টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে পাঁচ ফেভারিট

প্রকাশিত:শনিবার, ০৯ অক্টো ২০২১ ০১:১০

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে পাঁচ ফেভারিট

স্পোর্টস ডেস্কঃ  দিন যত গড়াচ্ছে, টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ততই এগিয়ে আসছে। ১৭ অক্টোবর বাছাই পর্বের মাধ্যমে শুরু হবে বিশ্বকাপ। দিনের হিসাবে আর মাত্র ১১ দিন বাকি। বিশ্বকাপ শুরু হতে আরো বেশ কয়েক দিন বাকি থাকলেও এখনই হিসাব-নিকাশ চলছে কে জিতবে এবারের বিশ্বকাপ । টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সর্বশেষ আসর হয়েছিল ২০১৬ সালে। বছরের হিসাবে দীর্ঘ প্রায় পাঁচ বছর পর হতে যাচ্ছে চার-ছক্কার লড়াই। তাই তো এবারের বিশ্বকাপ নিয়ে উন্মাদনাটা একটু বেশি।

এবারের আসরটি হতে যাচ্ছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সপ্তম আসর। এর আগে ছয়টি আসরের মধ্যে ২০০৭ সালে ভারত, ২০০৯ সালে পাকিস্তান, ২০১০ সালে ইংল্যান্ড, ২০১২ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজ, ২০১৪ সালে শ্রীলঙ্কা ও সর্বশেষ ২০১৬ সালে দ্বিতীয়বারের মতো শিরোপা জয় করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

এখন প্রশ্ন উঠছে কোন দেশ এবার বিশ্বকাপ জিতবে? আগেই শিরোপা জয় করা কোনো দেশই কি নেবে বিশ্বকাপ? নাকি সপ্তম বিশ্বকাপের শিরোপা যাবে নতুন কোনো দেশের কাছে। এ আলোচনাই চলছে এখন সর্বত্র। বাংলাদেশের সমর্থকরা এবার স্বপ্ন দেখছে লাল-সবুজের প্রতিনিধিরা শিরোপা জয় করবেন। এবার যাদের নিয়ে বাংলাদেশ স্কোয়াড সাজিয়েছে, তাদের নিয়ে আশা করাই যায়।

তবে নির্দিষ্ট কয়েকটি দেশ শিরোপার জন্য ফেভারিট। সে দেশগুলো হলো- ভারত, পাকিস্তান, ইংল্যান্ড, নিউজিল্যান্ড ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ। প্রতিটি দেশই শিরোপা জয়ের মতো দল গড়েছে। কিন্তু এ পাঁচটি দেশ অন্যদের চেয়ে এগিয়ে আছে।

ভারত আইসিসির নির্দিষ্ট ওভারের সর্বশেষ দুটি ইভেন্টের সেমিফাইনালে খেলেছে। তারা নিজ ঘরের মাঠে ২০১৬ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ^কাপের সেমিফাইনালে খেলে। এরপর ২০১৯ সালে ইংল্যান্ডের মাটিতে হওয়া ওয়ানডে বিশ্বকাপের সেমিতে খেলে। তাছাড়া সর্বশেষ আইসিসির টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে খেলেছে। ফলে এবারের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে তারা অনেকটাই এগিয়ে আছে। ভারত তাদের টি-টোয়েন্টি বিশ^কাপের স্কোয়াড সাজিয়েছে তরুণ ও অভিজ্ঞদের মিশেলে। যারা তরুণ আছে, তারা আবার আইপিএলে খেলে থাকেন। ভারতের প্রত্যেকটি ব্যাটসম্যান টি-টোয়েন্টি স্পেশালিস্ট। আরব আমিরাত পাকিস্তানের হোম গ্রাউন্ড হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। তাই অনেকে বাবর আজমদের অন্যতম ফেভারিট হিসেবে দেখছে।

এরপর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের শিরোপা জয়ের সম্ভাবনা আছে বর্তমানে ৫০ ওভারের খেলার চ্যাম্পিয়ন ইংল্যান্ডের। ২০১৯ সালে শক্তিশালী এক দল নিয়ে পৃথিবীর ইতিহাসে সবচেয়ে রোমাঞ্চকর বিশ্বকাপ ফাইনাল জেতে ইংল্যান্ড। তারা ফাইনালে নিউজিল্যান্ডকে হারায়। বিশ্বকাপ জয়ের পর ইংল্যান্ড আরও শক্তিশালী হয়েছে। অন্য দেশগুলোকে নিয়মিত হারিয়েছে তারা।

এরপর আছে নিউজিল্যান্ড। কিউইরা ২০১৯ সালের বিশ্ব কাপের ফাইনালে খেলার পর এ বছর ভারতকে হারিয়ে জয় করেছে আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের শিরোপা। নিউজিল্যান্ড এখন যে কোনো দেশের জন্য হুমকি। অন্য দেশগুলোকে হেসেখেলে হারায় তারা। আর যেহেতু তারা এ বছরই টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের শিরোপা জয় করেছে, ফলে এবার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের শিরোপাও জিতে নিতে পারে কিউইরা। তিন-চার বছর ধরে ধারাবাহিকভাবে ভালো ক্রিকেট খেলছে নিউজিল্যান্ড।

বিশ্বকাপ জয়ের অন্যতম হট ফেভারিট হলো ওয়েস্ট ইন্ডিজ। বছরব্যাপী ওয়েস্ট ইন্ডিজ খুব ভালো না খেললেও বিশ্বকাপে এলে তারা হয়ে ওঠে অপ্রতিরোধ্য। ওয়েস্ট ইন্ডিজই বিশ্বে এখন পর্যন্ত একমাত্র দল হিসেবে দুবার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের শিরোপা জয় করেছে। প্রথমবার যখন ২০১২ সালে তারা শিরোপা জয় করে, তখনো ফেভারিট ছিল না ক্যারিবীয়রা। কিন্তু ফাইনালে তৎকালীন সময়ে শক্তিশালী ও স্বাগতিক শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে প্রথম শিরোপার স্বাদ পায় তারা।

এরপর ২০১৬ সাল যখন তারা শিরোপা জিতল, তখনই ওয়েস্ট ইন্ডিজকে শিরোপার দাবিদার ধরেনি কেউ। এমনকি বিশ্বকাপের আগেও দ্বিপক্ষীয় সিরিজগুলোয় তারা হেরেছে একের পর এক ম্যাচে। কিন্তু বিশ্বকাপে বদলে যায় তারা এবং শেষ পর্যন্ত রোমাঞ্চকর ফাইনালে ইংল্যান্ডকে হারিয়ে শিরোপা জিতে নেয়। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ওয়ানডে বিশ্বকাপে তারা তেমন ভালো না করতে পারলেও টি-টোয়েন্টিতে তাদের ধারেকাছেও কেউ নেই। ওয়েস্ট ইন্ডিজের ক্রিকেটারদের প্রতিভার সঙ্গে আছে পেশিতে আছে প্রচণ্ড জোর। এ দুই মিলিয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে হয়ে যায় অপ্রতিরোধ্য। এবারও তাদেরকে সমীহ করতে হবে অন্য দেশগুলোকে।

এই সংবাদটি 1,227 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •