সড়কে অবৈধ গাড়ির সংখ্যা বাড়ছে

newsup
প্রকাশিত July 27, 2022
সড়কে অবৈধ গাড়ির সংখ্যা বাড়ছে

বিশেষ প্রতিবেদন: প্রতিবারই সড়ক দুর্ঘটনার পর বেরিয়ে আসে ফিটনেসবিহীন গাড়ি কিংবা চালকের লাইসেন্স না থাকার বিষয়টি। সড়কে নজরদারির দায়িত্ব যাদের, তাদের গাফিলতি ও অপতৎপরতার কারণেই মূলত দুর্ঘটনা ঠেকানো সম্ভব হচ্ছে না। এমনটা বলেছেন যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব মোজাম্মেল হক চৌধুরী।
পরিবহন বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দূরপাল্লার বিভিন্ন বাসের মধ্যে এক ধরনের প্রতিযোগিতা কাজ করে। যেখানে সেখানে গাড়ি থামিয়ে যাত্রী ওঠানোর কারণে অনেক সময় দুর্ঘটনা ঘটে। আবার ফিটনেস না থাকলে কিংবা চালক অদক্ষ হলেও দেখা যায় তারা বেপরোয়া হয়ে যায়। এতে যত্রতত্র ওভারটেকের প্রবণতা বাড়ে ও দুর্ঘটনা ঘটে।
বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ বিআরটিএ বলছে, যানবাহনের ফিটনেস লাইসেন্স কিংবা চালকের ড্রাইভিং লাইসেন্স দেওয়ার পাশাপাশি সড়কে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হয়। এ নজরদারিতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কাজ করে। তারাই বলতে পারবেন কীভাবে রাস্তায় চলে ফিটনেসবিহীন গাড়ি কিংবা লাইসেন্সবিহীন চালক।
গত ১৬ জুলাই ত্রিশালে স্বামী-স্ত্রী নিহতের ঘটনায় গ্রেফতারকৃত ট্রাক চালককে জিজ্ঞাসাবাদে র‌্যাব জানতে পারে গাড়িটির ফিটনেস ছিল না। এর আগে ২ জুলাই রাজধানীর গুলিস্তানে মঞ্জিল এক্সপ্রেস পরিবহনের দুই বাসের প্রতিযোগিতায় প্রাণ হারান মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর মোল্লা। চালক আলমগীরকে গ্রেফতারের পর জিজ্ঞাসাবাদে র‌্যাব জানতে পারে ড্রাইভিং লাইসেন্সই ছিল না তার।
এর আগে ২ জুন রাজধানীর বাংলামোটর মোড়ে ওয়েলকাম ট্রান্সপোর্ট প্রাইভেট লিমিটেডের একটি বাস মোটরসাইকেল আরোহী কনস্টেবল কোরবান আলীকে চাপা দিয়ে হত্যা করে। এ ঘটনায় বাস মালিক ও চালককে গ্রেফতারের পর জানা যায় রাজধানীতে চলাচলের পারমিট ছিল না বাসটির। বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির তথ্য বলছে, ৩ জুলাই থেকে ১৭ জুলাই পর্যন্ত ১৫ দিনে ৩১৯টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৩৯৮ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন ৭৭৪ জন। গত সাত বছরের তুলনায় কোনও ঈদুল আজহায় এত প্রাণহানি ঘটেনি।
যদিও এ বছর সড়কে মোটরসাইকেল চালানোয় ছিল বিধি-নিষেধ ছিল, তবু সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেলই ছিল এগিয়ে। ১১৩টি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় মারা গেছেন ১৩১ জন। আহত ৬৮ জন। যা সড়ক দুর্ঘটনার ৩৫.৪২ শতাংশ। নিহতের প্রায় ৩২.৯১ শতাংশ।

এই সংবাদটি 1,228 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।