মানুষের মন সুন্দর হবে কখন

প্রকাশিত:সোমবার, ৩১ ডিসে ২০১৮ ০৮:১২

মানুষের মন সুন্দর হবে কখন

এডভোকেট শেফা বেগম ফাতেমা ::: জীবনটা যে কি তা মানুষ গভীরভাবে চিন্তা করলে তার হিসেব হয়তো পাওয়া যাবে না। তবে উপলব্ধি করা যায় মর্মে মর্মে আমরা মানুষ সৃষ্টির সেরা। কিন্তু কিছু কিছু মানুষের আচার আচরণ ব্যবহার দেখে মনে হয়, এই পৃথিবীটা কি? কেন? তাদের কি কোন মনুষ্যত্ববোধ নেই। কিছু কিছু মানুষ আছে নিজের প্রভাবটা খাটাতে চায় বেশি। কিছু কিছু মানুষের জন্ম হয় নিজের প্রশংসাটা নিজে গেয়ে বেড়াবার জন্য। এতে কোন সার্থকতা আছে বলে আমার মনে হয় না। আর কিছু মানুষ আছে হিংসুটে স্বভাবের, যা নিজে পারে না, তা অন্যকে করার সুযোগটুকু দেয় না। বিভিন্ন কলা কৌশল, ভাব ভঙ্গিতে আপনাকে হেয়প্রতিপন্ন করার অপচেষ্টা করবে। এটাই তাদের স্বভাব। কেউ কাউকে আঘাত করবে। তাই তাকেও প্রতিঘাত করতে হবে তা কিন্তু নয়। কিছু কিছু মানুষের স্বভাব থাকে মানুষকে আঘাত করার জন্য। আর সেই প্রতিবাদ করার ক্ষমতা হয়তো আপনারও আছে। তাই বলে এই নয় যে অন্যায়কে অন্যায় দিয়ে সমাধান না করা।
এই সমাজে নারীরা সবচেয়ে বড় দুর্বল। আর এই দুর্বলতাকে পরিহার করতে হবে। কিন্তু এ সমাজ সংসার নিন্দা করবে, সমালোচনা করবে, হিংসা করবে, অনেক কথা বলবে। এটাই কিছু লোকের স্বভাব। একজন নারী কখনও দুর্বল নয়। দুর্বল হয় তখনই যখন কিছু নিন্দুক লোক তার পথ আগলে দাঁড়ায়। একজন পুরুষ লোক যদি কাজ করার অধিকার পায়, তবে নারী কেন তার যোগ্যতা অনুযায়ী নিজেকে দাঁড় করাতে পারে না। একজন নারী যদি পরিশ্রমের দ্বারা প্রতিষ্ঠিত হতে চায় তখন তার পেছনে বিভিন্ন ষড়যন্ত্র করা হয়।
নারীর মন বড়ই কোমল। ধৈর্য্য ধরার শক্তি নেই। তারা ভেঙে যায়, কেঁদে বুক ফাটায়, এটাই স্বাভাবিক। তাই আমাদের নারী সমাজকে ধৈর্য্য ধরতে হবে। এগিয়ে যেতে হবে। কারো কথায় মন খারাপ করলে চলবে না। কারো কথার ধার ধারলে হবে না। নিন্দুক নিন্দিবে এটাই তার স্বভাব। হিংসুক হিংসা করবে এটাই তার স্বভাব।
একটা কথা আগে মনেপ্রাণে বিশ্বাস করতাম, নিজে ভালো তো জগৎ ভালো। কিন্তু এ কথাটার তাৎপর্য কতটুকু সত্য তা আমাদের আজ আর বুঝতে বাকি নেই। নিজে যতই ভাল করতে যাবেন, উপকার করতে যাবেন, তাতে আর বেশি শত্রু আপনার পেছনে লাগবে। আপনার ভাল কাজ দেখে, কোথায় নিজেকে পরিবর্তন করবে নিজেকে শুধরে নিবে, তা কিন্তু নয়। বরং পারলে আপনাকে নিয়ে তোষামোদ করবে। হাসবে, কথার ধরণ দিয়ে বিভিন্ন কলা কৌশল দিয়ে আপনাকে উত্যক্ত করতে চাইবে। মনও মাঝে মধ্যে খুব বেশি কেঁদে বুকটাকে খালি করতে ইচ্ছে হয়। চিৎকার করে খোদার কাছে বলতে ইচ্ছে হয়। এ জীবনটা কেন এমন হয়। কেন মানুষ এত পাষন্ড হয়। মানুষের মন কি দিয়ে তৈরি। সৎভাবে বেঁচে থাকার জন্য সংগ্রাম। তাও কি খোদা মানুষের সহ্য হয় না। একজন মেয়ে হয়ে যদি তার আর্থিক অবস্থাকে সৎভাবে পরিশ্রম করে কিছু করতে চায়, তবে তার দোষ কোথায়? আমি মানুষ, বুঝি না। মানুষ কেন এমন হয় খোদা, শুধু বিধাতাকে এবং উদাস ভরা এই প্রকৃতিকে বলতে ইচ্ছে করে।
কেন উদার আর সুন্দর মানুষের মন হয় না। তাই মাঝে মধ্যে ইচ্ছে হয় এই প্রকৃতি তো কতই না সুন্দর, প্রকৃতি তো তার মতো চলছে। মানুষ নামের এই যে যন্ত্রণা থেকে অনেকটা পরিত্রাণ পাওয়া যেত। মানুষ সৃষ্টির সেরা। তাই তাকে অনেক ধৈর্য্য ধরতে হবে, বুঝতে হবে, কষ্টটাকে চাপা দিয়ে রাখতে হবে। এই প্রকৃতিকে প্রাণ দিয়ে ভালবাসতে হবে। জানতে হবে, এই পৃথিবীর মানুষকে। মানুষ কিসে যে দুঃখ পায়। আর কিসে যে আনন্দ পায়। তাও আমাদের বোঝার বোধগম্য হয়তো নেই। কিন্তু একজন সত্যিকারের মানুষ, সে কখনও নিজেকে নিয়ে ভাবে না। ভাবে মানুষের জন্য, কাঁদে এই সমাজের জন্য। নীরবে প্রার্থনা করে খোদার কাছে, হে আল্লাহ তুমি মানুষের মন পরিবর্তন করে দাও। তাকে হেদায়েত কর। তাতেই তাদের আনন্দ। তাতেই খুঁজে পায় সুখ। সেই সুখ আমাদের সবার মনে যেন উদ্বেগ সৃষ্টি করে।

এই সংবাদটি 1,232 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •