রসুনে রোগ মুক্তি

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার, ১০ ডিসে ২০২০ ১০:১২

রসুনে রোগ মুক্তি

নিউজ ডেস্ক, নিউইয়র্ক: শুধু রান্নাঘরেই সীমাবদ্ধ নয় রসুনের ব্যবহার। প্রাচীনকাল থেকেই বিভিন্ন রোগ নিয়ন্ত্রণে এটি বেশ গুরুত্বপূর্ণ। শোনা কথা নয়, এবার গবেষণায়গারেও এর প্রমাণ পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা।

আর্ন্তজাতিক স্বাস্থ্য বিষয়ক সংবাদমাধ্যম ‘হেলথলাইন’এ প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বিজ্ঞানীদের এ গবেষণার তথ্য উঠে আসে। গবেষণায় রসুনের কয়েকটি স্বাস্থ্য উপকারিতার প্রমান মিলেছে। এগুলোর মধ্যে রয়েছে –

শক্তিশালী ঔষধি গুণ

রসুন হলো আলিয়াম (পেঁয়াজ) পরিবারের একটি উদ্ভিদ। সুস্বাদু স্বাদ ও তীব্র গন্ধের কারণে রান্নার একটি জনপ্রিয় উপাদান এটি। রসুনে রয়েছে অ্যালিসিন, যা পরিবর্তনশীল। স্বাস্থ্য উপকারে ভূমিকা রাখে এমন যৌগগুলো রসুনে বিদ্যমান। এগুলো হলো ডায়ালিল ডিসফ্লাইড এবং এস-অ্যালিল সিস্টাইন। রসুনের সালফার যৌগগুলো হজমশক্তি বাড়ানোর সাথে সাথে শরীরে শক্তিশালী জৈবিক প্রভাব ফেলে।

রসুন উচ্চ পুষ্টিকর ও কম ক্যালোরিযুক্ত

এক কোয়া( ৩ গ্রাম) কাঁচা রসুনে রয়েছে- ম্যাঙ্গানিজ: ২% , ভিটামিন বি৬: ২%, ভিটামিন সি: ১%, সেলেনিয়াম: ১%, ফাইবার: ০.০৬ গ্রাম। এছাড়াও রয়েছে ক্যালসিয়াম, তামা, পটাসিয়াম, ফসফরাস, আয়রন ও ভিটামিন বি ১।

সর্দি ও জ্বরের সাথে লড়াই

রসুনে থাকা উপাদানগুলো জ্বর, সর্দি ও ঠান্ডাজনিত যেকোনো অসুস্থতা উপশমে সহায়তা করে। ঘন ঘন সর্দি লাগলে প্রতিদিন রসুন খাওয়ার মাধ্যমে এটির থেকে মুক্তি পেতে পারেন।

১২ সপ্তাহের একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে, প্রতিদিন রসুন খাওয়ার ফলে সর্দি-সংক্রমণের সংখ্যা ৬৩% কমেছে।

অন্য গবেষণায় দেখা গেছে, প্রতিদিন রসুনের নির্যাস (প্রতিদিন ২.৫৫ গ্রাম) নেওয়ার ফলে ঠান্ডা বা জ্বর আক্রান্তের সংখ্যা ৬১% কমেছে।

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে

রসুনের মধ্যে থাকা বায়োঅ্যাকটিভ সালফার রক্তচাপ কমায়। একটি গবেষণায় দেখা গেছে, ৬০০-১৫০০ মিলিগ্রাম রসুনের নির্যাস ৬ মাসের মধ্যে রক্তচাপ কমাতে ওষুধের মতো ভূমিকা রাখে। শরীরের সালফারের ঘাটতি দেখা দিলে তবেই রক্তচাপ বাড়তে শুরু করে।

আয়ু বাড়াবে রসুন

দীর্ঘস্থায়ী রোগের সাধারণ কারণগুলো নিরাময়ে রসুন উপকারী। এটি রক্ত বিষমুক্ত রাখতে, হার্টের স্বাস্থ্যের উন্নয়নে, রোগ-প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে, রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের মতো কঠিন সমস্যাগুলোতে আমাদের সাহায্য করে।

আলঝাইমার ও স্মৃতিভ্রংশ রোগ রোধে

রসুনে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে যা আলঝাইমার ও স্মৃতিভ্রংশ মতো মস্তিষ্কের সাধারণ রোগগুলোর ঝুঁকি কমাতে সহায়তা করে। এটি কোলেস্টেরল এবং রক্তচাপ হ্রাস করার সাথে সাথে মস্তিস্কের সমস্যাগুলোও সমাধানে সাহায্য করে।

হাড়ের স্বাস্থ্যের উন্নয়নে

নিয়মিত রসুন খেলে দেহের অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটারি প্রপাটিজের মাত্রা বাড়তে শুরু করে। এটি নানাধরণের যন্ত্রণা কমায় এবং হাড়ের ক্ষয় রোধ কমায়। এটি অস্টিওআর্থারাইটিস বা হাড়ের বাত রোগ সারাতে সাহায্য করে।

রক্ত পরিষ্কার রাখতে

প্রতিদিন এক গ্লাস গরম পানির সঙ্গে দুটি রসুনের কোয়া খেলে রক্তে থাকা নানা বিষাক্ত উপাদান শরীর থেকে বের হয়ে যায়। রসুনের সালফার যৌগগুলো ভারী ধাতব বিষাক্ততা থেকে শরীরেরকে  রক্ষা করে।

একটি গাড়ীর ব্যাটারি তৈরির কারখানার কর্মচারীদের ওপর করা ৪ সপ্তাহের একটি গবেষণায় দেখা গেছে, রসুন তাদের রক্তে সীসার মাত্রা ১৯% কমিয়েছে। এটি মাথাব্যথা এবং রক্তচাপসহ বিষাক্ততার অনেকগুলি সমস্যা হ্রাস করে।

এই সংবাদটি 1,238 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •