• ২১ জানুয়ারি, ২০২২ , ৭ মাঘ, ১৪২৮ , ১৭ জমাদিউস সানি, ১৪৪৩

খেলা দেখতে প্রথমবার মাঠে সৌদি নারীরা

557083749198420
প্রকাশিত জানুয়ারি ১৩, ২০১৮
খেলা দেখতে প্রথমবার মাঠে সৌদি নারীরা

সৌদি আরবের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো মাঠে বসে ফুটবল খেলা দেখলেন নারী দর্শকরা।

 

শুক্রবার স্থানীয় সময় রাত ৮টায় রাজধানী রিয়াদের কিং ফাহদ স্টেডিয়ামে নারীরা ঘরোয়া লিগের একটি খেলা উপভোগ করেন বলে আরব নিউজের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

 

ফুটবল দল আল-আহলি ও আল-বাতিনের মধ্যকার খেলাটি ছাড়াও এ মাসেই সৌদি নারীরা আরও দুটি খেলা মাঠে বসে দেখার সুযোগ পাবেন।

 

শনিবার জেদ্দার কিং আব্দুল্লাহ স্পোর্টস সিটিতে আল-হিলাল ও আল-ইতিহাদ এবং ১৮ জানুয়ারি পূর্বাঞ্চলীয় নগর দাম্মামের প্রিন্স মোহাম্মদ বিন ফাহদ স্টেডিয়ামে আল-ইত্তেফাক ও আল-ফয়সালি ম্যাচে নারী দর্শকদের গ্যালারিতে স্বাগত জানানো হবে।

 

গত বছর সৌদি প্রশাসন নারীদের ওপর থেকে বিভিন্ন ধরণের নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার পর এ মাসেই প্রথমবারের মতো নারীদের মাঠে বসে খেলা দেথা।

 

নারী দর্শকদের বসার জন্য তিনটি স্টেডিয়ামের গ্যালারি, ক্যাফে ও রেস্তোরাঁতে বিশেষ ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

 

আরব নিউজ জানায়, শুক্রবার কিং ফাহদ স্টেডিয়ামের গ্যালারিতে ছিল ‘ফ্যামিলি সেকশন’; যেথানে পরিবারের অন্য সদস্যদের সঙ্গে নারীরা একত্রে বসে খেলা উপভোগ করেন।  গ্যালারির ওই অংশের সঙ্গেই ছিল নারীদের আলাদা প্রার্থনা ও বিশ্রাম কক্ষ, স্মোকিং জোন।

 

প্রথমবারের মতো মাঠে বসে খেলা দেখতে আসা নারীদের স্বাগত জানাতে ছিল নানান আয়োজনও।

 

রাতে খেলা হলেও বিকাল থেকেই নারীদের পদচারণায় মুখরিত ছিল কিং ফাহদ স্টেডিয়াম; কয়েক মাস আগেও যা ছিল অসম্ভব।

 

“এই আয়োজন প্রমাণ করে আমরা সমৃদ্ধ ভবিষ্যতের দিকেই এগুচ্ছি; বিরাট এ পরিবর্তনের সাক্ষী হতে পেরে আমি গর্বিত,” বলেন ৩২ বছর বয়সী লামেইয়া খালেদ নাসের। ফুটবলপাগল এ নারী ইতিহাসের অংশ হতে জেদ্দা থেকে কিং ফাহদ স্টেডিয়ামে ছুটে এসেছেন।

 

শুক্রবারকে সৌদি আরবের জন্য ‘ঐতিহাসিক দিন’ হিসেবে অভিহিত করেছেন রুয়ায়দা আলি কাসেম।

 

“সৌদি আরবের চলমান মৌলিক পরিবর্তনের জন্য এটি একটি ঐতিহাসিক দিন। এ পরিবর্তনে আমি গর্বিত ও খুবই খুশি,” বলেন তিনি।

 

জেদ্দার নোওরা বাখারজি বলেন, এর আগে ভাই স্টেডিয়াম থেকে ফুটবল খেলা দেখে বাসায় ফিরলে তার মন খারাপ হত।

 

“আমার ভাই যেত স্টেডিয়ামে আর আমি বাসায় টিভিদে খেলা দেখলাম। নিজেকে প্রশ্ন করতাম, কেন আমি যেতে পারছি না? আজ ওই অবস্থার পরিবর্তন হয়েছে। এটা আনন্দ ও উচ্ছ্বাসের দিন।”

 

খেলা শুরুর আগে সৌদি আরবের বিভিন্ন ক্লাবও স্টেডিয়ামে নারী দর্শকদের উপস্থিতি চেয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পোস্ট দেয়।

 

অনেক ক্লাব নারীদের জন্য ক্লাবের রঙে বিশেষ ‘আবায়া’ দেয়ারও প্রস্তাব দেয়; মাথা থেকে পা পর্যন্ত ঐতিহ্যবাহী যে ঢিলেঢালা পোশাক সৌদি নারীদের বাইরে বের হলে পরতেই হয়।

 

রাষ্ট্রীয় বিমানসংস্থা সৌদি এয়ারলাইন্স এক শহর থেকে অন্য শহরে গিয়ে খেলা দেখতে চাওয়া পাঁচ পরিবারের সব সদস্যকে পুরস্কার হিসেবে বিনামূল্যে টিকেট দেওয়ার কথা ঘোষণা করে।

 

গত বছর রক্ষণশীলতার খোলস বদলে সৌদি আরবের সমাজ ব্যবস্থার আধুনিকীকরণে ‘ভিশন ২০৩০’ প্রকল্প ঘোষণা করেন নতুন ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান।

 

এর অংশ হিসেবেই সৌদি সরকার নারীদের ওপর থেকে বেশ কিছু নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে। যার মধ্যে আছে সৌদি নারীদের গাড়ি চালানোর অনুমতি দেওয়া, এ বছর জুন থেকে যা কার্যকর হওয়ার কথা।

 

 

এই সংবাদটি 1,240 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •