মসজিদের বিশেষ আদব ও শিষ্টাচার - BANGLANEWSUS.COM
  • নিউইয়র্ক, সকাল ১১:০১, ১৪ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ


 

মসজিদের বিশেষ আদব ও শিষ্টাচার

newsup
প্রকাশিত মে ১৭, ২০২৪
মসজিদের বিশেষ আদব ও শিষ্টাচার

ডেস্ক রিপোর্ট: মসজিদ আল্লাহর ঘর। এই ঘরের বিশেষ কিছু আদব ও শিষ্টাচার আছে। আছে কিছু বিধি-নিষেধ। মসজিদকেন্দ্রিক অনেক অবৈধ কাজ আছে, যা থেকে বেঁচে থাকা জরুরি। নিম্নে মসজিদের কয়েকটি নিষিদ্ধ কাজ উল্লেখ করা হলো- হারানো জিনিসের ঘোষণা দেওয়া : কোনো কিছু হারিয়ে গেলে মসজিদে বা মসজিদের মাইকে ঘোষণা দেওয়া জায়েজ নয়। আবু হুরায়রা (রা.) বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, যে ব্যক্তি শুনে অথবা দেখে যে মসজিদে এসে কেউ তার হারানো জিনিস খুঁজছে, সে যেন বলে, তোমার হারানো জিনিস তুমি যেন না পাও আল্লাহ সেটিই করুন। কারণ হারানো জিনিস খোঁজার জন্য এ ঘর তৈরি করা হয়নি। (আবু দাউদ, হাদিস : ৪৭৩; ইবনু মাজাহ, হাদিস : ৭৬৭) মসজিদ নিয়ে গর্ব করা : মসজিদ আল্লাহর ঘর। তাই মসজিদ নিয়ে বড়াই করা বা গর্ব করা উচিত নয়। আনাস (রা.) বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, কিয়ামত সংঘটিত হবে না, যতক্ষণ না মানুষ মসজিদ নিয়ে পরস্পর গর্ব করবে। (আবু দাউদ, হাদিস : ৪৪৯) ক্রয়-বিক্রয় করা : মসজিদ নির্মাণ করা হয় আল্লাহর ইবাদত করার জন্য, তাঁর জিকির করার জন্য এবং আল্লাহর ইবাদতের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট বিষয়াবলি পালনের জন্য। মসজিদ পার্থিব কোনো কাজের জন্য বানানো হয়নি। যেমন ক্রয়-বিক্রয় করা, বাজার বসানো ইত্যাদি। হাদিসে এসেছে, রাসুলুল্লাহ (সা.) মসজিদে কবিতা আবৃত্তি করতে, ক্রয়-বিক্রয় করতে এবং জুমার সালাতের আগে বৃত্তাকারে বসতে নিষেধ করেছেন। (আবু দাউদ, হাদিস : ১০৭৯) অযথা গল্পণ্ডগুজব করা : রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘অচিরেই এমন একসময় আসবে, যখন মানুষ মসজিদে বসে নিজেদের দুনিয়াবি কথাবার্তা বলবে। অতএব, তোমরা এসব লোকের গল্পণ্ডগুজবে বসবে না। আল্লাহ তাআলার এমন লোকের প্রয়োজন নেই।’ (বায়হাকি, শুআবুল ঈমান, হাদিস : ২৯৬২) উচ্চৈঃস্বরে কথা বলা : মসজিদে উচ্চৈঃস্বরে কথা বলা নিষিদ্ধ। সায়িব ইবনু ইয়াজিদ (রা.) বলেন, একবার আমি মসজিদে দণ্ডায়মান ছিলাম, এমন সময় আমাকে একজন লোক কংকর মারল। আমি দেখি তিনি ওমর ইবনুল খাত্তাব (রা.)। তিনি আমাকে বলেন, যাও, ওই দুই ব্যক্তিকে আমার কাছে নিয়ে আসো। আমি তাদের নিয়ে এলাম। তিনি তাদের জিজ্ঞেস করলেন, তোমরা কোন গোত্রের বা কোথাকার লোক? তারা বলল, আমরা তায়েফের লোক। ওমর (রা.) বলেন, যদি তোমরা মদিনার লোক হতে তাহলে আমি তোমাদের নিশ্চয়ই কঠিন শাস্তি দিতাম। রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর মসজিদে তোমরা উচ্চৈঃস্বরে কথা বলছ? (বুখারি, হাদিস : ৪৭০) কারো ইবাদতে ব্যাঘাত ঘটানো : মসজিদে পার্শ্ববর্তী মুসল্লির অসুবিধা করে উচ্চৈঃস্বরে জিকির করা, এমনকি কোরআন তিলাওয়াত করাও নিষিদ্ধ। আবু সাঈদ খুদরি (রা.) বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) মসজিদে ইতিকাফ করছিলেন। তিনি সাহাবিদের শুনতে পেলেন তারা উচ্চ আওয়াজে কোরআন তিলাওয়াত করছে। তাদের তিলাওয়াত শুনে তিনি পর্দা খুলে বলেন, ‘মুসল্লি তার রবের সঙ্গে কানে কানে কথা বলে। সুতরাং তোমাদের প্রত্যেকে যেন লক্ষ করে সে তার রবের সঙ্গে কী বলছে। আর তোমাদের কেউ যেন একে অপরের ওপরে উচ্চৈঃস্বরে কোরআন তিলাওয়াত না করে।’ (আবু দাউদ, হাদিস : ১৩৩২) দুর্গন্ধযুক্ত খাবার খেয়ে মসজিদে প্রবেশ নিষিদ্ধ : মসজিদে মানুষ নামাজ আদায় করতে আসে। দুর্গন্ধযুক্ত কোনো খাবার খেয়ে মসজিদে প্রবেশ নিষিদ্ধ। পেঁয়াজ, রসুন, মুলা, বিড়ি, সিগারেট ও তামাকজাতীয় কোনো কিছু খেয়ে মসজিদে যাওয়া দূষণীয়। ইবনে উমর (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) খায়বার যুদ্ধের সময় বলেন, ‘যে ব্যক্তি এসব গাছের কোনো একটি খায়, অর্থাৎ রসুন বা অনুরূপ স্বাদ ও গন্ধের কোনো কিছু খায় সে যেন মসজিদে না আসে।’ (মুসলিম, হাদিস : ১১৩৫) ইসলামি আইনজ্ঞরা বলেন, বিড়ি, সিগারেট ও তামাকজাতীয় সব বস্তু হারাম। আর তাতে আছে উৎকট দুর্গন্ধ, যা পরিত্যাগ করা প্রত্যেক মুসল্লির জন্য অত্যাবশ্যক। কারুকার্য ও নকশা করা : উলামায়ে কিরাম মসজিদ কারুকার্যমণ্ডিত করা অপছন্দ করেন। আয়েশা (রা.) থেকে বর্ণিত, একদিন নবী করিম (সা.) একটি নকশা অঙ্কিত কাপড়ে সালাত আদায় করলেন এবং (সালাত শেষে) বলেন, ‘এ কাপড়ের নকশা ও কারুকার্য আমার মনোযোগ কেড়ে নিয়েছে। এটা নিয়ে আবু জাহমের কাছে যাও এবং সাদামাটা মোটা চাদরখানা আমাকে এনে দাও।’ (বুখারি, হাদিস : ৭৫২) ইবনু আব্বাস (রা.) বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, মসজিদ উচ্চ ও চাকচিক্যময় করে নির্মাণ করার জন্য আমি আদিষ্ট হইনি। ইবনু আব্বাস (রা.) বলেন, অবশ্যই তোমরা মসজিদগুলোকে চাকচিক্যময় করবে, যেভাবে ইহুদি-খ্রিস্টানরা (গির্জা) চাকচিক্যময় করেছে। (আবু দাউদ, হাদিস : ৪৪৮) সহবাস করা : মসজিদে স্বামী-স্ত্রী সহবাস করা হারাম। মহান আল্লাহ বলেন, ‘আর তোমরা স্ত্রীগমন কোরো না, যখন তোমরা মসজিদে ইতিকাফ অবস্থায় থাকো।’ (সুরা : বাকারা, আয়াত : ১৮৭) তবে মসজিদে ইতিকাফ অবস্থায় স্ত্রীর সঙ্গে দেখা-সাক্ষাৎ, কথাবার্তা ও খোঁজখবর নেওয়ায় কোনো অসুবিধা নেই। আর এই বিধান সব সময়ের জন্য। নিজের জন্য নির্দিষ্ট কোনো জায়গা নির্ধারণ করা : আবদুর রহমান ইবনু শিবল (রা.) বলেন, ‘রাসুলুল্লাহ (সা.) নিষেধ করেছেন কাকের ঠোকরের মতো (তাড়াতাড়ি) সিজদা করতে, চতুষ্পদ জন্তুর মতো বাহু বিছাতে এবং উটের মতো মসজিদের মধ্যে নির্দিষ্ট স্থান নির্ধারণ করে নিতে।’ (আবু দাউদ, হাদিস : ৮৬২) আজানের পর মসজিদ থেকে বের না হওয়া : কেউ মসজিদে অবস্থানকালে কোনো সালাতের জন্য আযান হয়ে গেলে ওজর ছাড়া মসজিদ থেকে বের হওয়া উচিত নয়। আবু শাসা (রা.) বলেন, আসরের সালাতের আযান হয়ে যাওয়ার পর এক ব্যক্তি মসজিদ থেকে বেরিয়ে চলে গেল। আবু হুরায়রা (রা.) বলেন, এই ব্যক্তি আবুল কাসিম (সা.)-এর নির্দেশ অমান্য করল। (তিরমিজি, হাদিস : ২০৪) তবে পবিত্রতা অর্জনের জন্য, টয়লেটে অথবা অন্য কোনো জরুরি প্রয়োজনে বের হওয়া জায়েজ আছে। আবু হুরায়রা (রা.) বলেন, (একবার) সালাতের ইকামত দেওয়া হয়ে গেল, লোকেরা তাদের কাতার সোজা করে নিয়েছে, আল্লাহর রাসুল (সা.) বেরিয়ে এলেন এবং সামনে এগিয়ে গেলেন, তখন তাঁর ওপর গোসল ফরজ ছিল। তিনি বলেন, তোমরা নিজ নিজ জায়গায় অপেক্ষা করো। অতঃপর তিনি ফিরে গেলেন এবং গোসল করলেন, অতঃপর ফিরে এলেন, তখন তাঁর মাথা থেকে পানি টপ টপ করে পড়ছিল। অতঃপর সবাইকে নিয়ে সালাত আদায় করলেন। (বুখারি, হাদিস : ৬৪০) কাউকে তার জায়গা থেকে উঠিয়ে সেখানে না
বসা: জাবের ইবনে আবদুল্লাহ (রা.) বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, তোমাদের কেউ যেন তোমার ভাইকে তার স্থান থেকে না ওঠায় এবং তাকে তার জায়গা থেকে সরিয়ে দিয়ে সে স্থানে না বসে। তবে তাকে বলবে, তুমি জায়গা প্রশস্ত করো। (মুসলিম, হাদিস : ৫৫৮১)

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।