বাংলাদেশে রাত পোহালেই ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা মহারণ

প্রকাশিত:শনিবার, ১০ জুলা ২০২১ ০১:০৭

বাংলাদেশে রাত পোহালেই ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা মহারণ

বিশেষ প্রতিবেদকঃ 

বাংলাদেশে রাত পোহালেই ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা মহারণ। ফুটবল ভক্ত থেকে শুরু করে বোদ্ধাদের মাঝে চলছে কথার লড়াই। কোথাও কোথাও সেটি রূপ নিয়েছে মারামারিতেও। পছন্দের দলই শিরোপা জিতবে বলে দাবি করছে সবাই। তবে সবকিছুরই সমাপ্তি হতে যাচ্ছে রবিবারের সেই ফাইনালের মধ্য দিয়ে।

কোপা আমেরিকার এবারের আসর অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল আর্জেন্টিনা এবং কলম্বিয়ায়। কিন্তু দেশের অভ্যন্তরীণ দাঙ্গার কারণে কলম্বিয়ার নাম সরিয়ে নেয়া হয়। পরে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব বৃদ্ধির কারণে আয়োজনে অপারগতার কথা জানিয়ে দেয় আর্জেন্টিনাও। শেষ পর্যন্ত ব্রাজিলেই অনুষ্ঠিত হচ্ছে লাতিন আমেরিকার শ্রেষ্ঠত্বের লড়াই। কোপা আমেরিকা ফুটবল টুর্নামেন্টের এবারের আসরে ফাইনালে মুখোমুখি হতে যাচ্ছে সময়ের অন্যতম সেরা এই দুদল। ব্রাজিল-আজেন্টিনা মধ্যকার এই মহারণ অনুষ্ঠিত হবে আগামীকাল(রবিবার) বাংলাদেশ সময় সকাল ৬টায়।

ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনা সর্বশেষ কোনো ফাইনালে খেলেছে ১৪ বছর আগে। ২০০৭ সালের কোপার সেই ফাইনালটি হয়েছিল ভেনিজুয়েলার মারাকাইবোতে।

 

 

এদিকে কোপা আমেরিকার অতীত সমীকরণে নেইমারদের ব্রাজিলের চেয়ে এগিয়ে রয়েছে মেসির আর্জেন্টনা। দক্ষিণ আমেরিকার সর্বোচ্চ এ প্রতিযোগিতায় এখনো পর্যন্ত ১৪ বার শিরোপা জিতেছে আর্জেন্টিনা, ৯ বার কোপায় চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ব্রাজিল।

গোল করার দিক থেকেও ব্রাজিলের চেয়ে এগিয়ে আর্জেন্টিনা। মেসির দেশ কোপায় ব্রাজিলের বিপক্ষে এখনো পর্যন্ত ৫২টি গোল করেছে; অন্যদিকে আর্জেন্টিনার বিপক্ষে ব্রাজিল করেছে ৪০টি গোল।

তবে সব প্রতিযোগিতায় দুই দলের সাক্ষাতে এগিয়ে ব্রাজিল। এখনো পর্যন্ত দুই দেশ পরস্পরের মুখোমুখি হয়েছে ১০৭ ম্যাচে। তার মধ্যে ৩৯টিতে জিতেছে আর্জেন্টিনা আর ব্রাজিল জিতেছে ৪৩টি ম্যাচে। ড্র হয়েছে ২৫টি ম্যাচ। আর্জেন্টিনা গোল করেছে ১৬১টি আর ব্রাজিল করেছে ১৬৬টি।

 

 

এসব পরিসংখ্যানকে মাথায় নিয়েই রোববার সকালে মারাকানায় শিষ্যদের মাঠে নামাবেন কোচ তিতে। আর্জেন্টিনাকে রুখে দিতে কেমন হবে তার একাদশ? এখনই জানতে আগ্রহী ব্রাজিলভক্তরা।

যদিও এ বিষয়ে এখনও মুখ খুলেননি তিতে, তবে কয়েকজনকে মাঠে দেখা যাবে নিশ্চিত। বাকিটা সম্ভাবনা। সেমিফাইনালে গোলমুখের প্রহরী এডারসনকেই রাখবেন তিতে। ফাইনালে তার হাতেই দেখা যাবে গ্লাভস। অধিনায়কত্ব করবেন থিয়াগো সিলভা। নিষেধাজ্ঞার কারণে এ ম্যাচে নেই ফরোয়ার্ড গ্যাব্রিয়েল জেসুস।

গ্রুপপর্বের ম্যাচে চিলির  লেফটব্যাক ইউজেনিও মেনার মুখে উড়ন্ত লাথি মেরে লালকার্ড দেখেনে ম্যানসিটির এই ফরোয়ার্ড। পরে জানানো হয় ২ ম্যাচ খেলতে পারবেন না তিনি। সে হিসেবে সেমির মতো ফাইনালেও তাকে দর্শক হয়ে থাকতে হচ্ছে। জেসুসের অনুপস্থিতিতে একাদশে জায়গা হতে পারে গ্যাব্রিয়েল বারবোসার।

ইনজুরির কারণে খেলতে পারবেন না ফেলিপ্পে। বেশ কয়েকদিন ধরেই ইনজুরিতে ভুগছেন তিনি। মার্কিউনোস, থিয়াগোর সাথে রক্ষণ সামলাবেন রেনাল লোদি। জুভেন্টাসের রাইট ব্যাক দানিলো বেশ চাঙা আছেন। তাকেও মাঠে নামাবেন তিতে।

মাঝ মাঠে ক্যাসেমিরো ও ফ্রেড খেলছেন নিশ্চিত বলা যায়। আক্রমণে লুকাস পাকুয়েতা কেন চান নেইমার। গত দুই ম্যাচে দুর্দান্ত খেলেছে এই জুটি। গোলও পেয়েছে তারা।

এছাড়া আক্রমণভাগে ফিরমিনো, রিচার্লিসনকে দেখা যেতে পারে।  আর নেইমার তো তিতের প্রথম পছন্দই।

ফাইনালে ব্রাজিলের সম্ভাব্য শুরুর একাদশ: এডারসন মোরায়েস (গোলরক্ষক) দানিলো, রেনাল লোদি, মার্কুইনহোস, থিয়াগো সিলভা, ক্যাসেমিরো, ফ্রেড, লুকাস পাকুয়েতা, নেইমার, রিচার্লিসন ও এভারটন রিভেইরো।

 

 

অপরদিকে সেমিফাইনালে কলম্বিয়ার বিপক্ষের ম্যাচ ছাড়া বাকি সব ম্যাচে একাদশ আগেই জানিয়ে দিয়েছেন আর্জেন্টিনা দলের কোচ লিওনেল স্কালোনি। এ নিয়ে কোনো লুকাছাপা করেননি। কলম্বিয়ার বিপক্ষে দলের অন্যতম তারকা রোমেরোর অন্তর্ভূক্তির জন্য শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত অপেক্ষা করেছেন তিনি। যে কারণে একাদশ ঘোষণায় দেরি হয় স্কালোনির। যদিও চোট আক্রান্ত রোমেরে ফিট হতে সেই ম্যাচে ফিরতে পারেননি।

রোববার বাংলাদেশ সময় সকাল ৬টায় ঐতিহ্যবাহী মারাকানা স্টেডিয়ামে চির প্রতিদ্বন্দ্বী ব্রাজিলের বিপক্ষে ফাইনালে নামবে আর্জেন্টিনা।

ফাইনাল উপলক্ষেও সবরকম পরিকল্পনা, ছক এঁটে ফেলেছেন স্কালোনি। ৪-৩-২- ১ ফরম্যাশনে খেলার সম্ভাবনা বেশি মেসিদের। এখন পর্যন্ত  কোন ১১ জনকে নিয়ে নামবেন মাঠে তা ঘোষণা করেননি তিনি।

তবে একাদশে কয়েকজনের নাম চূড়ান্ত এমনিতেই। যেমন গোলরক্ষক হিসেবে এমিলিয়ানো মার্টিনেজ থাকছেন তা নিশ্চিতভাবেই। তাকে না নিলে স্কালোনিকে অবিবেচক বা বোকার খাতায় ফেলবে সমর্থকরা। টাইব্রেকারে কলম্বিয়াকে অবিশ্বাস্যভাবে রুখে দিয়ে দলকে ফাইনালে যে তিনিই এনেছেন।

 

 

এদিকে রক্ষণভাগে নিকোলাস ওতামেন্দির উপস্থিতিও নিশ্চিত। মাঝ মাঠে গুইদো রদ্রিগেজ ও রদ্রিগো ডি পল নিশ্চিত। আক্রমণভাগে লিওনেল মেসির সঙ্গে লাউতারো মার্টিনেজের থাকাও নিশ্চিত। মোটামুটি ১১ জনের মধ্যে ৬ জন চূড়ান্ত।

যাদের থাকা নিয়ে সংশয় তারা হলেন ডিফেন্ডার ক্রিশ্চিয়ানো রোমেরো। ইনজুরির কারণে গত ম্যাচে অনুপস্থিত থাকা রোমেরো ফাইনালে খেলবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। আর না পারলে তার জায়গা জার্মান পেজ্জেল্লা নিশ্চিত। অথবা রোমেরোকে প্রথম অর্ধে খেলিয়ে দ্বিতীয়ার্ধে পেজ্জেল্লাকে নামাতে পারেন স্কালোনি। সেমিতে পেজেল্লা ঠিকঠাকভাবেই দায়িত্ব নিভিয়েছিলেন।

রক্ষণের অন্য দুইটি পজিশনে নাহুয়েল মোলিনা ও গনজালো মন্টিয়েল এবং নিকোলাস তালিয়াফিকো ও মার্কস আকুনার মধ্যে লড়াই  হবে । এ চারজনের মধ্যে দুজনকে দেখা যাবে চূড়ান্ত একাদশে।  মোলিনো ও আকুনাকেই দেখা যেতে পারে বলে ধারণা।

মাঝ মাঠে শুধুমাত্র জিওভানি লো সেলসো ও লেয়ান্দ্র পারেদেসকে নিয়ে সংশয়। এ দুজনের যেকোনো একজনকে নামানো হবে মাঠে। তৃতীয় ফরোয়ার্ড হিসেবে অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া নাকি নিকোলাস গনজালেজ- সে বিষয়েই সিদ্ধান্ত নেয়া হবে ম্যাচের ঠিক আগে। তবে ডি মারিয়াকে আগের ম্যাচের মতো বদলি হিসেবে দেখা যেতে পারে। বদলি নেমে দুর্দান্ত খেলেছিলেন তিনি। মাঠে নেমে ১০ মিনিটের মধ্যে প্রতিপক্ষের রক্ষণ নড়বড়ে করে দিয়েছিলেন। যার ফলশ্রুতিতে গোলও পায় আর্জেন্টিনা।

ফাইনালে আর্জেন্টিনার সম্ভাব্য শুরুর একাদশ: এমিলিয়ানো মার্টিনেজ, নাহুয়েল মোলিনা/গনজালো মন্টিয়েল, জার্মান পেজ্জেল্লা/ক্রিশ্চিয়ান রোমেরো, নিকোলাস ওটামেন্ডি, মার্কোস আকুনা/নিকোলাস তালিয়াফিকো, রদ্রিগো ডি পল, গুইদো রদ্রিগেজ, জিওভান্নি লো সেলসো/লেয়ান্দ্র পারেদেস, লিওনেল মেসি, লাউতারো মার্টিনেজ, অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া/নিকোলাস গনজালেজ।

এই সংবাদটি 1,236 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •