চীন-আরব সম্পর্ক নতুন উচ্চতায় পৌঁছেছে : শি জিনপিং - BANGLANEWSUS.COM
  • নিউইয়র্ক, বিকাল ৫:৪০, ১৪ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ


 

চীন-আরব সম্পর্ক নতুন উচ্চতায় পৌঁছেছে : শি জিনপিং

editorbd
প্রকাশিত মে ৩১, ২০২৪
চীন-আরব সম্পর্ক নতুন উচ্চতায় পৌঁছেছে : শি জিনপিং

ডেস্ক রিপোর্ট: চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং বৃহস্পতিবার সকালে বেইজিংয়ের তিয়াওইয়ুথাই রাজ্য গেস্টহাউসে আয়োজিত চীন-আরব সহযোগিতা ফোরামের দশম মন্ত্রী পর্যায়ের সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগদান করেন এবং মূল ভাষণ দেন। শি জিনপিং ঘোষণা করেছেন যে, চীন ২০২৬ সালে দ্বিতীয় চীন-আরব শীর্ষ সম্মেলন আয়োজন করবে। চীন-আরব বন্ধুত্বের চেতনাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে, ‘পাঁচটি প্রধান সহযোগিতার নিদর্শন’ তৈরি করতে এবং চীন-আরব অভিন্ন ভবিষ্যতের কমিউনিটি নির্মাণকে ত্বরান্বিত করতে আরব পক্ষের সাথে কাজ করতে ইচ্ছুক চীন। বৈঠকে, শি জিনপিং ‘সহযোগিতাকে গভীর করা, উত্তরাধিকার সামনে নিয়ে যাওয়া এবং চীন-আরব অভিন্ন ভবিষ্যতের কমিউনিটি নির্মাণকে ত্বরান্বিত করা’ শীর্ষক একটি মূল বক্তব্য প্রদান করেন। শি জিনপিং উল্লেখ করেছেন যে, চীন ও চীনা জনগণ এবং আরব দেশ ও জনগণের মধ্যে বন্ধুত্ব প্রাচীন সিল্ক রোড বরাবর বন্ধুত্বপূর্ণ আদান-প্রদান, জাতীয় মুক্তির জন্য পাশাপাশি লড়াই এবং জাতীয় নির্মাণ প্রক্রিয়ায় জয়-জয় সহযোগিতা থেকে উদ্ভূত। নতুন শতাব্দী থেকে, চীন-আরব সম্পর্ক নতুন উচ্চতায় পৌঁছেছে। শি জিনপিং উল্লেখ করেছেন যে, উভয়পক্ষের যৌথ প্রচেষ্টার মাধ্যমে, প্রথম চীন-আরব শীর্ষ সম্মেলনের সময় প্রস্তাবিত ’আটটি প্রধান সাধারণ পদক্ষেপে’র প্রাথমিক ফলাফল অর্জিত হয়েছে। এর ভিত্তিতে আরব দেশের সাথে ‘পাঁচটি প্রধান সহযোগিতার কাঠামো’ তৈরি করতে এবং চীন-আরব অভিন্ন ভবিষ্যত কমিউনিটি নির্মাণকে ত্বরান্বিত করতে ইচ্ছুক চীন।

প্রথমটি হল, আরও গতিশীল উদ্ভাবন-চালিত কাঠামো। চীন, আরব পক্ষের সাথে জীবন ও স্বাস্থ্য, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, সবুজ ও নিম্ন-কার্বন, আধুনিক কৃষি এবং মহাকাশ তথ্যের ক্ষেত্রে ১০টি যৌথ পরীক্ষাগার নির্মাণ করবে। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ক্ষেত্রে সহযোগিতা জোরদার করা হবে, বাস্তব অর্থনীতিকে শক্তিশালী করতে যৌথভাবে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ব্যবহার করা হবে, এবং একটি ঐকমত্য-ভিত্তিক বৈশ্বিক কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রশাসন ব্যবস্থা গঠনের প্রক্রিয়া এগিয়ে নেয়া হবে। দু’পক্ষ যৌথভাবে মহাকাশ আবর্জনা পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র, বেইতৌ ব্যবহারিক সহযোগিতা উন্নয়ন কেন্দ্র, মানববাহী মহাকাশ অন্বেষণ এবং বেসামরিক বিমান ক্ষেত্রে সহযোগিতা করবে।

দ্বিতীয়ত, আরও বড় আকারের বিনিয়োগ ও আর্থিক কাঠামো। চীন, আরব পক্ষের সাথে একটি শিল্প ও বিনিয়োগ সহযোগিতা ফোরাম স্থাপন করতে ইচ্ছুক, উভয়পক্ষের আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে সহযোগিতা জোরদার করতে ইচ্ছুক, আরব পক্ষের ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠানগুলোকে আরএমবি ক্রস-বর্ডার পেমেন্ট ও ক্লিয়ারিং সিস্টেমে যোগ দিতে স্বাগত জানায় এবং কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মধ্যে ডিজিটাল মুদ্রা ক্ষেত্রে আদান-প্রদান ও সহযোগিতা আরও গভীর করতে ইচ্ছুক।

তৃতীয়ত, আরও ত্রিমাত্রিক জ্বালানি শক্তি সহযোগিতার কাঠামো। চীন তেল ও গ্যাস ক্ষেত্রে আরব পক্ষের সাথে কৌশলগত সহযোগিতা আরও জোরদার করবে এবং যৌথভাবে নতুন জ্বালানি প্রযুক্তি গবেষণা ও উন্নয়ন এবং সরঞ্জাম উৎপাদন করবে। আরব দেশগুলোতে নবায়নযোগ্য শক্তি প্রকল্পগুলোতে অংশগ্রহণের জন্য চীনা শক্তি সংস্থাগুলো ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে সমর্থন করবে, এবং ই-কমার্স সহযোগিতা সংলাপ প্রক্রিয়া নির্মাণের প্রচার করবে। চীন আরব পক্ষকে চীনের আন্তর্জাতিক আমদানি মেলায় সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করার জন্য স্বাগত জানায় এবং আরব পক্ষ থেকে জ্বালানি-বহির্ভূত পণ্য, বিশেষ করে কৃষি ও খাদ্যপণ্য আমদানি সম্প্রসারণ করতে ইচ্ছুক।
চতুর্থত, আরও ভারসাম্যপূর্ণ উপকারিতামূলক অর্থনৈতিক ও বাণিজ্য কাঠামো। চীন সক্রিয়ভাবে চীন-আরব উন্নয়ন সহযোগিতা প্রকল্প বাস্তবায়ন করে যাবে, দ্বিপাক্ষিক ও আঞ্চলিক অবাধ বাণিজ্য চুক্তির আলোচনাকে ত্বরান্বিত করবে। পঞ্চমত, একটি বিস্তৃত সাংস্কৃতিক বিনিময় কাঠামো। ‘চীন, আরব পক্ষের সাথে বিশ্ব সভ্যতা উদ্যোগের চীন-আরব কেন্দ্র স্থাপন করতে ইচ্ছুক এবং থিঙ্কট্যাঙ্ক জোট, যুব উন্নয়ন ফোরাম, বিশ্ববিদ্যালয় জোট, সংস্কৃতি ও পর্যটন সহযোগিতা গবেষণা কেন্দ্র এবং অন্যান্য প্ল্যাটফর্ম নির্মাণকে ত্বরান্বিত করতে ইচ্ছুক। চীন প্রতি বছর আরবের রাজনৈতিক দলের ২০০ জন নেতাকে চীন সফর করতে আমন্ত্রণ জানাবে। আগামী পাঁচ বছরে ১০ মিলিয়ন পর্যটক পরস্পরের দেশে সফরের লক্ষ্য বাস্তবায়ন করা হবে।
শি জিনপিং উল্লেখ করেন যে, মধ্যপ্রাচ্য উন্নয়নের জন্য একটি উর্বর ভূমি, কিন্তু এই ভূমিতে এখনও যুদ্ধ চলছে। তিনি বলেন, যুদ্ধ অনির্দিষ্টকালের জন্য চলতে পারে না, ন্যায়বিচার স্থায়ীভাবে অনুপস্থিত থাকতে পারে না এবং ‘দুই-রাষ্ট্র সমাধান’ নির্বিচারে অগ্রাহ্য হতে পারে না। চীন দৃঢ়ভাবে ১৯৬৭ সালের সীমান্তের উপর ভিত্তি করে, পূর্ব জেরুজালেমকে রাজধানী হিসেবে, পূর্ণ সার্বভৌমত্বের সাথে স্বাধীন ফিলিস্তিনি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠাকে সমর্থন করে। ফিলিস্তিনকে জাতিসংঘের পূর্ণ সদস্য হতে সমর্থন করে এবং একটি বৃহত্তর, ক্ষমতাশীল এবং কার্যকরী আন্তর্জাতিক সম্মেলন আয়োজন করতে সমর্থন করে। শি জিনপিং জোর দিয়ে বলেছেন যে, চীন, গাজায় মানবিক সঙ্কট এবং যুদ্ধোত্তর পুনর্গঠনের জন্য সহায়তা ও জরুরি মানবিক সহায়তা প্রদান অব্যাহত রাখবে।

সুত্র: দৈনিক ইনকিলাব

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।