পাইকগাছায় স্বেচ্ছাশ্রমে ক্ষতিগ্রস্থ বেড়িবাঁধ সংস্কার

প্রকাশিত:বুধবার, ৩০ জুন ২০২১ ০১:০৬

পাইকগাছায় স্বেচ্ছাশ্রমে ক্ষতিগ্রস্থ বেড়িবাঁধ সংস্কার

মহানন্দ অধিকারী মিন্টু, পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি ॥
খুলনার পাইকগাছায় সোলাদানা ইউনিয়নে ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্থ বেড়িবাঁধ স্বেচ্ছাশ্রমে সংস্কার করা হয়েছে। উপজেলার হরিখালী শিবসা নদীর তীরে অবস্থিত ওয়াপদার বাঁধ প্রবল জোয়ারের পানির চাপে মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্থ হয়। ক্ষতিগ্রস্থ বাঁধ দিয়ে পানি ভিতরে প্রবেশ করে বিস্তীর্ণ এলাকার চিংড়ি ঘের ক্ষতিগ্রস্থ হয়। ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা মেরামতের জন্য খুলনা-৬ সংসদ সদস্য আক্তারুজ্জামান বাবু ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এবিএম খালিদ হোসেন সিদ্দিকী নির্দেশনায় শনিবার সকালে মেরামতের কাজ শুরু হয়। বর্তমান চেয়ারম্যান এসএম এনামুল হক ও জেলা পরিষদ সদস্য (সাবেক) আওয়ামীলীগনেতা আব্দুল মান্নান গাজী পৃথকভাবে বিপুল সংখ্যক লোক নিয়ে বাঁধের কাজ শুরু করে। স্থানীয় সংসদ সদস্যের নির্দেশনায় পার্শ্ববর্তী ইউনিয়ন লস্কর ইউপি চেয়ারম্যান কেএম আরিফুজ্জামান তুহিন বাঁধের কাজে অংশগ্রহণ করেন। উৎসবমুখর পরিবেশে দুপুরের জোয়ার আসার আগেই বাঁধের কাজ সম্পন্ন করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান আনোয়ার ইকবাল মন্টু, উপজেলা নির্বাহী অফিসার এবিএম খালিদ হোসেন সিদ্দিকী ও উপ-প্রোকৌশলী পানি উন্নয়ন বোর্ড পাইকগাছা শাখার মো. ফরিদ উদ্দীন। এদিকে ক্ষতিগ্রস্থ বেড়িবাঁধ মেরামতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন আনসার ও ভিডিপি সদস্যরা। আনসার কর্মকর্তা ও সদস্যদের এমন সামাজিক ও মানবিক কাজ প্রশংসিত হয়েছে সর্বমহলে। উল্লেখ্য ঘূর্র্ণিঝড় ইয়াস এর প্রভাবে ২৫ থেকে ২৭ মে পর্যন্ত ৩ দিন উপজেলার বিভিন্নস্থানে ওয়াপদার বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে ও উপচে উপজেলার ১০টি ইউনিয়ন এবং ১টি পৌরসভায় বিভিন্ন এলাকা প্লাবিত হয়। ক্ষতিগ্রস্থ এসব বেড়িবাঁধ মেরামতে জনসাধারণের পাশাপাশি এগিয়ে আসেন আনসার কর্মকর্তা ও সদস্যরা। উপজেলায় মোট ১৩ হাজার ৫শ জন আনসার সদস্য রয়েছে। এদের মধ্যে ২৯৭ আনসার সদস্যের সমন্বয়ে ১১টি টিম গঠন করে ১১টি ইউনিটে কাজ করে। প্রতিটি টিমের সদস্য সংখ্যা ২৭ জন। আনসার সদস্যদের এসব টিমে নেতৃত্ব দেয় উপজেলা আনসার ও ভিডিপি প্রশিক্ষক মো. আলতাফ হোসেন। আনসার ও ভিডিপির এ প্রশিক্ষক শুধু নেতৃত্ব দেয়নি আনসার সদস্যদের সাথে কাঁদাপানিতে নেমে নিজেই কাজ করেন। তিনি বলেন, আমরা আনসার সদস্য হলেও সকলেই এই দেশের নাগরিক। দেশের দুঃসময়ে মানুষের পাশে থাকা এটা আমাদের নৈতিক দায়িত্ব এবং কর্তব্য। অত্র এলাকার মানুষের বসবাসের জন্য ক্ষতিগ্রস্থ বেড়িবাঁধ মেরামত কাজে অংশগ্রহণ করতে পেরে আমরা গর্বিত মনে করছি।

এই সংবাদটি 1,231 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •