আকাশপথের টিকিটের আকাশছোঁয়া দাম - BANGLANEWSUS.COM
  • নিউইয়র্ক, রাত ১১:২৮, ১৭ই মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ


 

আকাশপথের টিকিটের আকাশছোঁয়া দাম

banglanewsus.com
প্রকাশিত ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২২
আকাশপথের টিকিটের আকাশছোঁয়া দাম

অর্থনীতি ডেস্কঃ

বাংলাদেশ থেকে মধ্যপ্রাচ্যগামী বিভিন্ন দেশে আকাশপথে ভাড়ার নৈরাজ্যের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে ভয়াবহ টিকিটসংকট। একটি টিকিট যেন সোনার হরিণ! অনেক প্রবাসী শ্রমিক নিরুপায় হয়ে কয়েক গুণ বেশি দামে টিকিট কিনতে বাধ্য হচ্ছেন। সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে, কিছু এয়ারলাইনস টিকিট বিক্রি ও বিপণন-নীতিতে নাম ছাড়া টিকিট বুকিং বা তা ব্লক রাখার কারণে টিকিটের কৃত্রিম সংকট তৈরি হয়েছে। এক্ষেত্রে রিজারভেশন সিস্টেমে ফ্লাইটে কোনো সিট খালি থাকলেও ব্লক করে রাখার কারণে সেসব টিকিট বিক্রি হয়েছে বলে দেখানো হচ্ছে। এরপর এই টিকিট সিন্ডিকেট নিজেদের ইচ্ছেমতো তিন-চার গুণ বেশি দামে বিক্রি করে মুনাফা লুটছে।

জানা গেছে, আগামী মার্চ পর্যন্ত সৌদি আরবের টিকিট নেই ট্রাভেল এজেন্টদের কাছে। তবে টিকিট আছে কালোবাজারে। ট্রাভেল এজেন্সিগুলোর অভিযোগ, মধ্যপ্রাচ্যের রুটগুলোতে পর্যাপ্ত ফ্লাইট না থাকায় সিন্ডিকেটের মাধ্যমে এয়ারলাইনসগুলো নিজেদের মতো করে টিকিট ব্লকের জমজমাট বাণিজ্য করছে। রাষ্ট্রীয় বিমান সংস্হা বাংলাদেশ বিমান এয়ারলাইনসও এই সিন্ডিকেটে ঢুকে গেছে। বিমান ভাড়া অতীতের সব রেকর্ড ভঙ্গ করেছে। এতে বিপাকে পড়েছেন প্রবাসী শ্রমিক, সাধারণ যাত্রী, ওমরাহগামী যাত্রী, রিক্রুটিং এজেন্সি, ট্রাভেল এজেন্সি ও টু্যর অপারেটররা।

গত বছরের অক্টোবর থেকে অতিরিক্ত ভাড়ার দৌরাত্ম্য শুরু হলেও সব   রেকর্ড ভেঙেছে জানুয়ারি-ফেব্র‚য়ারিতে। সাড়ে তিন মাস আগেও যেখানে সৌদি আরবের জেদ্দা, রিয়াদ, দাম্মাম, মদিনা, আরব আমিরাতের দুবাই, কাতার, ওমান, কুয়েতসহ অন্যান্য রুটে ইকোনমি ক্লাসের একমুখী ভাড়া ছিল সর্বোচ্চ ২৫-৩০ হাজার টাকার মধ্যে। এখন সেই টিকিটের মূল্য তিন-চার গুণ বেড়ে লাখ টাকায়ও অনায়াসে পাওয়া যাচ্ছে না। পাশের দেশে এসব রুটে টিকিটের মূল্য ৪০ হাজার টাকারও কম। এ ছাড়া একই গন্তব্যের ফিরতি পথের দূরত্ব একই হলেও টিকিটের দাম ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকা মাত্র।

এ বিষয়ে আটাব মহাসচিব মো. মাজহারুল ইসলাম বলেন, আমরা এই পরিস্হিতির উত্তরণ চাই। একটা বাজে অবস্হা চলছে। কোনো ট্রাভেল এজেন্সি যদি সিন্ডিকেট করে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে তার দায় আটাবের নয়। যারা করছে তারাই দায়ী। আমরা চাই, দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্হা নেওয়া হোক।

বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী বলেন, সিন্ডিকেট শনাক্ত করা গেলে তাদের বিরুদ্ধে তাত্ক্ষণিক ব্যবস্হা নেওয়া হবে। এ ব্যাপারে সরকার কাজ করছে। এদিকে মধ্যপ্রাচ্যগামী একটি উড়োজাহাজ সংস্হার একজন কর্মকর্তার দাবি, বিভিন্ন কারণে ভাড়া বেড়েছে। যেমন—করোনা মহামারির পরবর্তী সময়ে উড়োজাহাজ চলাচল প্রায় স্বাভাবিক হতেই টিকিটের চাহিদা বৃদ্ধি; ট্রানজিটসুবিধার সংকট; বাংলাদেশ থেকে মধ্যপ্রাচ্যের শ্রমবাজার পুরোদমে চলছে কর্মী রপ্তানি; ছুটিতে আসা প্রবাসী কর্মীদের কর্মস্হলে ফেরার তাড়া; ওমরাহ হজের অনুমতি, জেট ফুয়েলের মূল্যবৃদ্ধি এবং এয়ারলাইনসগুলোর করোনাকালীন স্বাস্হ্যসেবার ব্যয় বৃদ্ধি। তবে টিকিটের দাম তিন-চার গুণ বৃদ্ধি করার পেছনে মুনাফার বিষয়টি স্বীকার করেন তিনি। মধ্যপ্রাচ্যের যাত্রীদের ১৫ থেকে ২০ শতাংশ বহন করে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস। বাদবাকি যাত্রীরা দেশি-বিদেশি অন্যান্য এয়ারলাইনসে যাতায়াত করেন। সাম্প্রতিককালে প্রবাসী কর্মীদের চাপ বাড়লেও বিমান কর্তৃপক্ষ মধ্যপ্রাচ্যে ফ্লাইটের সংখ্যা বাড়ানোর কোনো উদ্যোগ নেয়নি।

বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব ইন্টারন্যাশনাল রিক্রুটিং এজেন্সির (বায়রা) সাবেক সভাপতি আবুল বাশার বলেন, আমাদের প্রতিবেশী দেশ নেপাল, ভারত, শ্রীলঙ্কার তুলনায় বাংলাদেশ থেকে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে বিমানের ভাড়া কয়েক গুণ বেশি। বর্তমানে ঢাকা থেকে ছয় ঘণ্টার জার্নি রিয়াদে যেতে ভাড়া নেওয়া হচ্ছে ৮০ হাজার থেকে ৯০ হাজার টাকা। অথচ ঢাকা থেকে নিউ ইয়র্ক ২৩ ঘণ্টার জার্নিতে ভাড়া লাগছে মাত্র ৬৫ হাজার টাকা। এখন ঢাকা থেকে দুবাইয়ে ওয়ানওয়ে সৌদি এয়ারলাইনসের ভাড়া ১ লাখ ৩১ হাজার টাকা, জাজিরা এয়ারলাইনসের ভাড়া ৮৫ হাজার টাকা। এই গন্তব্যে শ্রীলঙ্কান এয়ারলাইনসের ভাড়া ৯৩ হাজার টাকা, এমিরেটস ও ইতিহাদ এয়ারওয়েজের ৯৮ হাজার ৮০০ টাকা। ওমানের মাসকাটে আগে একমুখী ভাড়া ছিল ৩৫ হাজার, বর্তমানে সব এয়ারলাইনস ৭২ হাজার টাকা নিচ্ছে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।