বর্তমান শিক্ষাক্রমকে আলেম-ওলামা সমন্বয়ে সংশোধনের দাবি - BANGLANEWSUS.COM
  • নিউইয়র্ক, দুপুর ২:৫৫, ১৭ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ


 

বর্তমান শিক্ষাক্রমকে আলেম-ওলামা সমন্বয়ে সংশোধনের দাবি

newsup
প্রকাশিত মে ২৯, ২০২৩
বর্তমান শিক্ষাক্রমকে আলেম-ওলামা সমন্বয়ে সংশোধনের দাবি

ডেস্ক রিপোর্ট: বর্তমান শিক্ষাক্রমকে বিশেষজ্ঞ আলেম-ওলামা সমন্বয়ে সংশোধন করার দাবি জানিয়েছে ইসলামি শিক্ষা উন্নয়ন বাংলাদেশ। একই সঙ্গে মধ্যপ্রাচ্যের শ্রম বাজারে অবাধে প্রবেশের লক্ষ্যে আরবি ভাষা কোর্স চালুর দাবি জানান সংগঠনটির সদস্যরা।

আজ সোমবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের আব্দুস সালাম হলে বোর্ড পরীক্ষায় ধর্মশিক্ষার জন্য স্বতন্ত্র পাঠ্যক্রম প্রণয়ন, শিক্ষার সর্বস্তরে ধর্মীয় শিক্ষা বাধ্যতামূলককরণ ও শিক্ষা বৈষম্য দূরীকরণের দাবিতে আয়োজিত এক জাতীয় সেমিনারে এসব দাবি জানানো হয়।

সেমিনারে আরও দাবি করা হয়, শিক্ষার সর্বস্তর ও সব শাখায় (প্রথম শ্রেণি থেকে মাস্টার্স, মেডিক্যাল, ইঞ্জিনিয়ারিং ও আইসিটিসহ) সব ধরনের প্রশিক্ষণ প্রোগ্রামে ইসলাম তথা ধর্মশিক্ষা বাধ্যতামূলক করা, ৯ম ও ১০ম শ্রেণিতে ইসলাম শিক্ষা তথা ধর্মশিক্ষাকে বোর্ড পরীক্ষার অন্তর্ভুক্ত করা, মাদ্রাসা শিক্ষার স্বকীয়তা রক্ষা ও যোগ্য আলেম তৈরির লক্ষ্যে মাদ্রাসা শিক্ষার জন্য স্বতন্ত্র শিক্ষা পাঠ্যক্রম এবং পাঠ্য পুস্তক প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন করা, সরকারি ও বেসরকারি শিক্ষায় বিদ্যমান বৈষম্য দূর করা, স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদ্রাসা মঞ্জুরির স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার করা এবং মঞ্জুরিপ্রাপ্ত ইবতেদায়ি মাদ্রাসাগুলো এমপিওভুক্ত করা, মাদ্রাসা ও কলেজের অনার্স কোর্সের জন্য প্রয়োজনীয় সংখ্যক জনবল নিয়োগের ব্যবস্থা ও এমপিওভুক্ত করা, এমপিওভুক্ত মহিলা মাদ্রাসায় সম্পূর্ণ মহিলা শিক্ষিকা নিয়োগের ব্যবস্থা করা ও পুরুষ মাদ্রাসায় মহিলা কোটা নিয়োগের শর্ত শিথিল করাসহ ইসলামি শিক্ষার সঙ্গে সম্পৃক্ত প্রতিষ্ঠানসমূহে (মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড, মাদ্রাসা অধিদফতর, বিএমটিটিআই, ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয়সহ) ইসলামি শিক্ষায় শিক্ষিত বিশেষজ্ঞ নিয়োগের ব্যবস্থা করতে হবে।

সেমিনারে আলোচকরা বলেন, বাংলাদেশের শতকরা ৯১ ভাগ জনগোষ্ঠী মুসলমান। বাকি ৯ ভাগ মানুষও ধর্মপ্রাণ। ইসলাম শিক্ষা একটি ফরজ ইবাদত। তাই শিক্ষার সব স্তর ও বিভাগে ইসলামি শিক্ষা বাস্তবায়ন সরকার ও জনগণের সম্মিলিত দায়িত্ব।

সেমিনারের সভাপতিত্ব করেন ইসলামি শিক্ষা উন্নয়ন বাংলাদেশের সভাপতি অধ্যক্ষ ড. এ কে এম মাহবুবুর রহমান। প্রধান অতিথি ছিলেন ইসলামি ফাউন্ডেশনের গভর্নর ড. মুফতি মুহাম্মদ কাফীলুদ্দীন সরকার সালেহী।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।