BengaliEnglishFrenchSpanish
জৈন্তাপুরে অপরাধ নিয়ন্ত্রনে ৫মাসে গ্রেফতার ২৩৯, মামলা ১৩০ - BANGLANEWSUS.COM
  • ৫ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ


 

জৈন্তাপুরে অপরাধ নিয়ন্ত্রনে ৫মাসে গ্রেফতার ২৩৯, মামলা ১৩০

STAFF USBD
প্রকাশিত ডিসেম্বর ২৭, ২০১৯
জৈন্তাপুরে অপরাধ নিয়ন্ত্রনে ৫মাসে গ্রেফতার ২৩৯, মামলা ১৩০

জৈন্তাপুর (সিলেট):
সিলেটের উত্তর-পূর্ব কোনে অবস্থিত জৈন্তাপুর উপজেলা, মেঘালয় রাজ্যের পাহাড় বিস্তৃত সৌন্দর্য্যে অপরুপ লীলভূমি প্রকৃতিকন্যা পর্যটন খ্যাত জৈন্তাপুর মডেল থানা। অপরাধ নিয়ন্ত্রনে জৈন্তাপুরে ওসি শ্যামল বণিক‘র সাফল্যেও ৫ মাস। গ্রেফতার ২শত ৩৯ টি, মামলা হয়েছে ১শত ৩০টি।
২০১৯ সনের আগস্ট মাসে জৈন্তাপুর মডেল থানায় অফিসার ইনচার্জ হিসাবে শ্যামল বনিক যোগদানের পর জৈন্তাপুরে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে উপজেলার প্রতিটি ছোট বড় হাট-বাজারে বিভিন্ন স্কুল, কলেজ সহ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মাদক বিরোধী জনসচেতনা বৃদ্ধিতে প্রচারাভিযান করেন, অতীতের চেয়ে ৫মাসে উপজেলায় মাদ, জুয়া ভারতীয় তীর খেলা, নারী নির্যাতন, ইভটিজিং সহ ইত্যাদি অপরাধ কিছুটা নিয়ন্ত্রনে নিয়ে আসেন। সেক্ষেত্রে উপজেলার বিভিন্ন অপরাধ মুলক কর্মকান্ড কিছুটা হলেও সাফল্য আসে। সম্প্রতি সময়ে জৈন্তাপুর উপজেলার তিনটি ইউনিয়ন সীমান্তবর্তী হওয়ায় কছিুটা বৃদ্ধি পেয়েছে ভারতীয় চোরাচালান ব্যবসা । বিশেষ করে গরু, মহিষ, বিদেশী মদ, ইয়াবা সহ নানা নিষিদ্ধ পন্য সামগ্রী অবৈধ পথে প্রতিদিন রাতে বাংলাদেশে প্রবেশ করছে। চোরাচালান ব্যবসা দেখে স্থানীয় সচেতন মহল মনে করেন সীমান্ত সু-রক্ষা বাহিনী বিজিবি এবং স্থানীয় প্রশাসনের নিয়ন্ত্রনের বাহিরে চলে গেছে। তবে অফিসার ইনচার্জ হিসাবে শ্যামল বনিক যোগদান করার পর উপজেলার সার্বিক আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি কিছুটা উন্নতি হয়েছে বলে স্বীকার করেন। জৈন্তাপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ শ্যামল বনিক দায়িত্ব গ্রহনের পর সার্বক্ষনিক অপরাধ নিয়ন্ত্রনের জন্য “টিম জৈন্তাপুর” অভিযানিক দল সদা প্রস্তুত রাখেন। মাদক, জুয়া ও ভারতীয় তীর খেলার বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রোখেছেন। মদ, জুয়া ও ভারতীয় তীর খেলার বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত থাকায় তরুন বয়সী অনেক মাদকসেবী সর্তক হয়ে আড়ালে চলে গেছে। ইতোমধ্যে মাদক, জুয়া খেলার সাথে জড়িত থাকার অপরাধে অনেকেই পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়েছেন এবং উদ্ধার করা হয়েছে বিপুল পরিমানে মদ, ইয়াবা, ফেন্সীডিল, গাজা সহ নেশা জাতীয় দ্রব্যদি।
থানা সূত্রে জানা যায়, চলিত বছরে বিগত পাঁচ মাসে থানায় বিভিন্ন ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়েছে ১৩০টি। গ্রেফতার করা হয়েছে ২৩৯ জন ব্যক্তিকে। চলিত বছরের আগস্ট মাসে বিভিন্ন অপরাধে ৬৩জন ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয় ২৬টি এবং উদ্ধার করা হয়েছে ছিনতাই হওয়া ৩ লক্ষ ১০ হাজার টাকা। সেপ্টেম্বর মাসে জুয়াড়ী, মাদক, চোরাচালান সহ ৭৬জন ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয় এবং মামলা রুজু করা হয়েছে ২৮টি। অক্টোবর মাসে গ্রেফতার করা হয়েছে ৪০জন ব্যক্তিকে এবং মামলা দায়ের করা হয়েছে ২৩টি, উদ্ধার করা হয়েছে ২টি বিদেশী রিভলভার। নভেম্বর মাসে মাদক মামলা, শিশু নির্যাতন, চোরাচালান কাজে জড়িত থাকায় গ্রেফতার করা হয়েছে ৩৬জন ব্যক্তিকে, মামলা দায়ের করা হয় ২৯টি। ডিসেম্বর মাসে গ্রেফতার করা হয়েছে ২৪জন ব্যক্তিকে। মামলা রুজি করা হয়েছে ২৪টি এবং উদ্ধার করা হয়েছে একটি গাড়ি, ৯লক্ষ ৭৫হাজার পিস নাসির বিড়ি, ৪২বোতল বিদেশী মদ।
জৈন্তাপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ শ্যামল বণিক প্রতিবেদককে বলেন, দায়িত্ব গ্রহনের পর টিম জৈন্তাপুরকে নিয়ে বিভিন্ন স্থানে সামাজিক গণসচেতনা বৃদ্ধি করতে প্রচার-প্রচারণার পাশাপাশি অভিযান করে অসামাজিক কাজে জড়িত ব্যক্তিদের সর্তক করেছি। ইতোমধ্যে মদ, জুয়া ও ভারতীয় তীর খেলা, শিশু নির্যাতন, অপহরণ, ইভটিজিং ছিনতাই ঘটনা সহ অসামাজিক কর্মকান্ড নিয়ন্ত্রণ করতে প্রাণপণ চেষ্টা করে যাচ্ছি। স্থানীয় জনপ্রতিনিধি সহ এলাকার গন্যমান্য নেতৃবৃন্দের সহযোগিতায় কিছুটা হলে টিম জৈন্তাপুর উপজেলার আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে চেষ্টা করেছি। এই পর্যন্ত পাঁচ মাসে আমাদের কতটুকু সফলতা অর্জন করতে পেরেছি তা স্থানীয় জনগন তার মূল্যায়ন করবে। ইতোমধ্যে ২৩৯ জন ব্যক্তিকে আটক করা হয়েছে এবং ১৩০টি মামলা রুজু করা হয়। টিম জৈন্তাপুরের সকল সদস্য উপজেলাকে মাদক ও জুয়া খেলা এবং অপরাধ মুক্ত করতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। তিনি টিম জৈন্তাপুর থানার সকল কর্মকর্তাগণের প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়ে মাদক ও অপরাধ মুক্ত উপজেলা গঠনে সচেতন মহলের সহায়তা কামনা করি।

এই সংবাদটি 1,234 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।