কিশোরগঞ্জে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে ২ কর্মী নিহত, দাবি বিএনপির - BANGLANEWSUS.COM
  • নিউইয়র্ক, বিকাল ৪:৩৪, ২৪শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ


 

কিশোরগঞ্জে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে ২ কর্মী নিহত, দাবি বিএনপির

newsup
প্রকাশিত অক্টোবর ৩১, ২০২৩
কিশোরগঞ্জে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে ২ কর্মী নিহত, দাবি বিএনপির

নিউজ ডেস্ক: তিন দিনের অবরোধের প্রথম দিন কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচর উপজেলায় পুলিশের সঙ্গে বিএনপির নেতা-কর্মীদের সংঘর্ষ হয়েছে। এই ঘটনায় দলের দুই কর্মী নিহত হয়েছে বলে দাবি করেছে বিএনপি। পুলিশ একজনের নিহতের তথ্য নিশ্চিত করলেও তিনি গুলিবিদ্ধ কিনা তা জানায়নি।

বিএনপির কেন্দ্রীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক শরীফুল আলম আজকের পত্রিকাকে জানান, নিহতদের মধ্যে ছয়সুতি ইউনিয়নের কাওসারের ছেলে শেফায়েত উল্লাহ (২০) ছাত্রদলের স্থানীয় নেতা ও বিল্লাল মিয়া (৩০) একই ইউনিয়নের কৃষক দল সভাপতি।

মঙ্গলবার ( ৩১ অক্টোবর ) সকালে উপজেলার ছয়সূতি ইউনিয়নে ছয়সূতি বাজার এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। সংঘর্ষের ঘটনা নিয়ে পুলিশ ও বিএনপি পরস্পরবিরোধী বক্তব্য দিয়েছে।

বিএনপির অভিযোগ, অবরোধের সমর্থনে ‘শান্তিপূর্ণ মিছিলে পুলিশ’ গুলি চালিয়েছে। অন্যদিকে, টহলের সময় ছয়সূতি বাজার এলাকায় ‘হঠাৎ বিএনপি-জামায়েতের কর্মীরা হামলা চালায়’ বলে পুলিশের দাবি।

কিশোরগঞ্জ জেলা বিএনপির সভাপতি শরীফুল আলম বলেন, অবরোধের সমর্থনে ছয়সূতি ইউনিয়নে আঞ্চলিক সড়কের অবস্থান নেন বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা। পুলিশ বাধা দিলেও সড়কে মিছিল করেন তারা। এ সময় পুলিশের সঙ্গে নেতাকর্মীদের সংঘর্ষ বাধে।

বিএনপি ‘পুলিশের গুলিতে’ দুজন নিহত হওয়ার দাবি করলেও সংঘর্ষে একজনের নিহতে তথ্য নিশ্চিত করেছে পুলিশ। বিল্লাল নামে একজনের নিহত হওয়ার তথ্য জানিয়ে কুলিয়ারচর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ গোলাম মোস্তফা আজকের পত্রিকাকে বলেন, ‘বিএনপি জামায়াতের নেতা-কর্মীরা অর্তকিত হামলা চালায়। তাঁরা ককটেল নিক্ষেপও করে। এ ঘটনায় আমি আহত হয়েছি।’

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বিএনপি-জামায়েতের কর্মীরা ইটপাটকেল ও ককটেল নিক্ষেপ করে। পুলিশ তাদের ছত্রভঙ্গ করতে কয়েক রাউন্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে।

কুলিয়ারচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আদনান আক্তার বলেন, ওসিসহ ১৫ থেকে ১৬ জন পুলিশ সদস্য চিকিৎসা নিয়েছেন। হাসপাতালে কোনো মরদেহ আসেনি।

এদিকে মঙ্গলবার ৩১ অক্টোবর সকালে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার চৌদ্দশত ইউনিয়নের ভৈরব-কিশোরগঞ্জ আঞ্চলিক মহাসড়কে টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করেন বিএনপির নেতাকর্মীরা। এ সময় কিশোরগঞ্জ থেকে ঢাকাগামী যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। পরে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে গেলে পুলিশের ওপর হামলা চালায় পিকেটাররা। এ সময় পুলিশকে উদ্দেশ্য করে ককটেলও নিক্ষেপ করে বিএনপি জামায়াতের নেতাকর্মীরা। জানা গেছে, এ ঘটনায় কিশোরগঞ্জ মডেল থানার একটি গাড়িতেও হামলা চালায় পিকেটাররা।

কিশোরগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ দাউদ বলেন, বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। পুলিশের একটি গাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। আমাদের কয়েকজন পুলিশ সদস্যও আহত হয়েছেন। এ ঘটনায় পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।