ডিমলায় নির্মান করা হচ্ছে মাটির পরিবর্তে বালুর বাঁধ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার, ২৭ এপ্রি ২০২১ ০১:০৪

ডিমলায় নির্মান করা হচ্ছে মাটির পরিবর্তে বালুর বাঁধ

 

মাজহারুল ইসলাম লিটন,ডিমলা(নীলফামারী)ঃ
এবারে বর্ষা মৌসুমে নীলফামারীর ডিমলার খালিশা চাপানী ইউনিয়নের ছোটখাতা এলাকাকে বন্যামুক্ত রাখতে ৮ লাখ টাকা ব্যয়ে ৭ শ ৫০ মিটার দৈর্ঘ ও ৪ মিটার প্রস্ত টি বাঁধটি সংস্কার কাজে চুক্তিবদ্ধ হয়ে রংপুরের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠাণ হাসিবুল হাসান। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের পক্ষে কাজটি বাস্তবায়ন করছেন সাব ঠিকাদার হিসেবে ডালিয়া পাউবোর ঠিকাদার আশিক ইমতিয়াজ মনি। তিনি স্থানীয় ঠিকাদার হওয়ায় প্রভাব খাটিয়ে পাউবো কতৃপক্ষকে ম্যানেজ করে নিজ খেয়াল খুশি মত মাটির পরিবর্তে বালু দিয়ে বাঁধ সংস্কার করার অভিযোগ উঠেছে। চলতি বর্ষা মৌসুমে বৃষ্টির পানি চুইয়ে কিংবা বন্যার পানির তোড়ে বালুর বাঁধটি তিস্তা নদী গর্ভে বিলীন হওয়ার আশঙ্খা করছে এলাকাবাসী।

রবিবার (২৫ এপ্রিল) সরেজমিনে গিয়ে কথা হয় চর ছোটখাতা গ্রামের বাঁধ ঘেষা স্থানীয় অনেকের সাথে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে তারা অভিযোগ করে বলেন, মাত্র ১০ফুট দুরহতে তিস্তা নদী থেকে বালু তুলে তৈরী করা হচ্ছে টিহেড বাঁধটির সংস্কার কাজ। বাধটি মাটি দ্বারা সংস্কার করার নিয়ম থাকলেও পুরো বাঁধে বালু ছাড়া এক মুঠো মাটিও ফেলা হয়নি। বন্যার কবল থেকে এ এলাকাকে বাঁচাতে এবং তিস্তা নদীর মূলবাধ রক্ষা করতে সরকারের দেয়া টাকায় দায়সারাভাবে নির্মাণ করা হচ্ছে ৭শ ৫০ মিটার দীর্ঘ বালুর বাঁধটি।

বাঁধটি চলতি বর্ষা মৌসুমে তিস্তার পানির তোড়ে বিলীন হয়ে বন্যা কবলিত হবে কয়েশ একর ফসলি জমি আর সর্বস্ব হারাবে খালিশা চাপানী ইউনিয়নের ছোটখাতা গ্রামের হাজারো পরিবার। এবং হুমকির মুখে পড়বে তিস্তা ব্যারেজ রক্ষায় নির্মিত মূল বাধটি।

পানি উন্নয়ন বোর্ড ডালিয়া (পওর) বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী রবিউল ইসলামের কাছে ছোটখাতা টিহেড বাঁধটি সংস্কারে অনিয়মের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন,কোন প্রকার অনিয়ম ছাড়াই যথাযথ নিয়ম মেনে বাধটির সংস্কার কাজ করা হচ্ছে।

এই সংবাদটি 1,229 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ