জুরাছড়ি উপজেলায় দুই দিনব্যাপী উন্নয়ন মেলা উদ্ধোধন

প্রকাশিত:শনিবার, ২৭ মার্চ ২০২১ ০৭:০৩

জুরাছড়ি উপজেলায় দুই দিনব্যাপী উন্নয়ন মেলা উদ্ধোধন

স্মৃতিবিন্দু চাকমা
অস্বীকার করার কোন সুযোগ নেই,পার্বত্য শান্তি চুক্তির ফলে পার্বত্য চট্টগ্রামের প্রেক্ষা পথ দিন দিন পরিবর্তন হচ্ছে। পার্বত্য এলাকায় ভ্রাতৃত্ব সংঘাতের কারণে অনেক সময় উন্নয়নের ক্ষেত্রে কিছু সমস্যা সৃষ্টি হয়। তিনি আশা প্রকাশ করেন কোন একটি সময়ে ভ্রাতৃত্ব সংঘাত নিরসন হবে। দুই দিনব্যাপী উন্নয়ন মেলায় উপজেলা চেয়ারম্যান সুরেশ কুমার চাকমা এসব কথা বলেন। তিনি বলেন,জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানের ‘স্বপ্নের সোনার বাংলা’ গড়ার প্রত্যয়ে ২০৪১ সালকে বিশেষ বিবেচনায় নিয়েছে সরকার। ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে সরকার গ্রহণ করেছে। তাই সরকারে দীঘর্ মেয়াদী পরিকল্পনা হচ্ছে ২০৪১ রুপকল্প।
উন্নয়ন মেলার উদ্ধোধন করেন জুরাছড়ি জোন প্রতিনিধি মেজর মোঃ নাজমুল হাসান। উদ্ধোধক ও প্রধান অতিথি মেজর নাজমুল হাসান বলেন, বাংলাদেশ সেনাবাহিনী শান্তি,সম্প্রীতি উন্নয়নের লক্ষ্যে সর্বদা কাজ করে যাচ্ছে। জাতির জাতির পিতা স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা বলিষ্ঠ নেতৃত্বে উন্নয়নশীল দেশের মত এখন ঘরে বসে সব কিছু সুবিধা পাচ্ছে দেশের জনগণ। এজন্য এলাকায় শান্তি শৃঙ্খলা বজায় থাকলে দ্রুত গতিতে পার্বত্য এলাকা উন্নয়ন ঘটবে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জীতেন্দ্র কুমার নাথ সভাপতিত্বে ,উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান রিটন চাকমা বলেন, বিগত দুই দশকে জিডিপি হার ৬ শতাংশ হিসেবে উপড়ে নিয়মিত আছে। এবং মাথাপিছু আয় বর্তমানে প্রায় ১৮শ ডলার হিবে উল্লেখ করেন।স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে আমাদের দেশে অভূতপূর্ব উন্নয় হয়েছে ,উদাহরণ স্বরুপ হিসেবে তিনি উল্লেখ করেন ১৯৯০-৯১ সালে মাতৃ ও শিশু মৃত্যু হার ছিল হাজারে ৫৭৪ জন যা ২০১৩ সালে হয়েছে ১৭০ যা শতকরা ৫৭ শতাংশ থেকে নেমে ১৭ শতাংশ হয়েছে। প্রত্যন্ত অঞ্চলে মাতৃস্বাস্থ্য ও প্রাথমিক স্বাস্থ্য সেবা পৌঁছানের লক্ষ্যে সরকার ইউনিয়ন পর্যায়ে ১২২১৭ টি ক্লিনিক স্থাপন করেছে।
বর্তমান প্রাথমিক শিক্ষার ক্ষেত্রে প্রকৃত ভর্তিরহ ার ৯৭.৭ শতাংশ যা ১৯৯১ সালে ৪৩ শতাংশ ছিল বলে উপস্থাপন করেন।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার জীতেন্দ্র কুমার নাথ বলেন,অর্থনীতি উন্নতি হলে সমৃদ্ধ দেশহওয়া যায়না। জনসাধরণের সহনশীলতা রাষ্ট্রের স্থিতিশীলতা এবং সুশাসন সুনিশ্চিত হলে উন্নত রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করা যায়। এসব সম্ভব হয়েছে বলেই স্বাধীনতার সূবর্ণ জয়ন্তীতে পৃথিবীর বিভিন্ন রাষ্ট্রের সরকার প্রধান গণ আমাদের মাননীয় প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ম্যাজিক লিডার হিসেবে আখ্যায়িত করে শুভেচ্ছা বার্তা পাঠিয়েছেন। উল্লেখ্য যে পাকিস্তানের প্রধান মন্ত্রী ইমরান খাঁন ও শুভেচ্ছা বার্তা পাঠিয়েছেন। সল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণের এই মহেন্দ্রক্ষণে সকল রাজনৈতিক নেতা সকল কর্মকর্তা কর্মচারী ও সাধরণ জনগণের সকলের অবদান রয়েছে বলে উল্লেখ করেন।
ইউআরসি মোরশেদুল আলম উপস্থাপনায় বক্তব্য রাখেন সদর ইউপি চেয়ারম্যান ক্যানন চাকমা,অফিসার ইনচার্জ মোঃ শফিউল আজম,প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা কৌশিক চাকমা। উন্নয়ন মেলায় ৩৭ টি সরকারি বেসরকারি দপ্তর অংশগ্রহণ করেন।

এই সংবাদটি 1,227 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •