ইস্কনের বিরুদ্ধে বাংলাদেশে ধর্মান্তকরণের অভিযোগ

newsup
প্রকাশিত July 27, 2022
ইস্কনের বিরুদ্ধে বাংলাদেশে ধর্মান্তকরণের অভিযোগ

ডেস্ক রিপোর্ট : ভারতীয় কট্টোর আন্তর্জাতিক ধর্মীয় সংস্থা ইস্কন সম্বন্ধে এবার ধর্মান্তকরণের অভিযোগ আনা হয়েছে। গত ১ জুলাই মায়াপুরের ইস্কন মন্দিরের রথযাত্রা উৎসবের খবর সংগ্রহ করতে আমাদের সাংবাদিক প্রতিনিধিরা গিয়েছিলেন মায়াপুরে। সেখানে রাজাপুর থেকে ইস্কনের চন্দ্রোদয় মন্দিরের রথযাত্রার বিস্তারিত আমাদের সোস্যাল নেট ওয়ার্ক চ্যানেল সংবাদ সোচ্চার.পড়স এ প্রকাশিত হয়। যা দেখে বিভিন্ন জায়গা থেকে নানারূপ প্রতিক্রিয়া আমাদের কাছে আসতে থাকে। এর মধ্যে সবচেয়ে বড় উল্লেখযোগ্য বিষয়টি হল এই সংগঠনের বিরুদ্ধে ধর্মান্তকরণের অভিযোগ। এই বিষয়ে আন্তর্জাতিক হিন্দুত্ববাদী এই ইস্কন (ইন্টারন্যাশানাল শ্রীকৃষ্ণ কনসাসনেস) সংগঠনের বিরুদ্ধে বহু ক্ষেত্রে স্কুলের খুদে ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে খাদ্য বিতরণ করে তাদের নিষúাপ নির্বোধ মনে সুকৌশলে হরে কৃষ্ণ হরে রাম নাম সংকীর্তণ ঢুকিয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠল। যা কন্ঠে ধারণ করে পরবর্তীতে তারা হিন্দুত্ববাদে বেড়ে উঠবে।

যদিও এধরণের ধর্মান্তকরণের বহু অভিযোগ আগে খৃষ্টান মিশনারিজদের বিরুদ্ধে উঠেছে। যা এদেশে হিন্দুত্ববাদীদের রোষে অনেক সময় ধার্মীক খৃষ্টান সন্ন্যাসীদের প্রাণও গিয়েছে উগ্র হিন্দুত্ববাদীদের হাতে। উড়িষ্যার গ্রাহাম স্টেইন হত্যাকান্ড এখনো বহু বাঙালীর স্মরণে আছে যেখানে আট বছরের শিশু পুত্রসহ এক মিশনারিজ পরিবারকে গাড়ির মধ্যে জ্যান্ত অবস্থায় পুড়িয়ে মারা হয়। যা গর্হিত অপরাধ বলে আজও খ্যাত। সুতারং সেই দিক থেকে দেখতে গেলে ইস্কন সম্পর্কে এই অভিযোগ ওঠায় বিষয়টি আমাদের কাছেও গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে হয়েছে। এই ব্যাপারে বাংলাদেশের এক নাগরিক অধুনা আমেরিকার নিউইয়র্কের বাসিন্দা বিশিষ্ট লেখক সাংবাদিক জয়নাল আবেদিন আমাদের কিছু ইউটিউব লিং ও ভিডিও ফুটেজ দিয়ে প্রমাণ করার চেষ্টা করেছেন ইস্কন নামক এই ধর্মীয় সংস্থাটি জনকল্যাণের নামে কিভাবে বাংলাদেশের প্রান্তিক গরীব এলাকায় ছোট ছোট শিশুদের প্রসাদের নামে খাবার তুলে দিয়ে তাদেরকে দিয়ে হরে কৃষ্ণ নাম জপ করাচ্ছেন।

তার দাবি এই ভিডিও ফুটেজটি বাংলাদেশের সিরাজগঞ্জ এলাকার একটি মাদ্রাসার ছবি যেখানে হিন্দুত্ববাদী এই সংগঠন এমন ধারাতেই তাদের ধর্মান্তকরণ কর্মসূচি পরিচালনা করে চলেছেন। এই বিষয়ে সে দেশের বেশ কিছু বিজ্ঞজনও সরব এবং তারা লেখালেখির মধ্য দিয়ে প্রতিবাদও করে চলেছেন। যদিও এ রাজ্যের ইস্কন কর্তাদের মতে হরে কৃষ্ণ হরে রাম আজকের এই অবক্ষয়ের যুগে একটি যুগান্তকারী আন্দোলনের রূপরেখা নিয়েছে যার অমৃত বাণী কন্ঠে নিয়ে সমাজে ভিন্ন জাতি প্রদেশ দেশের নাগরিকগণ আজ কৃষ্ণ প্রেমে আপ্লুত ও শান্তি সম্প্রীতির মন্ত্রে তারা আবদ্ধ। যার কোন দেশ কাল বলে নির্দিষ্ট কোনো গন্ডি হয় না।
সূত্র: সংবাদ সোচ্চার

এই সংবাদটি 1,229 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।