ডিমের দামে লোকসানে নওগাঁর খামারিরা

প্রকাশিত:শুক্রবার, ১৩ অক্টো ২০১৭ ০৩:১০

ডিমের দামে লোকসানে নওগাঁর খামারিরা

চাহিদা ও দামের তুলনায় নওগাঁয় ডিমের উৎপাদন বেশি। এছাড়া মুরগির খাবার এবং ওষুধের দামও বেশি। ফলে পোল্ট্রি খামারিদের লোকসান গুনতে হচ্ছে গত ৬ মাস থেকে। শিল্পটিকে টিকিয়ে রাখতে মুরগির খাবারসহ আনুষঙ্গিক উপকরণের দাম কমাতে হবে নতুবা ডিমসহ মুরগির দাম বাড়তে হবে। এমনই দাবি তুলেছেন জেলার পোল্ট্রি খামারিরা

 

জেলা প্রাণিসম্পদ অফিস সূত্রে জানা যায়, জেলায় প্রায় ১৯০টির মতো পোল্ট্রি খামার রয়েছে। এখানে ডিমের যেখানে চাহিদা ২ হাজার ৬২২ লাখ পিস সেখানে উৎপাদন হয় ৩ হাজার ২৪৯ লাখ পিস। ফলে উদ্বৃত্ত থাকে ৬২৭ লাখ পিস ডিম।

 

বদলগাছী উপজেলার পাহাড়পুর ইউনিয়নে পাঁচঘরিয়া গ্রামে মেসার্স মিম পোল্ট্রি অ্যান্ড হ্যাচারি। খামারে ২১টি শেডে মুরগি আছে ৪০ হাজার। প্রতিটি শেডে ১ হাজার ৮০০ থেকে ২ হাজার মুরগি থাকে। এরমধ্যে ১৬ হাজার হাইব্রিড জাত এবং ২৪ হাজার সোনালি জাতের মুরগি।

 

ডিম দেয়ার উপযোগী মুরগি আছে ২০ হাজারটি। এরমধ্যে প্রতিদিন ৫ হাজার হাইব্রিড এবং ৩ হাজার সোনালি জাতের মুরগি ডিম দিচ্ছে। একটি শেডে প্রতিদিন ৩০০ কেজি খাবার হিসেবে ৩২ টাকা কেজি দরে ৯ হাজার ৬০০ টাকা খরচ হয়। এরসঙ্গে ওষুধ ৩০০ টাকা, শ্রমিক ৪০০ টাকা, আনুষঙ্গিক ১০০ টাকা। ফলে প্রতিদিন প্রায় ১০ হাজার ৪০০ টাকা খরচ হয়। ডিম আসে ১ হাজার ৭৬০ পিস। এসব ডিম বিক্রি হচ্ছে ১০ হাজার ৬০০ টাকায়। গত ৫-৬ মাস যাবৎ চলছে এ অবস্থা।

 

প্রতিটি লাল ডিম উৎপাদন করতে খরচ পড়ে ৬-৭ টাকা। সেখানে ডিম বিক্রি হয় সাড়ে ৫-৬ টাকায়। সোনালি জাতের ১ কেজি ওজনের মুরগি উৎপাদন করতে খরচ হয় ১৮০-১৯০ টাকা। যেখানে বাজারে বিক্রি হচ্ছে ১৪০-১৫০ টাকা।

 

মেসার্স মিম পোল্ট্রি অ্যান্ড হ্যাচারি মালিক ফিরোজ হোসেন বলেন, প্রতিদিন ২০-২৫ হাজার টাকা লোকসান হচ্ছে। এর মূল কারণ ডিমের চাহিদার তুলনায় উৎপাদন বেশি। সরকারিভাবে বিদেশ থেকে মুরগির খাদ্য ও ওষুধ নিয়ে আসা হয়। যার ট্যাক্সের পরিমাণ অনেক বেশি। ফলে লোকসান গুনতে হচ্ছে। এভাবে যদি চলতে থাকে তাহলে পোল্ট্রি শিল্প ধ্বংস হয়ে যাবে।

 

এই সংবাদটি 1,226 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •