যাপিত জীবনযাত্রার পরিবর্তন - BANGLANEWSUS.COM
  • নিউইয়র্ক, বিকাল ৫:১৭, ১৪ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ


 

যাপিত জীবনযাত্রার পরিবর্তন

editorbd
প্রকাশিত জুন ১৩, ২০২৪
যাপিত জীবনযাত্রার পরিবর্তন

ডেস্ক রিপোর্ট: আজ ১৩ জুন গ্লোবাল ফ্যাটি লিভার দিবস। সবার অজান্তেই ফ্যাটি লিভার নামক প্যান্ডেমিকটি গোটা পৃথিবী দাপিয়ে বেড়াচ্ছে বেশ কয়েক দশক ধরে। ধারণা করা হয়, পৃথিবীর ১৫ শতাংশের মতো মানুষ এই ফ্যাটি লিভারে আক্রান্ত, যা থামার কোনো লক্ষণ আপাতত আমাদের সামনে দৃশ্যমান নয়। কোভিড এসে চলে গেলেও, কিন্তু জটিল সব অঙ্ক, বিজ্ঞানের ভাষায় যার নাম ম্যাথেমিটিক্যাল মডেলিং বলছে- ২০৩০ সাল নাগাদ কমার বদলে ফ্যাটি লিভার বিশ^ব্যাপী বৃদ্ধি পাবে ৬০ শতাংশের মতো। বাংলাদেশেও এর কোনো ব্যতিক্রম ঘটছে না। একটা সময় ছিল যখন হেপাটাইটিস বি-ভাইরাস ছিল এদেশে লিভার সিরোসিস আর লিভার ক্যান্সারের মতো লিভারের জটিল যত রোগের এক নম্বর কারণ। এখনো তাই। পরিবর্তনের ছোঁয়াটা লেগেছে দ্বিতীয় স্থানটিতে। হেপাটাইটিস সি-ভাইরাসকে হটিয়ে এখন এই জায়গাটি ফ্যাটি লিভারের দখলে। প্রশ্ন দাঁড়ায়, লিভারের চর্বিকে আমরা কখন ফ্যাটি লিভার বলব? আর ফ্যাটি লিভার মানেই বিনা মেঘে বজ্রপাত কি না? লিভারে এমনিতেই অল্পস্বল্প কিছু চর্বি জমা থাকে। শরীরের প্রয়োজনে সেই সঞ্চিত চর্বি থেকে শরীরকে শক্তির যোগান দেয় লিভার। কিন্তু বাংলায় যেমনটি বলে ‘বেশি ভালো, ভালো না’, ঠিক তেমনি বাড়তি চর্বিও লিভারের জন্য ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে। লিভারে বাড়তি চর্বি যেমন জমতে পারে অতিরিক্ত শর্করা বা চর্বি জাতীয় খাবার খেলে, তেমনি চর্বি জমতে পারে যারা মেদবহুল তাদের লিভারেও। পাশাপাশি ডায়াবেটিস, ডিজলিপিডিমিয়া, হাইপোথাইরয়েডিজম, পলিসিস্টিক ওভারি আর হেপাটাইটিস সি আক্রান্ত রোগীদের লিভারেও চর্বি জমে। এই যে যাদের লিভারে জমল বাড়তি চর্বি, অর্থাৎ যারা ফ্যাটি লিভারের রোগী, তাদের সবার না হলেও কারও কারও লিভারে ওই বাড়তি চর্বির জন্য দীর্ঘ মেয়াদে প্রদাহ বা ক্রনিক হেপাটাইটিস দেখা দিতে পারে, যার গাল ভরা নাম ‘নন-অ্যালকোহলিক স্টিয়াটোহেপাটাইটিস’, সংক্ষেপে ‘ন্যাশ’। এই ন্যাশের রোগীদেরই কারও কারও লিভার একটা সময় পুরোপুরি অকেজো হয়ে যায়, যাকে আমরা লিভার সিরোসিস বলি। যাদের লিভার সিরোসিস হয় তাদের কারও কারও হতে পারে লিভারের ক্যান্সারও। ফ্যাটি লিভারের সবচেয়ে কার্যকর বা ধন্বন্তরী চিকিৎসাটির নাম ‘লাইফ স্টাইল মডিফিকেশন’ বা ‘যাপিত জীবনযাত্রার পরিবর্তন’। অতিরিক্ত শর্করা আর চর্বি জাতীয় খাবার না খেয়ে পাশাপাশি সপ্তাহে অন্তত পাঁচটি দিন আধ ঘণ্টা করে হেঁটে আমরা লিভারটাকে ফ্যাটমুক্ত রাখতে পারি। পাশাপাশি যেসব রোগের কারণে লিভারে অতিরিক্ত চর্বি জমে সেসব রোগেরও চিকিৎসা করতে হবে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।