গোপালগঞ্জ বেকার যুবক ও যুব মহিলাদের কর্ম-সংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করছে জেলা প্রশাসন

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার, ২৩ জুলা ২০২০ ০৮:০৭

গোপালগঞ্জ বেকার যুবক ও যুব মহিলাদের কর্ম-সংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করছে জেলা প্রশাসন

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি:
গোপালগঞ্জে সিভি ব্যাংকের মাধ্যমে চাকুরী প্রত্যাশী বেকার যুবক ও যুব মহিলাদের সিভি জমা নিয়ে তাদের চাকুরী পাইয়ে দিয়ে কর্ম-সংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করে দিয়েছে জেলা প্রশাসন। জেলা প্রশাসক শাহিদা সুলতানা এই উদ্যোগ গ্রহনের পর জেলা প্রশাসনের সিভি ব্যাংকে ১০ হাজার সিভি জমা পড়ে। তার মধ্য থেকে ৪ হাজার সিভি বাছাই করে ১ হাজার সিভি ডাটাবেজ করে চাকুরী প্রদানকারী বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে প্রেরন করে। অতপর বাংলাদেশ শিল্প কারিগরি সহায়তা কেন্দ্র (বিটাক) গোপালগঞ্জের ১১ জনের চাকুরীর নিশ্চয়তা প্রদান করেছে।
চাকুরী প্রত্যাশী জেরিন খানম ও তুলি খানম ইতিমধ্যে চাকুরীতে যোগদান করেছে এবং আগামী দু’এক দিনের মধ্যে বোরহান খন্দকার, সমির মধু, বিজয় জয়ধর, নিখিল বসু, রঞ্জন কুমার সরকার, রাছেল মিয়া, তানভীর আহম্মেদ, রিপন মৃধা ও হামিদুর রহমান “বিটাক”এর মাধ্যমে চাকুরীতে যোগদান করবে। এছাড়াও আরো ১৪ জনকে প্রশিক্ষন দিয়ে তাদেরও নিয়োগ দেওয়া হবে। মুজিববর্ষ পালন উপলক্ষ্যে “আপন আলোয় আলো জ্বালো” শিরোনামে গৃহীত বিশেষ প্রোগ্রাম সিভি ব্যাংক উদ্বোধন ও অনলাইন জব ফেয়ার করছে জেলা প্রশাসন।
এ উপলক্ষ্যে এ টু আই ও বিটাক এর সহায়তায় চাকুরী প্রত্যাশী বেকার যুবক ও যুব মহিলাদের সিভি জমা নিয়ে তাদের চাকুরী পাইয়ে দিয়ে কর্ম-সংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি উপলক্ষ্যে আজ শুক্রবার সকালে জুম ক্লাউড (ভার্চুয়াল) মিটিং অনুষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশ শিল্প কারিগরি সহায়তা কেন্দ্র (বিটাক) এর মহা পরিচালক ড.মোঃ মফিজুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ভার্চুয়াল মিটিংয়ে প্রধান অতিথি ছিলেন ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান।
ভার্চৃুয়াল মিটিংয়ে অন্যান্যের মধ্যে এ টু আইয়ের প্রজেক্ট ডিরেক্টর ড. মোঃ আব্দুল মানান, গোপালগঞ্জের জেলা প্রশাসক শাহিদা সুলতানা, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক কাজী শহিদুল ইসলাম, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ ইলিয়াছুর রহমান, এনডিসি মিন্টু বিশ্বাস, নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ফারজানা ববি মিতুসহ চাকুরী প্রাপ্ত যুবক ও যুব মহিলা এবং গনমাধ্যম কর্মীগন উপস্থিত ছিলেন।
ভার্চুয়াল মিটিংয়ে উপস্থিত চাকুরী প্রাপ্তরা তাদের অনুভুতি ব্যক্ত করতে গিয়ে বলেন, আমরা ডিসি অফিসে শুধুমাত্র একটি সিভি জমা দিয়েছিলাম। আমাদের কোথাও যেতে হয়নি, হয়রানির শিকার হতে হয়নি, কাউকে টাকা দিতে হয়নি। জেলা প্রশাসনের উদ্দ্যোগে চাকুরী পেয়েছি, এজন্য আমরা গোপালগঞ্জ জেলা প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানাই।
জেলা প্রশাসক শাহিদা সুলতানা বলেছেন, আমরা ডিসি অফিসে একটি সিভি ব্যাংক স্থাপন করে ১০ হাজার সিভি জমা নেই। তার মধ্য থেকে ৪ হাজার সিভি বাছাই করে ১ হাজার সিভি ডাটাবেজ করে চাকুরী প্রদানকারী বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে প্রেরন করি। অতপর বাংলাদেশ শিল্প কারিগরি সহায়তা কেন্দ্র (বিটাক) ১১ জনের চাকুরীর নিশ্চয়তা প্রদান করেছে। চাকুরী প্রত্যাশী জেরিন খানম ও তুলি খানম ইতিমধ্যে চাকুরীতে যোগদান করেছে এবং আগামী দু’এক দিনের মধ্যে আরো ৯ জন চাকুরীতে যোগদান করবে। এছাড়াও আরো ১৪ জনকে প্রশিক্ষন দিয়ে তাদেরও নিয়োগ দেওয়া হবে। আমাদের এই কার্যক্রম পর্যায়ক্রমে চলমান থাকবে। মুজিববর্ষ পালন উপলক্ষ্যে “আপন আলোয় আলো জ্বালো”শিরোনামে গৃহীত বিশেষ প্রোগ্রাম সিভি ব্যাংক উদ্বোধন ও অনলাইন জব ফেয়ার আমাদের একটি বড় চ্যালেঞ্জ ছিল। আশাকরছি আমরা এই প্রোগ্রাম সফল করতে পারবো।

এই সংবাদটি 1,226 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •