মুদ্রাসফীতির লাগাম টেনে ধরা হবে - BANGLANEWSUS.COM
  • নিউইয়র্ক, বিকাল ৫:০৮, ২৪শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ


 

মুদ্রাসফীতির লাগাম টেনে ধরা হবে

newsup
প্রকাশিত জানুয়ারি ১৫, ২০২৪
মুদ্রাসফীতির লাগাম টেনে ধরা হবে

ডেস্ক রিপোর্ট:

মূল্যস্ফীতির লাগাম টেনে ধরতে ব্যবস্থা নেওয়া হবে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, এখন মানুষের সবচেয়ে কষ্ট হচ্ছে দ্রব্যমূল্য। মূল্যস্ফীতি বেড়েছে। আমরা সেটা অনেকটাই কমিয়ে এনেছি। এখানে কিছু কিছু মহল আছে, একটু চক্রান্ত করেই মূল্যস্ফীতি বাড়ায়। তবে এটাও সত্য যে মানুষের ক্রয়ক্ষমতা বৃদ্ধি পেয়েছে। আগে এতটা ছিল না।
সরকারপ্রধান বলেন, সামনে রোজা। এ সময়ে যা যা দরকার তার সবই আগাম কেনার ব্যবস্থা নিয়েছি। পাশাপাশি মূল্যস্ফীতির লাগাম যাতে আরও টেনে ধরা যায়—তার জন্য যথেষ্ট ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সোমবার (১৫ জানুয়ারি) বিকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দলের এক যৌথসভায় তিনি এসব কথা বলেন। শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে বিকালে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। বিএনপি ২৮ অক্টোবর সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড ঘটিয়ে এখন আন্তর্জাতিক পর্যায়ে গিয়ে কাঁদে বলেও তিনি অভিযোগ করেন।

দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে বিজয়ী ও বিজিতদের উদ্দেশে তিনি বলেন, যারা নির্বাচন করেছে, কেউ জয়ী হয়েছে, কেউ জয়ী হতে পারেনি। সেক্ষেত্রে একজন আরেকজনকে দোষারোপ করা বা কার কী অপরাধ এগুলো খুঁজে বের করা, এসব বন্ধ করতে হবে। আমাদের দল ছাড়া কয়েকটি দল নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছে, আমরা জনগণের যে সমর্থন পেয়েছি সেটা কিন্তু কাজের স্বীকৃতি। দেশে মানুষের জন্য আমরা কাজ করেছি, দেশের মানুষ আমাদের ভোট দিয়েছে, আমাদের জয়ী করেছে। সেখানে হয়তো কেউ জিততে পেরেছে, কেউ জিততে পারেনি। হার-জিত যাই হোক সেটা সবাইকে মেনে নিয়ে অন্তত নিজের দেশের কল্যাণের জন্য কাজ করতে হবে। আমরা যদি একে অপরের দোষ ধরতে ব্যস্ত থাকি, এটা আমাদের বিরোধী দলকে আরও উৎফুল্ল করবে, তাদের কিছু সুযোগ সৃষ্টি করে দেওয়া হবে।

বিএনপির প্রতি ইঙ্গিত করে আওয়ামী লীগের সভাপতি বলেন, যে দল নির্বাচন করে না, তারা তো গণতান্ত্রিক ধারায় নির্বাচন করায় অভ্যস্ত না। যেসব জরিপ আন্তর্জাতিকভাবে হয়েছিল তাতে স্পষ্ট ছিল বিএনপি তাদের জন্য নির্বাচন করলে কখনও সরকার গ্রহণ করার মতো সাফল্য অর্জন করবে না। সেরকম সিটও তারা পাবে না। আওয়ামী লীগের বেলায় সার্ভে ছিল, শুধু একমাত্র আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করবে। আওয়ামী লীগ পর্যাপ্ত সিট পাবে। এ কথা শোনার পর তারা নির্বাচনে আসবে না, এটা তো স্বাভাবিক। তাছাড়াও ওদের সৃষ্টি হয়েছিল অবৈধভাবে যারা ক্ষমতা দখল করেছিল তাদের পকেট থেকে। জনগণের ভোট চুরি করা, নির্বাচনে কারচুপি করা, এসব কালচার বিএনপির আমলেই সৃষ্টি। তারা ওটাই ভালো বুঝতো।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।