বন্যার পানিতে নিমজ্জিত দক্ষিণ সুরমা সরকারি কলেজ - BANGLANEWSUS.COM
  • নিউইয়র্ক, বিকাল ৩:৩১, ১৬ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ


 

বন্যার পানিতে নিমজ্জিত দক্ষিণ সুরমা সরকারি কলেজ

editorbd
প্রকাশিত জুলাই ৫, ২০২৪
বন্যার পানিতে নিমজ্জিত দক্ষিণ সুরমা সরকারি কলেজ

ডেস্ক রিপোর্ট: তৃতীয় বারের মতো বন্যায় আক্রান্ত পুরো সিলেট। বলা চলে বন্যার কবলে পড়ে শহর গ্রাম একাকার হয়ে গিয়েছে। চলমান বন্যার কবলে পড়ে দক্ষিণ সুরমা সরকারি কলেজের শিক্ষা কার্যক্রম ব্যহত হচ্ছে। বন্যার পানিতে প্লাবিত হয়েছে কলেজটির একমাত্র প্রবেশপথ সহ গুরুত্বপূর্ণ ৩টি বিল্ডিং। প্রায় এক মাস ধরে পানির নিচে তলিয়ে আছে এ কলেজ। সামনে এইচএসসি পরীক্ষা কীভাবে কী করবেন কিছুই বুঝে উঠতে পারছে না কলেজ কর্তৃপক্ষ। এমনকি এই কলেজে ডিগ্রি পরীক্ষার কেন্দ্র ছিল কিন্তু পানির কারণে ডিগ্রি পর অন্য কলেজে স্থানান্তর করা হয়েছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, দক্ষিণ সুরমার ঐতিহ্যবাহী এই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধান ফটকে রয়েছে হাঁটু সমান পানি। এছাড়াও কলেজের প্রশাসনিক ভবন, শেখ হাসিনা ভবন ও অনার্স ভবনের নিচতলা পানির নিচে রয়েছে। পানির কারণে আভ্যন্তরিন ক্লাস পরীক্ষা বন্ধ থাকলেও সরকারি পরীক্ষা কোনমতে পানি ডিঙিয়ে গিয়ে ভবনের দুতলায় চলমান রেখেছেন কলেজ কর্তৃপক্ষ। বন্যার কারণে কলেজে ক্লাস কার্যক্রম বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। সামনে পরীক্ষা তাই অফিস কার্যক্রম চালিয়ে যেতেই হচ্ছে। কলেজের শিক্ষক ও অফিস কর্মচারীরা নোংরা পানিকে সঙ্গী করেই অফিস করছেন।

শিক্ষার্থীদের প্রবেশপত্র সংগ্রহ করতে এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের এই পানি ডিঙিয়েই কলেজে আসতে হচ্ছে। এ কারণে বেশি বিপাকে পড়তে হচ্ছে মেয়ে পরীক্ষার্থীদের। কলেজের প্রধান ফটক থেকে রিকশায় করে ভেতরে যেতে হচ্ছে তাদের। জরুরি কাজে কলেজে আসা শিক্ষার্থীরাও হতাশা নিয়ে ফিরে যাচ্ছেন। সামনেই পরীক্ষা কিন্তু এই পানির মধ্যে সিট বণ্টন নিয়েও সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন বলে জানিয়েছেন কলেজের অধ্যক্ষ মো. মতিউর রহমান। এছাড়া এসএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে নিজের কলেজ ক্যাম্পাস দেখতে এসেও পানি ছাড়া আর যারা দক্ষিণ সুরমা সরকারি কলেজে সুযোগ পেয়েছেন তারা কিছুই দেখার পাচ্ছে না।
কলেজে ফরম জমা দিতে আসা শিক্ষার্থী আল আমিন বলেন, গত কয়েকদিন ধরে কলেজে ক্যাম্পাস পানিতে নিমজ্জিত। যাওয়া আসাতে অনেক কষ্ট। আগামী ৯ জুলাই থেকে এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়াটাও অনেকটা ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

ভোগান্তির শিকার একজন এইচএসসি পরীক্ষার্থী জানান, আমাদের জন্য খুব দুর্ভোগের ব্যাপার। কলেজ কর্তৃপক্ষ কোনো উদ্যোগ গ্রহণ করেননি। আরেক শিক্ষার্থী বলেন, প্রয়োজন থাকায় বাধ্য হয়েই সকলকে নোংরা পানি ডিঙিয়ে কলেজে প্রবেশ করতে হচ্ছে। কর্তৃপক্ষের উচিত বালু উচু করে দিয়ে যাতায়াতের সুবিধা করে দেওয়া। দক্ষিণ সুরমা সরকারি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো. মতিউর রহমান বলেন, বন্যার কারণে কলেজের প্রধান ফটকসহ গুরুত্বপূর্ণ ৩টি ভবন পানির নিচে রয়েছে। এজন্য আমরা ক্লাস কার্যক্রম বন্ধ রেখেছি। আগামী ৪ জুলাই পর্যন্ত পাঠদান কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। তারপর পরিস্থিতির উন্নতি হলে শ্রেণী কার্যক্রম শুরু করবো না হয়। উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা শেষ হওয়া পর্যন্ত স্থগিত রাখবো।

তিনি জানান, ক্লাস কার্যক্রম বন্ধ থাকলেও পানি ডিঙিয়ে এসে আমরা নিয়মিত অফিস করছি। ২ থেকে ৩ ফিট পানি অতিক্রম করেও আমরা আমাদের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছি। যদি বন্যা পরিস্থিতি এভাবে থাকে তাহলে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা অনুযায়ী কাজ চালিয়ে যাবো।

সুত্র: ইউএনবি ডটকম

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।