ে প্রায় ৫০০টি কমলা ধারণ করে। এ পর্যন্ত এ জেলায় ১৪১ হেক্টর জমিতে বাগান আকারে কমলা চাষ করা হয়েছে যা আগামি দুই বছরে পূর্ণ উৎপাদন শুরু করবে বলে আশা করা যাচ্ছে।

আশা করা যায় আগামি ১০ বছরের ভেতরে পঞ্চগড় জেলা কমলা উৎপাদনে দেশের শীর্ষ স্থান দখল করবে এবং সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা অব্যাহত থাকলে পঞ্চগড়ের কমলার চাষ দেশের অর্থনীতিতে ব্যাপক ভূমিকা রাখবে এবং দেশের কমলার চাহিদা পূরণেও অনেক অবদান রাখবে।

এই সংবাদটি 1,232 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •