করোনা, মাহে রমজান ও আমাদের কর্তব্য

প্রকাশিত:সোমবার, ১৯ এপ্রি ২০২১ ০২:০৪

করোনা, মাহে রমজান ও আমাদের কর্তব্য

মাহফুজ আদনান : 

জীবের জন্য মহামারী পৃথিবীতে নতুন কিছু নয়। কখনো মানুষের হেদায়েতের জন্য কখনো সৃষ্টির ভারসাম্য রক্ষার জন্য মহামহিম আল্লাহ্ রাব্বুল আলামীন মহামারী দিয়ে জীবকে আত্মশুদ্ধির সুযোগ দেন।  কিন্তু বিশ্ব জুড়ে মানব সম্প্রদায় তা ধীরে ধীরে ভুলে যায়। প্লেগ, যক্ষা কলেরা ইত্যাদি তার প্রমান। কিন্তু তবু মানুষ এই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টিতে উদাসীন। সব কিছু মানুষ ভুলে যাবার ফলে আবার মহামারী এসে তাদের গ্রাস করে।
আল্লাহর নির্দেশিত পথে না চলে আমরা নিজেদের খেয়াল খুশি মতো চলেছি, অশ্লীলতায় নিজেদের চারপাশ ভরে তুলেছি, নৈতিকতাবোধকে বিসর্জন দিয়েছি, হিংসা বিদ্ধেষকে প্রতিষ্ঠিত করেছি। অপরদিকে মাটি পাহাড় গাছ কেটে প্রাকৃতিক ভারসাম্যকে ধ্বংস করেছি। এইসব বিভিন্ন কারনে কাল ও সময়ের প্রেক্ষাপটে মহামারীর প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়। ২০২০ -২১ সাল জুড়ে চলছে করোনাকাল, কোভিড-১৯ এর কালো থাবা। গোটা পৃথিবি জুড়ে প্রভাব বিস্তার করে নিয়ে গেছে কোটি প্রাণ, হয়তো যাবে আরো কতো কোটি প্রাণ।
মহানবী (সঃ) মাহামারীকালে যার যার ঘরে অবস্থান করতে বলেছেন। বিজ্ঞানীরাও তাই বলেছেন। কিন্তু কে শোনে কার কথা। এই কারনে বেড়ে চলেছে সংক্রমনের তীব্রতা। মসজিদগুলোতে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয় যাতে সংক্রমন না হয়।
গেল বছর করোনা সময়ে সালাতুত তারাবি ঘরে থেকেই আদায় করতে হয়েছিল নিউইযর্কসহ যুক্তরাষট্র বাসীদের । সেইসাথে যুক্তরাজ্য ইউরোপ মধ্যপ্রাচ্যসহ গোটা বিশ্ব মুসলিম উম্মাহ রমজানের তারাবি নামায সহ অন্যান্য নামায ঘরে থেকেই আদায় করেন । তবে এবার এর ব্যতিক্রম । মসজিদে সালাত আদায় করার সুযোগ হয়েছে । এবার তাই খতম তারাবি ও তারাবির নামায অনেকের কাছেই একটু বেশি আকাংখার । রমজানের তারাবি ও অন্যান্য ইবাদতে সবার মধ্যে খুব উৎসাহ উদদীপনা বিরাজ করছে । তবে সোসাল ডিসটেনস মেনটেন করতে হবে । তা না হলে আমরা আাবার ঘর বনদি জীবনে যেতে হবে । সংক্রমণ বৃদধি পাবে ।
নিউইয়রর্ক সিটির প্রায় সবকটি মসজিদে নামায আদায় হয়েছে ১২ এপ্রিল ২০২১ । যথারীতি সেহরি খেয়ে প্রথম রোজা রাখেন ।  সালাত আদায়ের সুযোগ করে দেয়ার জন্য সিটি মেযর বিল ডি ব্লাজিও স্যার সহ প্রশাসনের সকলকে অশেষ কৃতজ্ঞতা । আল্লাহর কাছে শুকরিয়া তিনি যে আমাদের এমন একটি বরকতময় মাস উপহার দিয়েছেন । মহান আল্লাহ আমাদের সকলকে রোজা রাখার তৌফিক দান করুন । আর পবিত্র রমজানে যেন আমরা হিংসা গীবত পরনিনদা পরচরচা মুক্ত থেকে সঠিকভাবে আমল করতে পারি । আমাদের মনে রাখতে হবে সঠিকভাবে ঈমানী দায়িত্ব পালন করে চলতে পারলে নিশ্চই আমরা কামিয়াব হবো। বিভিন্ন  পাপাচার থেকে সরে এসে নিজের আমলনামাকে সাথে নিয়ে এগিয়ে যাবার প্রকৃত সময় কিন্তু এই পুরো রমজান মাস। পবিত্র কোরান নাজিলের মাস। তাই এই মাসে আমাদের উচিত বেশি বেশি কোরআন তেলাওয়াত করা । সাথে তাহাজজুদের আমল করা । সাথে বেশি বেশি জিকিরে মশগুল থাকা । এই মাসের বরকতে আল্লাহ আমাদের মাফ করুন, মহামারীর করাল গ্রাস থেকে আমাদের মুক্তি দিন, আমিন সুম্মা আমিন। সবাইকে পবিত্র মাহে রমজানের শুভেচছা ।
লেখক : মাহফুজ আদনান, 
চীফ নিউজ এডিটর ও সিইও, বাংলানিউজইউএসডটকম । 

এই সংবাদটি 1,288 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •