করোনাভাইরাস ত্বকের ওপর ৯ ঘণ্টা পর্যন্ত বাঁচতে পারে: গবেষণা

প্রকাশিত:শুক্রবার, ০৯ অক্টো ২০২০ ০৪:১০

করোনাভাইরাস ত্বকের ওপর ৯ ঘণ্টা পর্যন্ত বাঁচতে পারে: গবেষণা

মানুষের ত্বকে করোনাভাইরাস ৯ ঘণ্টা পর্যন্ত সক্রিয়ভাবে বেঁচে থাকতে পারে বলে দাবি করেছেন জাপানের গবেষকরা।

 

বিশেষজ্ঞরা বলেন, ইনফ্লুয়েঞ্জা এ (আইএভি) ভাইরাসের একটি ‘স্ট্র্যান্ড’ মানুষের ত্বকে দুই ঘণ্টা পর্যন্ত সক্রিয়ভাবে বেঁচে থাকতে পারে।

জাপানি বিজ্ঞানীদের নতুন গবেষণায় দেখা গেছে, করোনাভাইরাস ত্বকের নমুনায় বেঁচে থাকতে পারে ৯ ঘণ্টা পর্যন্ত। তবে এ দুটি ভাইরাস হ্যান্ড স্যানিটাইজারের সংস্পর্শে এলে দ্রুত মারা যায়।

ক্লিনিক্যাল ইনফেকশাস ডিজিজ’ শীর্ষক সাময়িকীতে ৩ অক্টোবর এই গবেষণাটি প্রকাশিত হয়।
গবেষকরা জানান, ইনফ্লুয়েঞ্জা এ (আইএভি)’ ভাইরাসের তুলনায় করোনাভাইরাস স্পর্শের মাধ্যমে দ্রুত ছড়ায়। এর একটি বড় কারণ হচ্ছে– মানুষের ত্বকে এই ভাইরাস অপেক্ষকৃত বেশি সময় টিকে থাকতে পারে।
এর আগে করোনাভাইরাস বিভিন্ন সমতলে কতক্ষণ বেঁচে থাকতে পারে তা নিয়ে বিস্তর গবেষণা করেন যুক্তরাষ্ট্রের গবেষকরা।

ওই গবেষণায় দেখা যায়, কর্পূর সমতলে চার ঘণ্টা, কার্ডবোর্ডে ২৪ ঘণ্টা, প্লাস্টিক ও ‘স্টেইরলেস স্টিল’য়ে ৭২ ঘণ্টা পর্যন্ত করোনাভাইরাস সক্রিয়ভাবে বেঁচে থাকতে সক্ষম।
মানুষের ত্বকে এই ভাইরাস কতক্ষণ টিকে থাকতে পারে তা জানতে জাপানের ‘কয়োতো প্রিফেকচারাল ইউনিভার্সিটি অফ মেডিসিন’য়ের গবেষকরা মৃতদেহ থেকে সংগ্রহ করেন মানব ত্বকের নমুনা। মৃত্যুর একদিন পর এই নমুনাগুলো সংগ্রহ করা হয়।

গবেষকরা বলেন, মৃত্যু ২৪ ঘণ্টা পরও মৃতদেহের ত্বক থেকে ‘স্কিন গ্রাফ্ট’ নেয়া যায়।
ওই নমুনাগুলোকে করোনাভাইরাসের সংস্পর্শে এনে গবেষকরা দেখেন সেখানে ৯.০৪ ঘণ্টা পর্যন্ত ভাইরাস বেঁচে থাকতে পারে। আর ‘আইএভি’ ভাইরাস বাঁচতে পারে ১.৮২ ঘণ্টা।

এই অবস্থায় ভাইরাসগুলো ‘মিউকাস’য়ের সংস্পর্শে আনতে করোনাভাইরাসের স্থায়িত্বকাল বেড়ে ১১ ঘণ্টা পর্যন্ত পৌঁছায়। ‘মিউকাস’য়ের সংস্পর্শে আনার কারণ ছিল জীবিত মানুষের হাঁচি-কাশির প্রভাব বিশ্লেষণ করা।

তবে ৮০ শতাংশ অ্যালকোহল সমৃদ্ধ দ্রবণের সংস্পর্শে আসার ১৫ সেকেন্ডের মধ্যেই উভয় ভাইরাস নিষ্ক্রিয় হয়।

 

এই সংবাদটি 1,228 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •