ব্রিটেনের নিউক্যাসেলে প্রথম অশ্বেতাঙ্গ লর্ড মেয়র হলেন হাবিবুর রহমান

প্রকাশিত:রবিবার, ৩০ মে ২০২১ ০৫:০৫

ব্রিটেনের নিউক্যাসেলে প্রথম অশ্বেতাঙ্গ লর্ড মেয়র হলেন হাবিবুর রহমান

মুহাম্মদ শাহেদ রাহমান ( লন্ডন ) যুক্তরাজ্য থেকে :

ব্রিটেনের ৮০০ বছরের ইতিহাস ভেঙ্গে নতুন দিনের নব ইতিহাস সৃষ্ঠি করলেন ব্রিটিশ বাংলাদেশি গর্বিত বাঙালি হাবিবুর রহমান ।

ব্রিটেনের নিউক্যাসেল কাউন্সিলে নতুন এক ইতিহাস গড়লেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত হাবিবুর রহমান। ৮০০ বছরের ইতিহাসে নিউক্যাসেলে প্রথম কোনো অশ্বেতাঙ্গ হিসেবে লর্ড মেয়র পদে নিয়োগ দেয়া হয়েছে হাবিবুর রহমানকে।

বুধবার (২৬ মে ২০২১) বার্ষিক জেনারেল মিটিংয়ে তিনি নিউক্যাসল সিটি কাউন্সিলে এ পদে আনুষ্ঠানিকভাবে নির্বাচিত হন ব্রিটিশ বাঙালি হাবিবুর রহমান।

এ দায়িত্ব আনুষ্ঠানিকভাবে গ্রহণ করে অনুভূতি প্রকাশে তিনি তার পিতামাতার প্রতি অসীম শ্রদ্ধা প্রকাশ করেন। এবং সব ধর্ম, বর্ণ, গোত্রের মানুষের জন্য সমান কাজ করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

তিনি রাজনৈতিকভাবে লেবার দলের সমর্থক। দুই বছর নিউক্যাসেল শেরিফ এবং ডেপুটি মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন হাবিবুর রহমান।

মেয়র হিসেবে দায়িত্ব নেয়ার পরই তিনি গভীর আবেগঘন বক্তব্য রেখেছেন।
এ সময়ে তিনি উৎসাহ দেয়ার জন্য তার মায়ের প্রতি শ্রদ্ধা প্রকাশ করেছেন। সরাসরি তার প্রয়াত পিতা আজিজুর রহমানকে নিয়ে বক্তব্য রেখেছেন।
তিনি পুরোনো ইতিবৃত্ত  উল্লেখ করে বলেন -১৯৭৭ সালে তার পিতা আজিজুর উন্নত জীবনের সন্ধানে ওই শহরে যান। তিনি কাজ করতেন ওয়ালসেন্ড রেস্তোরাঁয়। সেখানে একজন শ্বেতাঙ্গ কাস্টমারকে দেয়া কারি’র পরিমাণ পছন্দ না হওয়ার কারণে, ওই কাস্টমার তাকে ছুরিকাঘাত করে। এতে মাত্র ১০দিন পরেই মারা যান আজিজুর রহমান।

আনুষ্ঠানিকভাবে দায়িত্ব নেয়ার সময় হাবিবুর রহমান তার সহকর্মীদের বলেছেন, নিউক্যাসেলে তার শৈশবের দিনগুলো বাধাগ্রস্ত হয়েছিল নিষ্ঠুর বর্ণবাদে।
একজন এশিয়ান মুসলিম হিসেবে এই শহরে তার যে অভিজ্ঞতা তা থেকে তিনি দৃঢ় প্রতিজ্ঞা নেন, বৈষম্যকে একদিন পরাজিত করবেন।

মেয়রের দায়িত্ব গ্রহণ করে হাবিবুর রহমান আরো বলেন- এটা আমার জীবনের সবচেয়ে গর্বের মুহূর্তগুলোর একটি।

এ সময়ে তিনি তার দায়িত্বকে ব্যবহার করে অন্যের প্রতি শ্রদ্ধা, সহনশীলতা এবং সমতাকে সমুন্নত রাখার প্রত্যয় ঘোষণা করেন।

তিনি বলেন একসময় ১৯৭৭ সালে যে বর্ণবাদী শহর দেখেছিলেন, নিউক্যাসেল এখন আর তেমন নেই। এখন এ শহর নিরাপদ। সহিষ্ণু।
এই ধারা গড়ে তুলেছে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান এবং ব্যক্তি। সম্ভবত তার অনেকটা শুরু হয়েছে আমার পিতার মৃত্যুর পর।

এদিকে অনুষ্ঠানে উপস্থিত গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা হাবিবুর রহমানের প্রশংসায় পঞ্চমুখ।
বিবিসিসহ মূলধারার গণমাধ্যমে বেশ গুরুত্ব সহকারে হাবিবুরের এই অর্জনের সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে।

উল্লেখ্য হাবিবুর রহমান মাত্র ১২ বছর বয়সে ১৯৮৫ সালে পিতামাতা ও ৬ ভাইয়ের সঙ্গে বাংলাদেশ ছেড়ে ব্রিটেনের টাইনসাইডে চলে যান।
হাবিবুর রহমানের বয়স এখন ৪৭ বছর। তিনি তিন সন্তানের জনক  ।

বর্ণবাদ বিরোধী গ্রুপ শো রেসিজম দ্য রেড কার্ড (এসআরটিআরসি) এবং ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার আন্দোলনের সঙ্গে জড়িত একজন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি হাবিবুর রহমান।

এই সংবাদটি 1,244 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ