শাপলা বিক্রিতে চলে সংসার : যেমন সুন্দর ফুল, তেমন মজাদার সবজি

প্রকাশিত:শনিবার, ২৮ আগ ২০২১ ০৩:০৮

মেহেদী হাসান, গাজীপুর:
খাল-বিলের অপরুপ সুন্দর শাপলা বাংলাদেশের জাতীয় ফুলও বটে। বর্ষায় শাপলার এই সৌন্দর্য বেড়ে যায় কয়েকগুন। মজাদার সবজি হিসেবেও খুব পুষ্টিসমৃদ্ধ। এখন শুধু গ্রামেই নয়, শহরেও তরকারি হিসেবে শাপলার জনপ্রিয়তা দিনে দিনে বাড়ছে। বাংলাদেশের প্রায় সর্বত্র, খাল, বিল, পুকুর, ডোবায় শাপলা পাওয়া যায়। বিল পাড়ের এলাকার বেকার অনেক যুবক এ শাপলায় সবজির চাহিদা মিটানোর পাশাপাশি কাটাচ্ছেন নিজের সংসারের দৈন দশাও। প্রতি ১০০ গ্রাম শাপলার লতায় রয়েছে খনিজ পদার্থ ১.৩ গ্রাম, আঁশ ১.১ গ্রাম, ক্যালোরি-প্রোটিন ৩.১ গ্রাম, শর্করা ৩১.৭ গ্রাম, ক্যালসিয়াম ৭৬ মিলিগ্রাম। শাপলার ফল দিয়ে তৈরি হয় চমৎকার সুস্বাদু খৈও।
সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, গাজীপুরের চিলাই বিলের হানকাটা ও কানায়া, বেলাই বিল, মসক বিলসহ জেলার কয়েকশ দরিদ্র পরিবারের মানুষ এই শাপলা তোলার কাজে নিয়োজিত। আর তাদের এ কাজে পরম বন্ধুর মতো সহযোগিতা করছে তাল গাছ দিয়ে তৈরি কোন্দা বা কাঠ দিয়ে তৈরি ডিঙ্গি নৌকা। এতে একদিকে নিজেদের সংসারের যাবতীয় চাহিদা মেটাচ্ছেন। অন্যদিকে বিলে জন্ম নিয়ে বিলেই পচে যাওয়া জাতীয় ফুল শাপলাকে সবজি হিসেবে করছেন অতি জনপ্রিয়।
কানায়া গ্রামের রিফাত গাজী জানান, করোনাভাইরাসের কারনে কোন কাজ না থাকায় বর্ষার এই ৬ মাস অন্য কোনো কাজ না করে বিলের শাপলা তুলে সংসার চালাচ্ছেন। এছাড়াও বর্ষা মৌসুম এলে বিলের শাপলা তুলে বিক্রি করেই সংসার চলে। কিছু মানুষ অন্য পেশায় থকলেও বর্ষার এই সময় তারা তাদের পেশা বদল করে শাপলা উঠানোর কাজ করেন। আর তা স্থানীয় বাজার ও রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন বিভাগীয় শহরগুলোতে বিক্রি করে সংসারের প্রতিদিনের অন্ন জোগান দেন।
আন্তর্জাতিক সেবামূলক সংগঠন রোটারি ক্লাব অব গাজীপুর এর সভাপতি বাংলাদেশ ব্যাংকের উপ-মহাব্যবস্থাপক খালেদ মাহবুব মোর্শেদ কাজল জানান, পুষ্টি সমৃদ্ধ শাপলা সবজি হিসেবে দেশের অর্থনীতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। বিলের এই শাপলা বিক্রির বিষয়টি তিনি ইতিবাচক হিসেবে দেখছেন। তবে যে শাপলা বিলে জম্মে বিলেই পচে যেত, সে শাপলা সবজি হিসেবে জনপ্রিয় ও দেশের অর্থনীতিতে ভূমিকা রাখছে এটা ভাবতে অনেক ভালো লাগে। বিলের শাপলা তুলে স্থানীয় প্রায় অর্ধশতাধিক দরিদ্র পরিবারে সচ্ছলতা ফিরেছে। তারাই আবার দেশের অর্থনীতিতে অনেক অফদান রাখছে।
গাজীপুর জেলা জজ কোর্সের আইনজীবি মো. আলমগীর হোসেন বলেন, বিলের শাপলা তুলে বিক্রি করা এই বিল পাড়ের ওই মানুষগুলো ফেলনা শাপলাকে জনপ্রিয় সবজি হিসেবে এগিয়ে নিতে রাখছেন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। তাই দিনরাত কাজ করে যাওয়া মানুষগুলো ভালো থাকুক সব সময় এটাই প্রত্যাশা।
সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো: হাসিবুল হাসান বলেন, শাপলায় রয়েছে প্রচুর ক্যালসিয়াম। যা আলুর চেয়ে সাতগুণ বেশি। প্রাকৃতিকভাবে পাওয়া আর্শিবাদ বিলের শাপলা তুলে বাজারে বিক্রি করে অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হচ্ছে। বিষয়টি ছোটভাবে দেখার সুযোগ নেই।
####
মেহেদী হাসান
গাজীপুর

এই সংবাদটি 1,226 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ