তথ্যের জন্য সাংবাদিকরা শতবার কেন্দ্রীয় ব্যাংকে যেতে পারেন: ডেপুটি গভর্নর - BANGLANEWSUS.COM
  • নিউইয়র্ক, সকাল ৯:৪৮, ১৪ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ


 

তথ্যের জন্য সাংবাদিকরা শতবার কেন্দ্রীয় ব্যাংকে যেতে পারেন: ডেপুটি গভর্নর

newsup
প্রকাশিত মে ১৮, ২০২৪
তথ্যের জন্য সাংবাদিকরা শতবার কেন্দ্রীয় ব্যাংকে যেতে পারেন: ডেপুটি গভর্নর

ডেস্ক রিপোর্ট: তথ্য সংগ্রহের জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকে সাংবাদিকদের প্রবেশে কোনো বাধা নেই বলে জানিয়েছেন ডেপুটি গভর্নর খুরশীদ আলম। তিনি বলেন, ‘তথ্যের প্রয়োজন হলে আপনি শতবার ব্যাংকে যেতে পারেন।’শনিবার(১৮ মে) বিকালে পঞ্চগড় চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সম্মেলন কক্ষে রংপুরে ‘গ্রাহক সচেতনতা সপ্তাহ-২০২৪’ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। খুরশীদ আলম বলেন, ‘প্রতিটি প্রতিষ্ঠানের একজন মুখপাত্র থাকে। আমাদের তিনজন আছে। যে কোনও ধরনের তথ্যের জন্য তাদের সঙ্গে গিয়ে কথা বলুন।’তিনি আরও বলেন, ‘আপনি যদি তাদের দেওয়া তথ্যে সন্তুষ্ট না হন, তবে চারজন ডেপুটি গভর্নরের সঙ্গে আপনি কথা বলতে পারেন। আমরা এর উত্তর দেব।’অবাধ প্রবেশাধিকার প্রসঙ্গে খুরশীদ আলম প্রশ্ন তোলেন, ‘অবাধ প্রবেশ কী?’ তিনি প্রশ্ন রেখে বলেন, কোনো বেসরকারি কোম্পানি কি অন্য কোম্পানিকে বিনামূল্যে কিছু দেবে? তিনি আরও উল্লেখ করেন, বিশ্বের এমন কোনো দেশ নেই যেখানে বৈধভাবে প্রত্যাহার করা কোনো ক্ষেত্রে এত বেশি সুবিধার অনুমতি দেয়। ডেপুটি গভর্নর বলেন, ‘আপনি যদি একা যেতে চান তবে আপনি করতে পারেন এবং নিযুক্ত কর্মকর্তারা আপনাকে তথ্য সরবরাহ করবেন, যা গোপনীয়তা আইনের অধীনে অনুমোদিত। তবে রাষ্ট্রের গোপনীয়তা সম্পর্কে তথ্য পেতে চাইলে তা দেওয়া হয় না।’কোনো ধরনের অপপ্রচার করে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য সাংবাদিকদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।
উদীয়মান অর্থনীতির চ্যালেঞ্জের কথা স্বীকার করে তিনি বলেন, আমরা দীর্ঘ পদক্ষেপে এগিয়ে যাচ্ছি। ব্যাংকারদের উদ্দেশে ডেপুটি গভর্নর বলেন, অর্থনীতির সঙ্গে তাল মিলিয়ে দেশকে এগিয়ে নিতে হবে। আর্থিক খাত অর্থনীতির প্রাণ। আপনাকে গ্রাহকদের কাছ থেকে ট্যাক্স আদায় করতে হবে, এবং একই সঙ্গে তারা যাতে হয়রানির শিকার বা অসন্তুষ্ট না হয় সেদিকে নজর রাখতে হবে। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ এখন অনেক দেশের কাছে রোল মডেলে পরিণত হয়েছে। দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। আর পেছনে ফিরে তাকানোর সময় নেই।’ অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক নুরুল আমিন ও রুহুল আমিন, বাংলাদেশ ব্যাংকের ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টিগ্রিটি অ্যান্ড কাস্টমার সার্ভিসেস বিভাগের পরিচালক লিজা ফাহমিদা ও শায়েমা ইসলাম এবং ব্যাংক এশিয়ার ব্যবস্থাপনা পরিচালক শফিউজ্জামান বক্তব্য দেন।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।