শরিয়াহ-ভিত্তিক ব্যাংকের আমানত কমেছে, কিন্তু ঋণ বাড়ছে - BANGLANEWSUS.COM
  • নিউইয়র্ক, সকাল ১১:৪৬, ১৪ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ


 

শরিয়াহ-ভিত্তিক ব্যাংকের আমানত কমেছে, কিন্তু ঋণ বাড়ছে

newsup
প্রকাশিত মে ১৮, ২০২৪
শরিয়াহ-ভিত্তিক ব্যাংকের আমানত কমেছে, কিন্তু ঋণ বাড়ছে

ডেস্ক রিপোর্ট: উচ্চ মূল্যস্ফীতির কারণে অনেকেই জীবিকানির্বাহের তাগিদে ব্যাংক হিসাব থেকে টাকা তুলে নিচ্ছেন। আবার অনিয়মের মাধ্যমে নামসর্বস্ব প্রতিষ্ঠানকে দেওয়া হচ্ছে ঋণ। ব্যাংক খাতে সুশাসনের অভাব, নানা অব্যবস্থাপনা, দখল, কেলেঙ্কারি আর লুটপাটের খবর আসছে প্রতিদিনই। এমন পরিস্থিতিতে গ্রাহকের মধ্যে এক ধরনের আস্থার সংকট তৈরি হয়েছে। ফলে ব্যাংক খাতে কমে গেছে আমানত। তবে, আমানত কমলেও বেড়েছে ঋণের পরিমাণ। ‘ইসলামিক ব্যাংকিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স স্ট্যাটিস্টিকস’ শীর্ষক বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদন অনুযায়ী, পূর্ণাঙ্গ ইসলামি ব্যাংকগুলোর বিতরণকৃত ঋণ ১০,৮৬৬ কোটি টাকা বেড়েছে, যেখানে ডিসেম্বর ২০২৩ এবং ২০২৪ সালের জানুয়ারিতে তাদের আমানত কমেছে ৫,৩৮৫ কোটি টাকা। শুধুমাত্র জানুয়ারিতেই এসব ব্যাংকে আমানত ৮,৮৩২ কোটি টাকা কমে দাঁড়িয়েছে ৩,৭৫,৩০৪ কোটি টাকা, যেখানে ঋণ বিতরণ ৩,৬৪২ কোটি টাকা বেড়ে ৪,৪৯,০৭৩ কোটি টাকায় পৌঁছেছে। ২০২৩ সালের ডিসেম্বরে, আমানত ৩,৪৪৭ কোটি টাকা সামান্য বৃদ্ধি পেয়েছে এবং ঋণ বিতরণ ৭,২২৪ কোটি টাকা বেড়েছে। দেশে ১০টি পূর্ণাঙ্গ শরিয়াহ ভিত্তিক ব্যাংক রয়েছে। এই ব্যাংকগুলো হলো ইসলামি ব্যাংক বাংলাদেশ, আল আরাফাহ ইসলামি ব্যাংক, সোস্যাল ইসলামি ব্যাংক, স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক, এক্সিম ব্যাংক, ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামি ব্যাংক, শাহজালাল ইসলামি ব্যাংক, ইউনিয়ন ব্যাংক, গ্লোবাল ইসলামি ব্যাংক এবং আইসিবি ইসলামি ব্যাংক। তাদের মধ্যে, বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুসারে, ২৪ এপ্রিল পর্যন্ত পাঁচটি ব্যাংকের সম্মিলিতভাবে তাদের চলতি অ্যাকাউন্টে প্রায় ১৪,২২৪ কোটি টাকা ঋণাত্মক ব্যালেন্স ছিল। তাদের বর্তমান অ্যাকাউন্টে কোন টাকা না থাকা সত্ত্বেও, এই ব্যাংকগুলি এখনও লেনদেন পরিচালনা করছে, শুধুমাত্র কেন্দ্রীয় ব্যাংকের দেওয়া গুরুত্বপূর্ণ সহায়তা বা লাইফলাইন দিয়ে বেঁচে আছে। ভয়াবহ পরিস্থিতি উপেক্ষা করে এসব ব্যাংক ঋণ প্রদান কার্যক্রম অব্যাহত রেখে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অস্পষ্ট মনিটরিংয়ের প্রশ্ন তুলেছে। বিশ্বব্যাংকের ঢাকা অফিসের সাবেক প্রধান অর্থনীতিবিদ জাহিদ হুসাইন বলেন, ব্যাংকিং খাতে আমানতের সামগ্রিক প্রবৃদ্ধি সত্ত্বেও ইসলামি ব্যাংকগুলো আমানত হ্রাস পেয়েছে, যা আমানতকারীদের মধ্যে আস্থার সংকটের ইঙ্গিত দেয়। কয়েকটি ইসলামি ব্যাংকে ঋণ নিয়ে নানা অনিয়ম নিয়ে বিভিন্ন সংবাদ প্রকাশের পর আমানতকারীরা আস্থা হারিয়েছেন। তিনি উল্লেখ করেন যে কিছু ইসলামি ব্যাংক গুরুতর তারল্য সমস্যার কারণে কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে নিয়মিত ঋণ নিয়ে কাজ করছে। হোসেইন এই ব্যাংকগুলির অন্যায়ের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা না নেওয়ার জন্য এবং তাদের ঋণ কার্যক্রম বন্ধ করতে ব্যর্থ হওয়ার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের সমালোচনা করেছিলেন, যাতে তিনি যুক্তি দিয়েছিলেন, তাদের অসদাচরণ চালিয়ে যেতে উৎসাহিত করেছে। দেশের ব্যাংকিং ব্যবস্থায় সামগ্রিক আমানতে শরিয়াহ-ভিত্তিক ব্যাংকগুলির বাজার শেয়ার ২০২৪ সালের জানুয়ারির শেষে ২৩.৫৬ শতাংশে নেমে আসে যা ২০২৩ সালের ডিসেম্বরে ২৩.৮৬ শতাংশ ছিল। এছাড়াও, বাংলাদেশ ব্যাংক ৫ ডিসেম্বর, ২০২৩-এ তাৎক্ষণিক সংশোধনমূলক কর্ম কাঠামো জারি করে যেখানে এটি দুর্বল ব্যাংকগুলিকে শক্তিশালী ব্যাংকগুলির সাথে একীভূত করার ঘোষণা দেয়, যা পুরো ব্যাংকিং সেক্টরে আতঙ্কের সৃষ্টি করেছিল। অন্যদিকে, ঐতিহ্যবাহী ব্যাংকিংয়ে ঋণ ও অগ্রগতি হিসেবে পরিচিত বিনিয়োগে ইসলামি ব্যাংকগুলোর শেয়ার জানুয়ারিতে বেড়ে হয়েছে ২৪.৯২ শতাংশ, যা এক মাস আগে ছিল ২৪.৮১ শতাংশ। মোট আমানতের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ ইসলামি ব্যাংকের কাছে ৩,৭৫,৩০৪ কোটি টাকা, প্রচলিত ব্যাংকের ইসলামি ব্যাংকিং শাখায় ২৩,২৭০ কোটি টাকা এবং প্রচলিত ব্যাংকের ইসলামি ব্যাংকিংকে অবশিষ্ট ১৫,৩৯৪ কোটি টাকা রয়েছে। এখন দেশের ৬০টি তফসিলি ব্যাংকের মধ্যে ৩৩টি বিভিন্ন ইসলামি ব্যাংকিং সেবা দিচ্ছে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।