ভাসমান সবজি চাষ জনপ্রিয় করতে বড় উদ্যোগ

প্রকাশিত:রবিবার, ০৮ অক্টো ২০১৭ ০৪:১০

ভাসমান সবজি চাষ জনপ্রিয় করতে বড় উদ্যোগ

ভাসমান সবজি ও মসলা চাষ জনপ্রিয় করতে বড় ধরনের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এজন্য গবেষণার ওপর জোর দেয়া হচ্ছে। বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট ভাসমান পদ্ধতিতে সবজি ও মসলা চাষে সফলতা দেখিয়েছে। ইতোমধ্যে বেশ কয়েকটি উচ্চফলনশীল আধুনিক জাত উদ্ভাবন করেছে সংস্থাটি।

 

উদ্ভাবিত জাত এখন মাঠপর্যায়ে প্রবর্তন করতে চায় কৃষি মন্ত্রণালয়। সেজন্য আলাদা প্রকল্প হাতে নেয়া হচ্ছে। পরিকল্পনা কমিশনে এ সংক্রান্ত একটি প্রকল্পের প্রস্তাবনা পাঠান হয়েছে।

 

পরিকল্পনা কমিশন সূত্রে জানা যায়, জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে বাংলাদেশ বিশ্বের মধ্যে সবচেয়ে ঝুঁকিপ্রবণ দেশে হিসেবে চিহ্নিত হয়েছে। পরিবর্তিত জলবায়ুর কারণে সবচেয়ে বেশি ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে কৃষি খাত। এ অবস্থায় বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট ‘ভাসমান বেডে সবজি ও মসলা চাষে গবেষণা, সম্প্রসারণ ও জনপ্রিয়করণ’ শীর্ষক এক প্রকল্পের উদ্যোগ নেয়, যা বাস্তবায়ন করবে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর।

 

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে পরিকল্পনা কমিশনের কৃষি, পানি সম্পদ ও পল্লী প্রতিষ্ঠান বিভাগের সদস্য এ এন সামসুদ্দিন আজাদ চৌধুরী বলেন, প্রকল্পটি দেশের কৃষি সম্প্রসারণ ও খ্দ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য জরুরি। গুরুত্ব বিবেচনায় আগামী জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) পরবর্তী সভায় প্রকল্পটি অনুমোদনের জন্য সুপারিশ করা হয়েছে।

 

তিনি আরও বলেন, প্রকল্পের মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ৬৩ কোটি ১৭ লাখ টাকা।

 

 

 

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্র জানায়, শাকসবজি ও মসলার উৎপাদন বাড়ানোর জন্য স্থানভিত্তিক ভাসমান বেডে সবজি ও মসলা চাষে গবেষণার উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে। একই সঙ্গে সম্প্রসারণেরও উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে।

 

ভাসমান বেডে সবজি ও মসলা চাষের সম্পূর্ণ অর্থায়ন যৌথভাবে রাংলাদেশ রাইস গবেষণা ইনস্টিটিউশন ও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর থেকে দেয়া হবে। প্রকল্পটি বাস্তবায়নের মেয়াদকাল ধরা হয়েছে ২০২২ সাল পর্যন্ত। ১৩টি জেলার ২৫টি উপজেলায় দুই পর্যায়ে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হবে।

 

প্রথম পর্যায়ে গোপালগঞ্জ, মাদারীপুর, কিশোরগঞ্জ, বরিশাল বিভাগের বরিশাল সদর ও পিরোজপুর, খলনা বিভাগের খুলনা ও বাগেরহাট, চট্টগ্রামের ব্রাহ্মণবাড়িয়া, লক্ষ্মীপুর ও নোয়াখালী এবং সিলেট বিভাগের সিলেট, মৌলভীবাজার ও হবিগঞ্জে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হবে।

 

দ্বিতীয় পর্যায়ে গোপালগঞ্জ, মাদরীপুর, কিশোরগঞ্জ, ময়মনসিংহ, নেত্রকোনা, বরিশাল, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, যশোর, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, চাঁদপুর, লক্ষ্মীপুর, নোয়াখালী, সিলেট, হবিগঞ্জ, নাটোর, রংপুর, গাইবান্ধা ও কুড়িগ্রামে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হবে।

 

বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট সূত্রে জানা গেছে, জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে আমাদের কৃষি খাত। এরই মধ্যে দেশের দক্ষিণাঞ্চলে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব পড়তে শুরু করেছে। ওইসব অঞ্চলের মাটি ও পানিতে লবণাক্ততার অনুপ্রবেশ ঘটেছে। এছাড়া জলমগ্নতা, উপকূলীয় অঞ্চলে বন্যা এবং একের পর এক প্রাকৃতিক দুর্যোগ লেগেই আছে।

 

জলবায়ুর বিরূপ প্রভাবে অনিয়মিত বৃষ্টিপাতের কারণে দীর্ঘ সময়ের জন্য অনেক স্থান জলমগ্ন হয়ে পড়ছে। হাওর এলাকায় আকস্মিক বন্যায় প্রায় সময় বোরো ধানের ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে। এই ক্ষতি পুষিয়ে নিতে স্থানভিত্তিক সৃজনশীল কৃষিপ্রযুক্তি উদ্ভাবন এবং এর সম্প্রসারণ অপরিহার্য হয়ে পড়েছে।

 

ইতোমধ্যে ভাসমান পদ্ধতি ব্যবহার করে অনেক কৃষক ফসল উৎপাদন শুরু করেছেন। এ পদ্ধতিতে তারা সফলতাও দেখিয়েছেন। ভাসমান পদ্ধতিতে সবজি ও মসলা চাষের জন্য স্থানীয় ও কম ফলনশীল জাতের বীজের ব্যবহার হচ্ছে। একই সঙ্গে এ পদ্ধতিতে চারা উৎপাদনও করা হচ্ছে।

 

 

 

গেল বছর গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জলজ উদ্ভিদ কচুরিপানার ধাপে ভাসমান সবজি ও মসলা চাষের মাধ্যমে কৃষকরা জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকি মোকাবেলায় প্রস্তুতি নেন। ওই পদ্ধতিতে বিকল্প আয়ের ব্যবস্থা করে লাভের মুখ দেখেন স্থানীয় কৃষকরা।

 

বর্ষা মৌসুমে টুঙ্গিপাড়া উপজেলার অধিকাংশ জমি পানির নিচে চলে যায়। সেসময় কৃষকের কোনও কাজ থাকে না। টুঙ্গিপাড়ায় জলবায়ু পরিবর্তন ট্রাস্ট্রের আওতায় জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবেলায় ভাসমান সবজি ও মসলা উৎপাদন প্রকল্প গ্রহণ করে সরকার।

টুঙ্গিপাড়া উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, ওই প্রকল্পের আওতায় ২০টি গ্রামে ভাসমান ধাপে মসলা ও সবজির চাষ করা হয়। উপজেলায় অন্তত এক হাজার কৃষক পরিবার ৫০ থেকে ৭০ ফুট দৈর্ঘ্যের প্রায় পাঁচ হাজার ধাপ তৈরি করে ঢেঁড়স, গিমাকলমী, পুঁইশাক, বরবটি, শশা, করলা, বাঙ্গি, হলুদ, লালশাক ও ডাঁটাশাক আবাদ করেন। উপজেলায় প্রায় ৭৫ বিঘা ভাসমান বেড তৈরি করে এসব সবজি চাষ করা হয়। উৎপাদিত হয় প্রায় ২০০ টন।

 

এই সংবাদটি 1,227 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •