রুটিন জীবন কেন দরকার 

প্রকাশিত:বুধবার, ১৭ নভে ২০২১ ০৭:১১

রুটিন জীবন কেন দরকার 

লাইফ ষ্টাইল ডেস্কঃ 

জীবনে প্রত্যাশিত অনেক কিছুরই প্রাপ্তি ঘটে না। গুছিয়ে রাখা পরিকল্পনাও ভেস্তে যায়। তখন বিষন্নতা ভর করে, অনিশ্চতায় উদ্বেগ বাড়ে, এলোমেলো হয়ে পড়ে জীবন নামের রুটিনের। এত সব সীমাবদ্ধতার মাঝেও সুস্থ ও সুন্দরভাবে বেঁচে থাকার উপায় বের করে নিতে হবে। কিছু রুটিন অভ্যাসকে আপন করে নিন। দেখবেন উদ্বেগ কমছে, জীবনে সন্তুষ্টি  বাড়ছে।

 

প্রতিদিন নিয়ম করে নির্দিষ্ট পরিমাণ পানি পান করতে হবে। শরীর হাইড্রেট না রাখলে কাজ করতে পারবেন না এবং নিজে থেকে শরীর সুস্থ রেখে কোন পরিকল্পনাকে বাস্তবে রূপ দিতে ব্যর্থ হবেন।

যোগ ব্যায়ামে নিজেকে অভ্যস্ত করে নিন। সুস্থ থাকতে রুটিন মেনে মেডিটেশন করতেই হবে। মন শান্ত রাখা বেশ জরুরি, নয়তো মুশকিল। মনে রাখবেন, মন শান্ত তো দুনিয়া শান্ত, সুন্দর।

সব ঋতুতেই ত্বকের ময়েশ্চারাইজার বজায় রাখার চেষ্টা করুন। এটি আপনার আত্মবিশ্বাসের স্বরূপ। ত্বক খুশি তো মনও খুশি।

 

সব মৌসুমেই কোন না কোন রসালো ফল পাওয়া যায়। রসালো ফল খাওয়ার অভ্যাস করুন। এটি কিন্তু আপনাকে আলাদা শান্তি দিতে পারে। তাই মনে করে প্রতিদিন খাবেন রসালো ফল।

নিজেকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে প্রতিদিন গোসল করবেন। অনেকক্ষণ সময় ধরে গোসল করুন। একটা লম্বা শাওয়ার কিন্তু আপনার মানসিক অবসাদের যেমন অবসান ঘটাতে পারে তেমনি পারে নতুন নতুন আইডিয়া দিতে।

বই যাদের নিত্যদিনের সঙ্গী তাদের একাকিত্ব গ্রাস করতে পারে না। মানসম্পন্ন ভালো বই পড়ার অভ্যাস করুন। একটি ভালো বই অনেক রকম তথ্য দিতে পারে, জ্ঞান সরবরাহ করতে পারে। নতুন পথের খোঁজ দিতে পারে।

শরীরচর্চায় অভ্যস্ত হোন। প্রাণায়াম করুন, স্ট্রেচ করুন, জোড়ে শ্বাস নিন-এককথায় নিজেকে সজাগ রাখুন, পরিবেশের সঙ্গে সতেজ রাখুন।

যদি ইচ্ছে থাকে, নিজের একটি নতুন ব্যবসা খুলুন। সেটিকে এগিয়ে নিয়ে যান। চেষ্টা করুন ব্যবসাটিকে দাঁড় করানোর। এবং অবশ্যই নিজের কাজে মন দিন। অন্যদের দিকে এত না দেখলেও চলবে।

মানুষকে সম্মান করতে, ভালোবাসতে শিখুন, নিঃসার্থ ভাবে, কোনোকিছুর বিনিময়ে নয়। হিংসা ভাব দূরে সরিয়ে রাখুন। বিনয়ী হোন, জীবন বদলে যাবে।

 

নতুন কিছু শেখার প্রতিনিয়ত চেষ্টা করবেন। মন খুলে কথা বলুন, কখনো হকচকিয়ে যাবেন না। দেখার মতো করে দেখুন। ভাবতে শিখুন। যত দেখবেন, যত ভাববেন ততই জানবেন।

নতুন কিছু সৃষ্টি করুন, মানুষকে ক্ষমা করতে শিখুন। নিজেকে মনের দিক থেকে শক্ত রাখুন। জীবন এমনিতেই সহজ হবে। সব সময় হাসিখুশি থাকার চেষ্টা করুন।

এই সংবাদটি 1,225 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •