পর্যাপ্ত বরাদ্দের অভাবে গবেষণা ও উদ্ভাবনে পিছিয়ে পড়ছে দেশ - BANGLANEWSUS.COM
  • নিউইয়র্ক, দুপুর ২:৫৬, ১৬ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ


 

পর্যাপ্ত বরাদ্দের অভাবে গবেষণা ও উদ্ভাবনে পিছিয়ে পড়ছে দেশ

editorbd
প্রকাশিত জুন ২৯, ২০২৪
পর্যাপ্ত বরাদ্দের অভাবে গবেষণা ও উদ্ভাবনে পিছিয়ে পড়ছে দেশ

পর্যাপ্ত বরাদ্দের অভাবে গবেষণা ও উদ্ভাবনে পিছিয়ে পড়ছে দেশ। বিশেষ করে মৌলিক গবেষণা খুবই কম হচ্ছে। নীতিনির্ধারণী পর্যায়েও ততোটা গুরুত্ব পায় না গবেষণা ও উদ্ভাবন। সরকারি কিংবা বেসরকারি সব ক্ষেত্রেই প্রায় একই চিত্র। অথচ তুমুল প্রতিযোগিতার বিশ্ববাজারে প্রায় সব ক্ষেত্রেই এখন উদ্ভাবনী পণ্য, প্রযুক্তি ও কৌশলেরই আধিপত্য। উদ্ভাবনী পণ্য ও সেবার জয়জয়কার সর্বত্র। ২০২০-২১ অর্থবছরে দেশে গবেষণা ও উন্নয়নে (আরঅ্যান্ডডি) ব্যয় হয়েছে মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) শূন্য দশমিক ৩০ শতাংশ। যা সাড়ে ১০ হাজার কোটি টাকারও কম। এ খাতে দেশে মাথাপিছু ব্যয় মাত্র ৬২০ টাকা। মাথাপিছু হিসেবে দেশের প্রতি ১০ লাখ লোকের বিপরীতে গবেষক আছেন মাত্র ১০৭ জন। কর্মী আছেন ১৮৭ জন। আর প্রতি এক হাজার শ্রমশক্তির বিপরীতে গবেষক আছেন শূন্য দশমিক ২৫ জন। প্রতি এক হাজার চাকরির বিপরীতে গবেষক আছেন শূন্য দশমিক ২৬ জন। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়। সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, ধারাবাহিকভাবে প্রতি বছরই জিডিপির অনুপাতে গবেষণা ও উন্নয়নে (আরঅ্যান্ডডি) ব্যয় কমছে। যেমন- ২০১৮-১৯ অর্থবছরেও এ খাতে ব্যয়ের পরিমাণ ছিল জিডিপির শূন্য দশমিক ৩৫ শতাংশ। পরের অর্থবছরে (২০১৯-২০) তা কমে হয় শূন্য দশমিক ৩১ শতাংশে। ২০২০-২১ অর্থবছর তা আরও খানিকটা কমে এসেছে। অর্থাৎ এ ক্ষেত্রে উন্নতি তো নেই, বরং অবনতি হচ্ছে দিন দিন। সম্প্রতি প্রথমবারের মতো বিবিএস সরকারি ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়, গবেষণা প্রতিষ্ঠান ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোর তথ্য নিয়ে একটি জরিপ করে। ‘রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট সার্ভে ২০২২’ শিরোনামের জরিপটিতে সরকারি-বেসরকারি ৪৯৭টি প্রতিষ্ঠানের তথ্য সংগ্রহ করা হয়। এতে ২০১৮-১৯, ২০১৯-২০ ও ২০২০-২১ অর্থবছরের তথ্য পর্যালোচনা করা হয়েছে। জরিপের ফলাফলে দেখা যায়, দেশে গবেষক আছেন মাত্র ১৮ হাজার ২৫ জন। তাদের মাত্র ১০ দশমিক ৮২ শতাংশ নারী। প্রযুক্তবিদের সংখ্যা মাত্র তিন হাজার ৫২ জন। তাদের ১১ দশমিক ৩৪ শতাংশ নারী। সূত্র জানায়, গবেষণা ও উন্নয়ন (আরঅ্যান্ডডি) সাধারণত তিন ধরনের হয়ে থাকে। এগুলো হচ্ছে- মৌলিক, পরীক্ষামূলক ও ফলিত গবেষণা। বিবিএসের প্রতিবেদনে দেখা যায়, মোট গবেষণা ও উন্নয়ন ব্যয়ের মধ্যে সর্বনিম্ন ব্যয় হচ্ছে মৌলিক গবেষণা কাজে। ২০২০-২১ অর্থবছরে দেশের মৌলিক গবেষণায় খরচ হয়েছে ৯৪১ কোটি ৫৪ লাখ টাকা, যা এ খাতে মোট ব্যয়ের মাত্র ৮ দশমিক ৯৮ শতাংশ। সবচেয়ে বেশি মোট ব্যয়ের ৫২ দশমিক ৭ শতাংশই হয়েছে পরীক্ষামূলক উন্নয়নে। এ ছাড়া ফলিত গবেষণায় ব্যয় হয়েছে মোট ব্যয়ের ৩৭ দশমিক ৪০ শতাংশ অর্থ। মৌলিক গবেষণায় কম ব্যয়ের কারণ প্রসঙ্গে বিবিএসের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গবেষণা ও উন্নয়নে ব্যয় করা প্রতিষ্ঠানগুলো মৌলিক গবেষণায় বিনিয়োগের পরিবর্তে নতুন পণ্য ও প্রক্রিয়া বিকাশের দিকেই বেশি মনোনিবেশ করছে। বিবিএসের জরিপে দেখা যায়, গবেষণায় তুলনামূলক বেশি ব্যয় হয় কৃষি খাতে। ২০২০-২১ অর্থবছরে কৃষি খাতে আরঅ্যান্ডডিতে ব্যয় হয় ৩ হাজার ৮৭৫ কোটি ৯৩ লাখ টাকা। অন্যান্য খাতের মধ্যে শিক্ষায় ১ হাজার ৩৮ কোটি টাকা, চিকিৎসায় ৯২৭ কোটি ৬২ টাকা, পরিবেশে ৮৪৭ কোটি টাকা, পরিবহন, টেলিযোগাযোগ ও অবকাঠামোয় ৭৩৭ কোটি টাকা এবং শিল্প খাতে ৩৩১ কোটি টাকার সামান্য কিছু বেশি ব্যয় হয়েছে আরঅ্যান্ডডিতে। গবেষণা ও উন্নয়ন (আরঅ্যান্ডডি) সম্পর্কিত বিভিন্ন সূচক প্রস্তুত করা এবং জাতীয় উদ্ভাবনী অবস্থান মূল্যায়নের উদ্দেশ্যে জরিপটি পরিচালনা করা হয়। এ ছাড়া জরিপের মাধ্যমে জাতীয় উদ্ভাবনী ব্যবস্থার গতিশীলতা চিহ্নিত করা, এ বিষয়ে সরকারি ও বেসরকারি খাতের মধ্যে সমন্বয় আনতে সহায়তা করাও এর উদ্দেশ্য ছিল। সূত্র আরো জানায়, বিবিএসের জরিপের তথ্যানুযায়ী দেশে বর্তমানে মোট গবেষক আছেন ১৮ হাজার ২৫ জন। তাদের মধ্যে ৮ হাজার ৩৮৭ জনের সর্বোচ্চ শিক্ষাগত যোগ্যতা মাস্টার্স ডিগ্রি, ৫ হাজার ৮৪০ জন স্নাতক ডিগ্রিধারী ও ১ হাজার ২৮৩ জনের শিক্ষাগত যোগ্যতা স্নাতকেরও কম। গবেষণায় পিএইচডি ও উচ্চতর ডিগ্রিধারীর অংশগ্রহণ তুলনামূলক কম, মাত্র ২ হাজার ৫১৪ জন। অথচ বিবিএসের পরিসংখ্যান অনুযায়ী দেশে মোট পিএইচডি ডিগ্রিধারী আছেন ৫১ হাজার ৭০৪ জন। সে হিসেবে পিএইচডি ডিগ্রিধারীর প্রায় ৯৫ শতাংশই গবেষণায় যুক্ত নেই। বিভিন্ন দেশের সঙ্গে তুলনামূলক বিচারে গবেষণা ও উদ্ভাবনে বিশ্বের মধ্যে পেছনের সারির দেশগুলোর একটি বাংলাদেশ। এমনকি এশিয়া অঞ্চলের মধ্যেও। ২০২২ সালের বৈশ্বিক উদ্ভাবন সূচকে প্রতিবেশী দেশ ভারতের অবস্থান ছিল ৪০তম। দক্ষিণ এশিয়ার আরও দুটি দেশ শ্রীলঙ্কা ৮৫তম ও পাকিস্তান ৮৭তম অবস্থানে। অথচ এই সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ১০২তম। এদিকে বিশ্লেষকরা বলছেন, স্বল্পোন্নত দেশের (এলডিসি) কাতার থেকে উত্তরণ, প্রেক্ষিত পরিকল্পনা (২০২১-২০৪১) বাস্তবায়ন, টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট (এসডিজি) অর্জন এবং প্রতিযোগিতামূলক বিশ্বে টিকে থাকার জন্য দেশের সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে গবেষণায় বরাদ্দ অনেক বাড়ানো জরুরি। কারণ প্রযুক্তি ও প্রতিযোগিতার এই যুগে মানসম্পন্ন গবেষণা ও উদ্ভাবনের কোনো বিকল্প নেই।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।